Home /News /purba-medinipur /
Midnapore News: সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রেম! পালালো বউ! খুঁজে পেতে শহর জুড়ে পোস্টার স্বামীর!

Midnapore News: সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রেম! পালালো বউ! খুঁজে পেতে শহর জুড়ে পোস্টার স্বামীর!

স্ত্রীর [object Object]

Midnapore News: সোশ্যাল মিডিয়ায় পরিচয় হওয়া যুবকের সঙ্গে ঘর ছাড়লেন স্ত্রী। বাড়িতে ছোট ছোট দুই সন্তান! মুড়ি খেয়েই কাটছে দিন! সেই স্ত্রীকে ফিরে পেতে অবাক কাণ্ড করে বসলেন স্বামী। 

  • Share this:

    #পূর্ব মেদিনীপুর: সোশ্যাল মিডিয়ায় পরিচয় হওয়া প্রেমিকের হাত ধরে বেপাত্তা স্ত্রী। নিজের স্ত্রীকে ফিরে পেতে স্ত্রীর সচিত্র ‘সন্ধান চাই’ পোস্টার সাঁটাচ্ছেন স্বামী! তমলুক শহর থেকে শ্রীরামপুর গ্রাম—ইতিউতি দু’একটা এমন পোস্টার চোখ এড়িয়ে যাওয়ার ঘটনা নয়। শহর ও শহরতলীতে এমন ১০০০ পোস্টার লাগালেন এক যুবক।দীর্ঘ ৯ বছরের সংসার শ্রীরামপুর গ্রামের সৌমিত্র সামন্তের। সংসার বলতে স্বামী-স্ত্রী ও দুই মেয়ে। একজনের বয়স সাত। অন্যজনের চার। টোটো চালিয়ে রোজগার। অভাবী হলেও দিব্যি চলছিল। মাত্র ক’দিনেই এমন ভরা সংসার ভেঙে চৌচির। সৌজন্যে সোশ্যাল মিডিয়া। জনপ্রিয় সামাজিক মাধ্যমে আলাপ এক যুবকের সঙ্গে স্বামী সন্তান ও সংসার ফেলে স্ত্রী আশা সামন্ত ঘর ছেড়েছেন। সঙ্গে নিয়েছেন টাকা ও মেয়ের জন্য বানানো সোনার গয়না।

    সৌমিত্র সামন্তের কথায় জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়ায় তমলুক পুরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের যুবকের সঙ্গে ঘর ছেড়েছেন তার স্ত্রী। দ্বারস্থ হয়েছিলেন পুলিসেরও। দেড়মাস হল পুলিশও খোঁজ দিতে পারেনি। শেষে ‘গণপ্রচার’ চালিয়ে স্ত্রী’র সন্ধান পেতে চাইছেন সৌমিত্র। এক হাজারেরও বেশি পোস্টার ছাপিয়ে সাঁটাচ্ছেন পথেঘাটে। বড় হরফে লেখা সন্ধান চাই। তার পাশে স্ত্রীর ছবি। নীচে নাম-ঠিকানা।তমলুক থানার তথ্য বলছে, বেশ কয়েকমাস ধরে এভাবে সংসার ছাড়ার প্রবণতা বেড়েছে গৃহবধূদের মধ্যে। কেউ ফিরছেন, কেউ ফিরছেন না। অনেক খোঁজাখুঁজি করে পুলিস অনেককে ফিরিয়েও আনছেন। আবার বহু পরিবার ‘যাক যা গেছে তা যাক’ বলে হাল ছেড়ে দিয়েছেন।

    প্রেমিকের সঙ্গে এভাবে ঘর ছেড়ে যাওয়া মেনে নিতে পারছেন না সৌমিত্র সামন্ত। সন্তানেরা বড্ড অসহায়। মা’কে না পেয়ে কাঁদছে সারাক্ষণ। সৌমিত্র টোটো নিয়ে বেরিয়ে গেলে তাদের দেখার কেউ নেই। আবার না বেরোলেও সংসার অচল। স্ত্রী চলে যাওয়ার পর ক’দিন বাড়িতেই থাকতেন। সন্তানদের দেখভাল করতেন। আর পেরে উঠছেন না। বেরোতে হচ্ছে টোটো নিয়ে। সকালে সন্তানদের মুড়ি খাইয়ে বেরিয়ে যান সৌমিত্র। দুপুরে হোটেলের খাবার কিনে আনেন। রাতের খাবারেও মুড়ি।

    আরও পড়ুন:  বর্ষা এলেও দেখা নেই বৃষ্টির! গ্রামে দেবরাজ ইন্দ্রের পুজো করে বৃষ্টিকে ডাক!

    সৌমিত্র সামন্ত জানান, ‘আমি ওই যুবকের বাড়িতে একাধিকবার গিয়েছি। যুবকের বাবা-মায়ের কাছে আমার করুণ অবস্থার কথা বলেছি। দ্রুত তাঁদের ছেলে এবং আমার স্ত্রীকে ফেরানোর জন্য আবেদন জানিয়েছি। আট-দশবার থানায় গিয়েছি। সব জায়গায় নিরাশ হচ্ছি। অগত্যা লাজলজ্জা বিসর্জন দিয়ে স্ত্রীর ছবি, নাম ও ঠিকানা ব্যবহার করেই ‘সন্ধান চাই’ পোস্টার সাঁটাচ্ছি।’ সেই সঙ্গে সৌমিত্রের সংযোজন—‘আসলে কী জানেন তো, সন্তানের কাছে মায়ের গুরুত্ব অপরিসীম। আমার সন্তানরা ঠিকমতো খেতে পাচ্ছে না। কান্নাকাটি করছে। বাবা হয়ে ওদের জন্য খুব কষ্ট হচ্ছে। তাই লাজ-লজ্জা ছেড়ে পোস্টার সাঁটাচ্ছি।’ যদিও এ বিষয়ে তমলুক থানার আইসি অরূপ সরকার জানিয়েছেন, ''থানায় একটা মিসিং অভিযোগ জমা পড়েছে। বধূকে খোঁজার সবরকম চেষ্টা চলছে।''

    Saikat Shee

    Published by:Piya Banerjee
    First published:

    Tags: Midnapore, Midnapore news, Tamluk

    পরবর্তী খবর