হোম /খবর /পূর্ব বর্ধমান /
বর্ধমানে সুইমিং পুলে ১৯ বছরের ছেলের মৃত্যুকে ঘিরে চাঞ্চল্য 

East Burdwan News: সাঁতার শিখতে এসেই ঘটে গেল বড় দুর্ঘটনা,পরের ঘটনা আরও মর্মান্তিক!

প্রতিদিনের মতো  ছেলেটি কল্পতরু চিল্ড্রেন কালচারাল সেন্টারের সুইমিংপুলে এসেছিল 

প্রতিদিনের মতো  ছেলেটি কল্পতরু চিল্ড্রেন কালচারাল সেন্টারের সুইমিংপুলে এসেছিল 

East Burdwan News: বর্ধমান শহরের কল্পতরু সুইমিং পুলে বৃহস্পতিবার একটি ছেলে সাঁতার শিখতে আসে এবং হঠাৎই জলের মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়ে ছেলেটি। আর সঙ্গে সঙ্গে জলের মধ্যে ডুবে গিয়ে মৃত্যু হয় ছেলেটির।

  • Share this:

পূর্ব বর্ধমান: বর্ধমান শহরের কল্পতরু সুইমিং পুলে বৃহস্পতিবার একটি ছেলে সাঁতার শিখতে আসে এবং হঠাৎই জলের মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়ে ছেলেটি। আর সঙ্গে সঙ্গে জলের মধ্যে ডুবে গিয়ে মৃত্যু হয় ছেলেটির। জানা গেছে ছেলেটির বয়স ১৯ বছর৷ নাম কাইফ মন্ডল৷ বাড়ি বর্ধমান থানার অন্তর্গত কেষ্টপুর এলাকায়। প্রতিদিনের মতো এদিনও কাইফ কল্পতরু চিল্ড্রেন কালচারাল সেন্টারের সুইমিংপুলে প্র্যাকটিস করতে আসে এবং সেই সময় হঠাৎই অসুস্থ হয়ে জলের মধ্যেই তলিয়ে যায়, তড়িঘড়ি তাকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হলে চিকিৎসকেরা তাকে মৃত বলে ঘোষনা করে। সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বর্ধমান থানার পুলিশ।

 এই ঘটনায় মৃতের এক আত্মীয় সেখ জাকির হোসেন বর্ধমান থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন‌।মৃতের আত্মীয়ের অভিযোগ ,আমাদের ছেলে মারা যায়নি ওরা আমাদের ছেলেকে জলে ডুবিয়ে মেরে দিয়েছে ।এর আগেও এখানে অনেক ছেলে মারা গেছে এভাবে।আমি কল্পতরু সুইমিং পুলের যে কর্মকর্তারা এবং মালিক রয়েছে তাদের তদন্ত করে কঠোরতম শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। কল্পতরু সুইমিং পুলের জয়েন্ট সেক্রেটারি সৌগত হালদার জানান, প্রতিদিন আমাদের সকালে তিনটে ব্যাচ আছে ।সকালের ব্যাচে এই কাইফ মন্ডল নামে ছেলেটি সাঁতার শিখতে আসে সুইমিং পুলে।

আরও পড়ুন-ছেলেবেলার বন্ধুকে বিশ্বাস করার চরম মাশুল দিতে হল মহিলাকে, এ কী হল জামুড়িয়ায়

আরও পড়ুন- ঘণ্টার পর ঘণ্টা পার! ঠাঁই দাঁড়িয়ে রয়েছে ট্রেন, চরম দুর্ভোগ যাত্রীদের

কাইফ একমাস হল ভর্তি হয়েছে। আমাদের সুইমিং পুলে দু-তিন বার দুর্ঘটনা ঘটার পর সারে তিন থেকে ৪ফুট মাত্র জল রেখেছি । তবে জলে ডুবে মৃত্যু হওয়া এখন আমাদের সুইমিং পুলে কোনো চান্স নেই । কাইফ এর মুখ থেকে হঠাৎ করেই মনে হয় কিছু বেরোচ্ছিল৷ যদিও সেসময় আমি ছিলাম না৷ সঙ্গে সঙ্গে আমাদের স্টাফরা তুলে নিয়ে গিয়ে কাইফের পেটে চাপ দেয়, তবে জল কিছুই বেরোয়নি। সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর ডাক্তারবাবু মৃত বলে ঘোষনা করে । কী করে মারা গেছে তা বলতেই, ডাক্তার জানান, জল তো কিছু বেরোয়নি পেট থেকে৷ দেখুন মনে হয়, গ্যাসফর্ম করেছে অথবা রাতের বেলা কিছু খাওয়া দাওয়ার জন্য অথবা হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।

Bonoarilal Chowdhury

Published by:Riya Das
First published:

Tags: Bardhaman, Death, Swimming pool