Petrol price hike: পেট্রোলের সেঞ্চুরি, পাহাড়ে পর্যটকদের মাথায় হাত! গুনতে হচ্ছে দ্বিগুন ভাড়াও

পেট্রোল সেঞ্চুরি পার! বর্ষামুখর শৈলশহরের উত্তাপ কয়েক গুন বাড়িয়ে দিয়েছে পেট্রোলের অগ্নি মূল্য। সাধারণ যাত্রী থেকে পর্যটক সকলেরই ভোগান্তি চরমে!

পেট্রোল সেঞ্চুরি পার! বর্ষামুখর শৈলশহরের উত্তাপ কয়েক গুন বাড়িয়ে দিয়েছে পেট্রোলের অগ্নি মূল্য। সাধারণ যাত্রী থেকে পর্যটক সকলেরই ভোগান্তি চরমে!

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: পেট্রোল সেঞ্চুরি পার! বর্ষামুখর শৈলশহরের উত্তাপ কয়েক গুন বাড়িয়ে দিয়েছে পেট্রোলের অগ্নি মূল্য। সাধারণ যাত্রী থেকে পর্যটক সকলেরই ভোগান্তি চরমে! পেট্রোপণ্যের লাগামহীন মূল্য বৃদ্ধির জেরে দুশ্চিন্তায় গাড়ির চালকেরা। একে ২০০৮ সালের পর নতুন করে ভাড়া বাড়েনি। তারওপর প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে পেট্রোল, ডিজেলের দাম। দার্জিলিংয়ে ইতিমধ্যেই সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছে।

কালিম্পং, শিলিগুড়িতেও দাম সেঞ্চুরির দোড়গোঁড়ায়! সঙ্গে দোসর কোভিড বিধি। কোভিড নিয়ন্ত্রণে গাড়িতে ৫০ শতাংশ যাত্রী নিয়ে চলাচলের নির্দেশ জারি করেছে নবান্ন। স্বাভাবিকভাবেই গাড়ি চালক থেকে মালিকের মাথায় হাত। বেসরকারি বাস পরিষেবা পুরোপুরি বন্ধ। আন্তজেলা চলাচলে এখন ভরসা সরকারি বাস পরিষেবা। তবে ছোট গাড়ি চালকদের দুশ্চিন্তা চরমে।

কোভিডের জেরে একে পর্যটকের সংখ্যা কম। তবুও শৈলশহরে বেড়াতে আসছেন পর্যটকেরা। সেই পর্যটকদেরও দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে পেট্রোলের মূল্য বৃদ্ধি। কেননা দ্বিগুন হয়েছে যাত্রী ভাড়া। শিলিগুড়ি থেকে দার্জিলিংয়ের যাত্রীপিছু ভাড়া গুনতে হচ্ছে ৪০০ টাকা। আগে যা ছিল ২০০ টাকা। অর্থাৎ দ্বিগুন হয়েছে যাত্রী ভাড়া। আবার কেউ কেউ দেড়গুন বেশি ভাড়া নিচ্ছে। সবমিলিয়ে বেড়াতে এসেও স্বস্তিতে নেই ভ্রমনপিপাসু পর্যটকেরাও। কেননা বাড়তি খরচ বহন করতে হচ্ছে।

পর্যটকদের দাবি, আবার আগের দামে ফিরিয়ে আনা হোক পেট্রোপণ্য। নইলে আগামী দিনে বেড়াতে আসার খরচও বেড়ে যাবে কয়েকগুন! এছাড়া উপায় নেই, সাফ জানাচ্ছেন গাড়ি চালকেরা। দীর্ঘ কয়েক বছর ভাড়া বাড়ায়নি পরিবহন দফতর। সঙ্গে রয়েছে করের বোঝা। কোভিডের দুই ঢেউয়ের জেরে ইতিমধ্যেই বিপাকে পর্যটন শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা। এখনও ঘোরার সব কেন্দ্রগুলো খোলেনি। তবুও গরমের হাসফাঁস থেকে বাঁচতে শুধু আমাদের রাজ্যেরই নয়, ভিন রাজ্যের পর্যটকেরাও ছুটে আসছেন শৈলশহরে!

সেই ঘোরার পথে কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে পেট্রোলের সেঞ্চুরি! পেট্রোপণ্যের মূল্য হ্রাস করার দাবি উঠেছে সর্বত্র। এদিকে কাল থেকে পর্যটকদের জন্যে খুলে যাচ্ছে সিকিমও! এক্ষেত্রে পর্যটক বা সাধারন যাত্রীদের টিকার দুটি ডোজ নেওয়া আবশ্যিক। মেল্লি বা রংপো চেকপোস্টে আরটিপিসিআর টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট আর লাগবে না। শুধুমাত্র টিকা নেওয়ার নথি দেখাতে হবে। সিকিম সরকার এক নির্দেশিকায় তা জানিয়েছে।

Partha Sarkar

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: