• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • বিপুল অঙ্কের জালনোট-সহ ধৃত নব্য বিজেপি নেতা, বৈষ্ণবনগর থানায় বিক্ষোভ, পাল্টা লাঠিচার্জ পুলিশের

বিপুল অঙ্কের জালনোট-সহ ধৃত নব্য বিজেপি নেতা, বৈষ্ণবনগর থানায় বিক্ষোভ, পাল্টা লাঠিচার্জ পুলিশের

ধৃত ধনঞ্জয় মন্ডল বাখরাবাদ পঞ্চায়েতের নির্বাচিত সদস্য। ২০১৮ সালে কংগ্রেসের টিকিটে নির্বাচিত হন। পরে যোগ দিয়েছিলেন তৃণমূলে। গত ২৬ নভেম্বর সদলবলে দুশোরও বেশি সমর্থক নিয়ে বিজেপিতে যোগদান করেন বলে দাবি বিজেপির।

ধৃত ধনঞ্জয় মন্ডল বাখরাবাদ পঞ্চায়েতের নির্বাচিত সদস্য। ২০১৮ সালে কংগ্রেসের টিকিটে নির্বাচিত হন। পরে যোগ দিয়েছিলেন তৃণমূলে। গত ২৬ নভেম্বর সদলবলে দুশোরও বেশি সমর্থক নিয়ে বিজেপিতে যোগদান করেন বলে দাবি বিজেপির।

ধৃত ধনঞ্জয় মন্ডল বাখরাবাদ পঞ্চায়েতের নির্বাচিত সদস্য। ২০১৮ সালে কংগ্রেসের টিকিটে নির্বাচিত হন। পরে যোগ দিয়েছিলেন তৃণমূলে। গত ২৬ নভেম্বর সদলবলে দুশোরও বেশি সমর্থক নিয়ে বিজেপিতে যোগদান করেন বলে দাবি বিজেপির।

  • Share this:

#মালদহ: এসটিএফের হাতে জাল নোট-সহ গ্রেফতার পঞ্চায়েত সদস্য ও তার দাদা। দিন কয়েক আগে বিজেপিতে যোগদানের পরেই জাল নোট-সহ গ্রেফতারের ঘটনায় তুমুল উত্তেজনা। বৈষ্ণবনগর থানায় বিক্ষোভে ফেটে পড়লেন বিজেপি কর্মীরা। পাল্টা লাঠিচার্জ পুলিশের। ধৃত ধনঞ্জয় মন্ডল বাখরাবাদ পঞ্চায়েতের নির্বাচিত সদস্য। ২০১৮ সালে কংগ্রেসের টিকিটে নির্বাচিত হন। পরে যোগ দিয়েছিলেন তৃণমূলে। গত ২৬ নভেম্বর সদলবলে দুশোরও বেশি সমর্থক নিয়ে বিজেপিতে যোগদান করেন বলে দাবি বিজেপির। গ্রেফতার করা হয়েছে তার দাদা অমৃত মন্ডলকেও। ধৃতদের হেফাজত থেকে ২০০০ টাকার ১১৪টি জাল নোট এবং ৫০০ টাকার ১৯৬টি জাল নোট পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। উদ্ধার হয়েছে মোট ৩ লক্ষ ২৬ হাজার টাকার জাল নোট।

পঞ্চায়েত সদস্য-সহ দুই অভিযুক্তকে আদালতে নিয়ে যাওয়ার সময় বাধা দেয় দলীয় কর্মী-সমর্থকরা। থানার মধ্যে পুলিশের গাড়ি ঘিরে ফেলে তুমুল বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন বিজেপির কর্মীরা। পুলিশ গাড়ি বের করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে দু'পক্ষে তুমুল ধস্তাধস্তি বেধে যায়। শেষপর্যন্ত বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে বলপ্রয়োগ করে পুলিশ। বিক্ষোভকারীদের লাঠি উঁচিয়ে ও ধাওয়া করে ছত্রভঙ্গ করে পুলিশ । এরপর দুই অভিযুক্তকে নিয়ে বৈষ্ণবনগর থেকে মালদহে আদালতের উদ্দেশ্যে রওনা হয় পুলিশ। বি়জেপি বিধায়ক স্বাধীন মন্ডল বলেন, শাসকদলের নির্দেশে মিথ্যে মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। তাই, প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।

এ দিকে, বিজেপি বিধায়কের দাবি, দলবদলের পর থেকে নানাভাবে সমস্যায় ফেলার চেষ্টা হচ্ছিল ওই পঞ্চায়েত সদস্যকে। শুধু তাই নয়, গ্রেফতারের সময় ওই পঞ্চায়েত সদস্যের কাছে থাকা নগদ বেশ কয়েক হাজার টাকা পুলিশ জোর করে নিয়ে নেয় বলেও অভিযোগ বিজেপি বিধায়কের। যদিও জেলা তৃণমূলের দাবি, পুলিশ তার কাজ করেছে। এরসঙ্গে রাজনৈতিক কোন বিষয় নেই। পুলিশ আইনানুগ পদক্ষেপ নেবে। পুলিশ জানিয়েছে, নির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতেই রাতে ওই পঞ্চায়েত সদস্যের বাড়িতে অভিযান চালায় এসটিএফ। তার ও দাদার হেফাজত থেকে জাল নোট পাওয়া গিয়েছে। ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করে জাল নোট পাচার কারবারের আরও তথ্য পাওয়ার চেষ্টা করা হবে।

Sebak DebSarma

Published by:Shubhagata Dey
First published: