Bangla News | Coronavirus Vaccine Drive: উৎসবের আগে সতর্কতা, পুরোদমে করোনার টিকাকরণ শুরু পূজা উদ্যোক্তাদের জন্য

চলছে ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ।

উৎসবের মধ্যে দিয়ে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে যাতে না পারে তার জন্য শুক্রবার থেকেই পূজা কমিটির সদস্যদের করোনা টিকা দেওয়া (Coronavirus Vaccine Drive) শুরু হল।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: উৎসবের মরসুম শুরর আগেই সতর্ক উত্তর দিনাজপুর জেলা প্রশাসন। উৎসবের মধ্যে দিয়ে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে যাতে না পারে তার জন্য শুক্রবার থেকেই পূজা কমিটির সদস্যদের করোনা টিকা দেওয়া (Coronavirus Vaccine Drive) শুরু হল। রায়গঞ্জ পৌরসভার পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডে তুলসিতলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই টিকাকরন শিবির অনুষ্ঠিত হল এদিন।

গণেশ পূজা দিয়েই উৎসবের মরসুম শুরু হল। উত্তর দিনাজপুর জেলায় করোনা সংক্রমণ কিছুটা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। উৎসব মরসুমে এই সংক্রমণ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার জন্য আগে থেকেই সতর্ক উত্তর দিনাজপুর জেলা প্রশাসন। জেলার সমস্ত পূজা কমিটির সদস্যদের করোনা ভ্যাকসিন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন। শুধু পূজা উদ্যোক্তারাই নন। পূজা মরসুমে কেনাকেটা শুরু হবে। সেই ক্রেতা বিক্রেতাদের মধ্যে দিয়েও যাতে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্য জেলার সমস্ত দোকানদারদের করোনা ভ্যাকসিন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার রায়গঞ্জ ব্লকের পূজা উদ্যোক্তাদের করোনা টিকা দেওয়া হয়।রায়গঞ্জ শহরে তুলসিতলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই টিকাকরন শিবির অনুষ্ঠিত হয়। উত্তর দিনাজপুর জেলা মুখ্যস্বাস্থ্য আধিকারিক পূনম শর্মা, রায়গঞ্জ পৌরসভার পৌরপতি সন্দীপ বিশ্বাস শিবির পরিদর্শনে আসেন। উত্তর দিনাজপুর জেলা শাসক অরবিন্দ কুমার মীনা জানান, রায়গঞ্জ শহরে ৯০ শতাংশের উপরে মানুষদের করোনা ভ্যাকিসিন দেওয়া হয়েছে। পূজা আসার আগে ১০০ শতাংশ মানুষকে এর আওতায় আনার পরিকল্পনা আছে।

আরও পড়ুন: দেশে সংক্রমণ বাড়লেও জেলায় বাড়ছে সুস্থতার হার, স্বস্তিতে প্রশাসন

জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক পূনম শর্মা জানান, জেলা শাসকের নির্দেশে এই বিশেষ শিবিরের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আজ থেকে পূজা উদ্যোক্তাদের টিকাকরন দেওয়া শুরু হল। আগামীতে জেলার সর্বত্র এই শিবির করা হবে।রায়গঞ্জ পৌরসভার পৌরপতি সন্দীপ বিশ্বাস জানান, রায়গঞ্জ পৌর এলাকা করোনা মুক্ত রাখতে তাঁরা সচেষ্ট। উৎসবের দিনগুলো মানুষ যাতে সুন্দর থাকতে পারে সেই লক্ষ্যেই এই বিশেষ শিবিরের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পূর্নিমা ঘটক নামে এক পূজা কমিটির সদস্যা জানান, তিনি প্রথম ডোজ ভ্যাকসিন পেলেও দ্বিতীয় ডোজ ভ্যাকসিন পেতে সমস্যায় পড়েছিলেন। সমস্ত টিকাকরন কেন্দ্রগুলোতে ভিড়ে ঠাসা। আজকে অনেক অনায়াসে ভ্যাকসিন পেলেন। যথা সময়ে ভ্যাকসিন পেয়ে নিজেকে অনেকটা দুশ্চিন্তা মুক্ত মনে করছেন তিনি।

Published by:Raima Chakraborty
First published: