Home /News /north-bengal /
Coochbehar Lover: প্রেম ফিরে পেতে পোস্টার হাতে প্রেয়সীর বাড়ির সামনে ধর্নায় মরিয়া প্রেমিক

Coochbehar Lover: প্রেম ফিরে পেতে পোস্টার হাতে প্রেয়সীর বাড়ির সামনে ধর্নায় মরিয়া প্রেমিক

Coochbehar Lover

Coochbehar Lover

Coochbehar Lover: প্রেমিকার বাড়ির সামনে ধর্না। মেয়ের ছবি হাতে পোস্টার প্রেম ফিরিয়ে দেও। পুলিশ ধর্না তুলতে গেলে বচসা ও ধস্তাধস্তি। পুলিশের ওপরে চড়াও প্রেমিকের আত্মীয়রা । লাঠিচার্জ করে পুলিশ। পালিয়ে যায় প্রেমিক। কোচবিহার বক্সিরহাটে। 

আরও পড়ুন...
  • Share this:

    কুচবিহারঃ  একহাতে পোস্টার ‘‘আমি আমার ভালবাসার মূল্য চাই’’। আর এক হাতে প্রেমিকার সঙ্গে ছবি। প্রেমিকার পরিবার বিয়েতে রাজি না হওয়ায় ধর্নায় বসে পুরনো প্রেমকে ফেরত পেতে আন্দোলনে নেমেছিলেন প্রেমিক। তবে  প্রেমিকার বাড়ির সামনে ধর্নাকে কেন্দ্র করে সঙ্গে ধুন্ধুমার পরিস্থিতি হল কুচবিহারের বক্সিরহাটে। পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে প্রেমিকের বন্ধুদের ধস্তাধস্তির মুখে পড়ে পুলিশ৷ হয় লাঠিচার্জ। পরে পালিয়ে প্রাণে বাঁচেন প্রেমিক ও তাঁর বন্ধুরা।

    এক বছরের ভালবাসা ফিরে পাওয়ার দাবিতে বৃহস্পতিবার রাতে বক্সিরহাটে প্রেমিকার বাড়ির সামনে ছবি, পোস্টার হাতে নিয়ে ধর্নায় বসেছিলেন ওই গ্রামের যুবক। দীর্ঘ দু' ঘণ্টা ধর্না চলার পর প্রেমিকার  পরিবারের থানায় করা অভিযোগের ভিত্তিতে আসে পুলিশ৷

    ধর্নায় বসা ওই প্রেমিককে থানায় নিয়ে যেতে চায় পুলিশ। এরপর  পুলিশের সঙ্গে তুমুল ধস্তাধস্তি  শুরু হয় তাঁর বন্ধুদের। পরিস্থিতি এমন দিকে গড়ায় যে পুলিশের এর গায়ে হাত দেওয়ার অভিযোগও ওঠে।  কুচবিহারে  অসম- বাংলা সীমানায় বক্সিরহাট থানার  মন্তানি কালীবাড়ি এলাকার এই ঘটনা ঘিরে ছড়িয়ে পড়ে চাঞ্চল্য।

    আরও পড়ুন : জন্মদিন থেকে বিবাহবার্ষিকী, অল্লু অর্জুনের বিশেষ মুহূর্ত জুড়ে থাকে তাঁর পরিবার, দেখুন নায়কের ঘরোয়া ছবি

    ধস্তাধস্তির সময় পুলিশের হাত থেকে ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় ওই যুবককে। পরিস্থিতি সামাল দিতে  ঘটনাস্থলে  আসে বক্সিরহাট থানার বিশাল পুলিশবাহিনী। জমায়েত হটাতে করা হয় লাঠিচার্জ। এর পর পালিয়ে যায় অভিযুক্তরা। ঘটনার জেরে  বর্তমানে থমথমে গোটা এলাকা। মোতায়েন  রয়েছে বিশাল পুলিশবাহিনী। বক্সির হাটের ওই প্রেমিকের নাম প্রশান্ত বর্মন। মান্তানি কালীবাড়ি এলাকার এক যুবতীর সঙ্গে প্রায় এক বছরের বেশি সময় ধরে প্রেমের সম্পর্কে ছিলেন প্রশান্ত। প্রেমের সম্পর্কের দ্বন্দ্ব পরিবার পর্যন্ত গড়ায়। প্রেমিকাকে মেনে নিয়ে প্রশান্তের পরিবার বিয়েতে রাজি হয়।

    আরও পড়ুন : বাচ্চা কি কারণে-অকারণে রেগে যাচ্ছে? রাগ নিয়ন্ত্রণের পথ দেখাতে হবে অভিভাবককেই

    আরও পড়ুন : শুরু হয়েছে পবিত্র রমজান; রোজার উপবাসে শরীরকে দীর্ঘক্ষণ হাইড্রেটেড রাখবে এই সব খাবার

    তবে এই সম্পর্কে বেঁকে বসে প্রেমিকার পরিবার। কিছুতেই প্রশান্তের সঙ্গে  মেয়েকে বিয়ে দেবে না বলে অনড় থাকেন তাঁরা। পরিবার রাজি না হলে এই বিয়ে সম্ভব নয় বলে সাফ প্রশান্তকে জানিয়ে দিয়েছিলেন তাঁর প্রেমিকা। আর এর পরই ধর্নায় বসেছিলেন তিনি, প্রেমের মূল্য ফেরত পাওয়ার দাবিতে।

    (প্রতিবেদন : প্রবীর কুণ্ডু)

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published:

    Tags: Coochbehar

    পরবর্তী খবর