লভ জিহাদের মামলায় গ্রেফতার কিশোর, মারধর করার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

লভ জিহাদের মামলায় গ্রেফতার কিশোর, মারধর করার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

উভয় একসঙ্গে বন্ধুর জন্মদিনের অনুষ্ঠান থেকে বাড়ি ফিরছিল। রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে তাদের হেনস্থা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। ঘটনাটির সূত্রপাত ১৪ ডিসেম্বর, বিজনৌরে।

উভয় একসঙ্গে বন্ধুর জন্মদিনের অনুষ্ঠান থেকে বাড়ি ফিরছিল। রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে তাদের হেনস্থা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। ঘটনাটির সূত্রপাত ১৪ ডিসেম্বর, বিজনৌরে।

  • Share this:

    #লখনউ: লভ জিহাদ নিয়ে উত্তরপ্রদেশ জুড়ে শোরগোল। কিছু দিন আগেই নতুন অর্ডিন্যান্স আনা হয়েছে যোগী রাজ্যে। কিন্তু জেরে হেনস্থার শিকার হচ্ছে বহু যুগল, এমনই অভিযোগ। সম্প্রতি এমন একটি ঘটনার শিকার হল এক কিশোর-কিশোরী। উভয় একসঙ্গে বন্ধুর জন্মদিনের অনুষ্ঠান থেকে বাড়ি ফিরছিল। রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে তাদের হেনস্থা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। ঘটনাটির সূত্রপাত ১৪ ডিসেম্বর, বিজনৌরে।

    ১৬ বছরের ওই কিশোরীর অভিযোগ, সে এক মুসলমান বন্ধুর সঙ্গে জন্মদিনের অনুষ্ঠান থেকে রাত সাড়ে দশটা নাগাদ বাড়ি ফিরছিল। হঠাৎই স্থানীয় লোকেরা তাদের ঘিরে বিক্ষোভ জানায় এবং মারধর শুরু করে। ধর্মান্তকরণ অভিযোগ আনে ওই কিশোরের বিরুদ্ধে। তারপরই তাদের পুলিশ গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়। ওই কিশোরীর বাবাও ছেলেটির বিরুদ্ধে ধর্মান্তকরণের অভিযোগ আনেন। যদিও পরে এই অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেছেন, "আমার মেয়ের প্রতি সম্পূর্ণ আস্থা রয়েছে। সে কোনও ভুল কাজ করেনি। আমার মেয়েকে কোনও রাজনৈতিক ঝামেলার মধ্যে জড়াবেন না। রাস্তা দিয়ে কোনও ছেলে মেয়ে একসঙ্গে হেঁটে গেলে যদি তাদের হেনস্থার শিকার হতে হয়, সেটা গ্রহণযোগ্য নয়"। তবে কিশোরীর দাবি, তার মুসলমান বন্ধু তাকে বাড়ি পৌঁছে দিতে আসছিল। কিন্তু মাঝ রাস্তায় কয়েকজন তাদের থামিয়ে দুর্ব্যবহার করে এবং মেয়েটির ভিডিও তোলে। সে বারবার রোখার চেষ্টা করলেও তারা কোনও কথা শুনতে নারাজ ছিল। ছেলেটিকে লাঠি দিয়েও মারধর করা হয়। তারপরেই পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয় ওই যুগলকে। অন্য দিকে পুলিশের দাবি, মেয়েটি নিখোঁজ ছিল। ওই কিশোর হিন্দু মেয়েটিকে নিয়ে পালিয়ে যায় এবং জোর করে ধর্ম পরিবর্তন করানোর চেষ্টা করে। কিন্তু মেয়েটি পালিয়ে আসে এবং অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়। তবে ওই অঞ্চলের পঞ্চায়েত প্রধান বিনোদ সাইনি বলেন, এর সঙ্গে লভ জিহাদের কোনও সম্পর্ক নেই। এই ঘটনাটি সামনে আসার পর ওই কিশোরীর বাবা এবং সাইনি থানায় গিয়ে রিপোর্ট করেন। তাঁরা জানিয়েছেন, ওই কিশোরের সঙ্গে কিশোরীর আগেই পরিচয় ছিল। তাঁরা একটা অনুষ্ঠান বাড়ি থেকে ফিরছিল। কিন্তু থানা থেকে নাকি বলা হয়েছে যে এটা লভ জিহাদের মামলা। এর পরে বিজনৌর পুলিশ একটা ট্যুইটে লেখে, এটি লভ জিহাদের মামলা এবং ওই কিশোরীর বাবার অভিযোগের ভিত্তিতেই কিশোরকে গ্রেফতার করা হয়। ওই কিশোরের মা সংবাদ মাধ্যমে জানিয়েছেন, "আমার ছেলে জন্মদিনের অনুষ্ঠানে গিয়েছিল। পরের দিন সকালে জানতে পারি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে। লাঠি দিয়ে মেরেছেও। আমার ছেলে কিছু করেনি, সে নির্দোষ"। কিশোরীর বাড়ি থেকে কিশোরের বাড়ি তিন কিলোমিটার দূরে। আজ, শুক্রবার, প্রায় দশ দিন হতে চলল, ওই কিশোর পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। এই ঘটনার তদন্ত এখনও চলছে। পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে কিশোরীর বয়ান ও তার বাবার বয়ানের উপর ভিত্তি করেই এই মামলার তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে।

    Published by:Somosree Das
    First published:

    লেটেস্ট খবর