সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বারাণসী! শিবরাত্রিতে হিন্দু ভক্তদের পুষ্পবৃষ্টিতে স্বাগত জানালেন মুসলিমরা!

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বারাণসী! শিবরাত্রিতে হিন্দু ভক্তদের পুষ্পবৃষ্টিতে স্বাগত জানালেন মুসলিমরা!

Photo collected

কেউ তাঁর সন্ধান পান শিবলিঙ্গে, কেউ পান যীশুর ছবিতে তো কারও কাছে তাঁর অস্তিত্ব প্রকট হয় আজানের সুরে। সেই ভগবানের খোঁজেই শিবরাত্রির দিনে কাশী বিশ্বনাথ দর্শনে যান ভক্তের দল।

  • Share this:

    #বারাণসী : বিশ্বাসে মিলায় 'ভগবান', তর্কে বহুদূর ! কেউ তাঁর সন্ধান পান শিবলিঙ্গে, কেউ পান যীশুর ছবিতে তো কারও কাছে তাঁর অস্তিত্ব প্রকট হয় আজানের সুরে। সেই ভগবানের খোঁজেই শিবরাত্রির দিনে কাশী বিশ্বনাথ দর্শনে যান ভক্তের দল। আর কেউ কেউ জানেন সেই ভক্তরাই আসলে ভগবান। তাই তাঁদের সেবায় আসল মানবধর্ম বলে মানেন তাঁরা। এমনই সঠিক অর্থে 'ধর্মপ্রাণ' মানুষের বাস বারাণসী শহরে। যাঁরা তাঁদের জাত, ধর্ম ভুলে নিবেদিত ভক্তের সেবায়।

    মহাশিবরাত্রির দিনে ধর্ম এবং আধ্যাত্মিকতার পীঠস্থান কাশীতে তাঁরাই গড়ে তুললেন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক আশ্চর্য নজির। কাশী বিশ্বনাথ দর্শনে আসা ভক্তদের মাথায় পুস্পবৃষ্টি করে ‘ওঁ নমঃ শিবায়’ ধ্বনি দিলেন স্থানীয় মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষজন।

    কাশীতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এই নজির গোটা দেশবাসীর কাছে এক বার্তা পৌঁছে দিল, 'সকল মানুষই সমান, মানুষের মধ্যে কোন ভেদাভেদ নেই। দিওয়ালি, ইদ, মহরম, মহাশিবরাত্রি সব একই সঙ্গে সকলে মিলে পালন করতে হয়। তাতেই উৎসব হয় সর্বাঙ্গসুন্দর।'

    মহাশিবরাত্রিতে গডুলিয়া থেকে কাশী বিশ্বনাথ মন্দির পর্যন্ত লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা সমস্ত দর্শনার্থীদের মাথায় পুস্পবৃষ্টি করে ‘ওঁ নমঃ শিবায়’ ধ্বনি দিলেন এই মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষরা। বহু বছরের পরম্পরা বজায় রেখে এভাবেই সকাল থেকে সন্ধ্যে পর্যন্ত তাঁরা সম্প্রীতির বার্তা ছড়িয়ে দিলেন প্রতিটি ভারতবাসীর মনে।

    পুস্পবৃষ্টিকারীদের মধ্যেই ছিলেন মহম্মদ আসিফ। বললেন, ‘ভারতের প্রতিটি নাগরিকের উচিত সকল ধর্মের সম্মান করা। এই ছবির মাধ্যমে গোটা দেশের কাছে বার্তা পৌঁছে দিতে চাই আমরা। একই কথা বললেন উপস্থিত অন্যান্য মুসলিম সদস্যরাও। বললেন, এই কাজ করে এক অনাবিল আনন্দের স্বাদ পেলেন তাঁরাও।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published:

    লেটেস্ট খবর