corona virus btn
corona virus btn
Loading

অমানবিক অত্যাচারের শিকার থাইল্যান্ডের বাঁদররা! PETA-র অভিযোগ ভিত্তিহীন, জানাল সরকার

অমানবিক অত্যাচারের শিকার থাইল্যান্ডের বাঁদররা! PETA-র অভিযোগ ভিত্তিহীন, জানাল সরকার
photo source Reuters

থাইল্যান্ডে বাঁদরদের দিয়ে নারকেল পাড়ানো হয়। কারণ গাছগুলো বেশি উঁচু হওয়ায় সেখানে বাঁদরদের ওঠানো হয়। তারা নারকেল পেড়ে আনে। যা দেশের বাইরেও পাঠানো হয়। এই ঘটনা সামনে আসতেই PETA অভিযোগ জানায়, যে এটা অমানবিক কাজ।

  • Share this:

#থাইল্যান্ড: থাইল্যান্ডে বাঁদরদের দিয়ে নারকেল পাড়ানো হয়। কারণ গাছগুলো বেশি উঁচু হওয়ায় সেখানে বাঁদরদের ওঠানো হয়। তারা নারকেল পেড়ে আনে। যা দেশের বাইরেও পাঠানো হয়। এই ঘটনা সামনে আসতেই PETA অভিযোগ জানায়, যে এটা অমানবিক কাজ। একটি জন্তুর স্বাভাবিক বেঁচে থাকায় হস্তক্ষেপ করা। এবং তাঁদের ওপর অত্যাচার করা হচ্ছে। এই মর্মে PETA অভিযোগ দায়ের করে। তবে এই ঘটনা সত্য নয় বলেই দাবি থাইল্যান্ড সরকারের। তবে কিছু ব্রিটিশ রিটেইলারও দাবি করেছে মানবিক নয় এই কাজ। বাঁদরগুলির ওপর অত্যাচার করা হয়। বাধ্য করা হয় এই কাজ করতে।

তবে থাইল্যান্ডের এক ৫২ বছর বয়সী বাঁদর ট্রেনার নিরুন ওয়ংওনিচ জানিয়েছেন, তাঁর বাঁদরদের জন্য তৈরি স্কুল আছে। যেখানে বছরে ৬ থেকে সাতটা বাঁদরকে তিনি ট্রেনিং দেন। এই বাঁদরদের ওপর কোনও রকম অত্যাচার করা হয় না। এমনকি এই সমস্ত বাঁদরের সঙ্গে তাঁর এবং সকলের ভালবাসার সম্পর্ক। এখন আর তাঁদেরকেও এই কাজে ব্যবহার করা হয় না। তবে যে সমস্ত নারকেল এক্সপোর্ট করা হয় সেগুলো মানুষই পারে। কারণ থাইল্যান্ডের বেশির ভাগ নারকেল গাছ খুব ছোট। তবে বেশ কয়েকবছর আগে কিছু সাউথের ফার্মাররা বাঁদরদের ব্যবহার করতেন এই কাজে। তবে তাঁদের ওপর কোনও রকম অত্যাচার করা হত না। কিন্তু এখন আর হয় না।

নিরুন রয়টার্সকে দেওয়া ইন্টারভিউতে জানান যে, "তিনি ৩০ বছর ধরে বাঁদরদের ট্রেনিং দেন। কখনও অত্যাচারের ঘটনা তিনি দেখেননি। আর বাঁদরকে মারলে বা ভয় দেখালে তারা কোনও কথা শোনে না। তাদেরকে যা শেখাতে হয় সবটাই ভালবেসে, আদর করে শেখাতে হয়।" থাইল্যান্ড সরকারও PETA-র অভিযোগকে মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন বলেছে। থাইল্যান্ডের কৃষি মন্ত্রী জানান, প্রতিবছর ২ লক্ষ নারকেল উৎপাদন হয়। যার সবটাই মানুষ ও মেশিন ব্যবহার করে পাড়া হয়। এখানে কোনও বাঁদরকে কাজে লাগানো হয় না।

Published by: Piya Banerjee
First published: July 11, 2020, 4:17 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर