হোম /খবর /দেশ /
ফের জামিন পেলেন সাকেত, প্রতিবাদ জানিয়ে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি তৃণমূলের

Saket Gokhale gets bail: ফের জামিন পেলেন সাকেত, প্রতিবাদ জানিয়ে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি তৃণমূলের

গ্রেফতারির পর তৃণমূল সাংসদদের সঙ্গে সাকেত গোখলে৷

গ্রেফতারির পর তৃণমূল সাংসদদের সঙ্গে সাকেত গোখলে৷

প্রথম থেকেই সাকেতের গ্রেফতারি নিয়ে সরব হয় তৃণমূল৷ পশ্চিমবঙ্গের শাসক দলের অভিযোগ, তৃণমূলের সঙ্গে যুক্ত থাকার কারণেই হেনস্থা করা হচ্ছে সাকেতকে৷

  • Share this:

#মোরবি: তিন দিনের মধ্যে দ্বিতীয় বার গ্রেফতারির পরেও জামিন পেলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় মুখপাত্র সাকেত গোখলে৷ এ দিন গুজরাতের মোরবির জেলা আদালতে তোলা হয় সাকেতকে৷ সেখানেই জামিন পান তিনি৷ জামিনের পরেই সাকেতের সঙ্গে দেখা করেন দোলা সেন, শান্তনু সেন সহ তৃণমূল সাংসদরা৷

গত সোমবার রাতে রাজস্থানের জয়পুর বিমানবন্দর থেকে সাকেত গোখলেকে গ্রেফতার করে গুজরাত পুলিশ৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নামে মিথ্যে তথ্য পরিবেশনের অভিযোগ আনা হয় সাকেতের বিরুদ্ধে৷ অভিযোগ, মোরবিতে ব্রিজ দুর্ঘটনার পর প্রধানমন্ত্রীর সফরের খরচ নিয়ে ভুল তথ্য দিয়ে ট্যুইট করেছিলেন তৃণমূল মুখপাত্র৷

আরও পড়ুন: এক সপ্তাহে দু'বার গ্রেফতার! সাকেত ইস্যুতে রাজ্যসভায় সুর চড়াল তৃণমূল

এই গ্রেফতারির পর সাকেত প্রথমে আদালত থেকে জামিন পান৷ কিন্তু বৃহস্পতিবার ফের তাঁকে গ্রেফতার করা হয় সাকেতকে৷ এবারে নির্বাচনী বিধি ভঙ্গের অভিযোগ আনা হয় সাকেতের বিরুদ্ধে৷ সাকেতের গ্রেফতারির প্রতিবাদ করে ট্যুইট করেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷

আরও পড়ুন: তিনদিনে ২ বার গ্রেফতার? সাকেতের আবেদন নিয়ে সোচ্চার তৃণমূল! গুজরাতে প্রতিনিধি দল

প্রথম থেকেই সাকেতের গ্রেফতারি নিয়ে সরব হয় তৃণমূল৷ পশ্চিমবঙ্গের শাসক দলের অভিযোগ, তৃণমূলের সঙ্গে যুক্ত থাকার কারণেই হেনস্থা করা হচ্ছে সাকেতকে৷ সাকেতের সঙ্গে দেখা করতে এ দিনই গুজরাতে পৌঁছয় তৃণমূলের পাঁচ সাংসদের প্রতিনিধি দল৷ সেই দলে ছিলেন দোলা সেন, শান্তনু সেন, অসিত মাল, খলিলুর রহমান এবং সুনীল মণ্ডল৷ এ দিন রাজ্যসভাতেও সাকেতের গ্রেফতারি নিয়ে সরব হন তৃণমূল সাংসদ জহর সরকার৷

সাকেতের ঘটনা নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে নির্বাচন কমিশনকেও চিঠি দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস৷ সাকেত গোখলেকে হেনস্থার ঘটনায় গুজরাত পুলিশের বিরুদ্ধে যথাযথ তদন্তের আর্জি জানানো হয়েছে তৃণমূলের পক্ষ থেকে৷

নির্বাচন কমিশনকে লেখা চিঠিতে তৃণমূলের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, রাজস্থান পুলিশকে অন্ধকারে রেখেই কোনও আদালতের নির্দেশ অথবা প্রয়োজনীয় নথি ছাড়া সাকেতকে জয়পুর থেকে গ্রেফতার করা হয়৷ শুধু তাই নয়, গুজরাতের ভোট প্রচারে পরেশ রাওয়াল, হিমন্ত বিশ্বশর্মাদের বিতর্কিত মন্তব্যও তুলে ধরা হয়েছে তৃণমূল সাংসদদের পক্ষ থেকে৷ কারণ গুজরাতে পুলিশ প্রশাসন এই মুহূর্তে নির্বাচন কমিশনের অধীনেই রয়েছে৷

Published by:Debamoy Ghosh
First published: