সংসদে সময় কেনার কৌশল, সংঘাত এড়াতে চাইছে বিজেপি

প্রধানমন্ত্রীর পরপর দুটো টুইটই কিছুটা আভাস দিয়েছিল। বাকি দিনটা গেল নোট বাতিল নিয়ে বিরোধীদের বোঝানোর চেষ্টায়। বিরোধীরা সুর চড়ালেও এখনই পাল্টা আক্রমণে হাঁটছে না বিজেপি।

  • Last Updated :
  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রীর পরপর দুটো টুইটই কিছুটা আভাস দিয়েছিল। বাকি দিনটা গেল নোট বাতিল নিয়ে বিরোধীদের বোঝানোর চেষ্টায়। বিরোধীরা সুর চড়ালেও এখনই পাল্টা আক্রমণে হাঁটছে না বিজেপি। শীতকালীন অধিবেশনের প্রথম দিনেই স্পষ্ট গেরুয়া শিবিরের এই কৌশল। বাজারে টাকার জোগান বাড়লে পরিস্থিতি পালটাতে পারে। ততদিন কংগ্রেস-তৃণমূল কংগ্রেসের মতো বিরোধীদের সঙ্গে সংঘাতে যাওয়ার ঝুঁকি নিতে চাইছে না শাসক দল।

    নোট বাতিল নিয়ে বিরোধীদের আক্রমণের মুখে সমঝোতার পথ খোলা রাখছে কেন্দ্র। বুধবার সকালেই বিরোধীদের সহযোগীতার আবেদন জানান প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘সব বিষয়ে আলোচনায় প্রস্তুত ৷ কালো টাকার বিরুদ্ধে লড়ুন ৷ সরকারের বিরুদ্ধে নয় ৷’তারপরও প্রথম দিনেই নোট বাতিল ইস্যুতে উত্তাল হয় রাজ্যসভা। এদিন লোকসভায় কাজ না হলেও এককাট্টা বিরোধীরা। বিজেপি কিন্তু কৌশলগত ভাবেই সমঝোতার পথে চলতে মরিয়া।বিজেপি কৌশল বুঝে সুর আরও চড়াতে চাইছে কংগ্রেস। লোকসভা ও রাজ্যসভায় একজোট হয়ে শাসকদলকে চাপে ফেলারও ছকও প্রায় তৈরি।নোট বাতিল নিয়ে বিরোধীদের তিন দফা দাবির দুটি এখনই মানতে তৈরি। তৃতীয় দাবি নিয়েও নরম হওয়ার পথে হাঁটছে বিজেপি।
    -মানা হতে পারে বিশেষ অধিবেশনের দাবি - বিরোধীদের দাবি মেনে সংসদে বিবৃতি দিতে পারেন প্রধানমন্ত্রী - প্রত্যেক দলকে বক্তব্য রাখার সুযোগ দেওয়া হতে পারেনোট বাতিল নিয়ে সুর চড়িয়েছে সমাজবাদী পার্টি, বহুজন সমাজ পার্টির মতো আঞ্চলিক দলগুলিও। রাজ্যসভায় বিতর্কের মধ্যে কথা কাটাকাটিতেও জড়িয়ে পড়েন দুই দলের সাংসদরা।বাজারে টাকার জোগান বা়ড়লে সাধারণ মানুষের সমস্যা কমবে। তারপরও পালটা আক্রণে নামার অপেক্ষায় বিজেপি। ততদিন আবেদন-নিবেদনেই ভরসা রাখছে শাসক দল।
    First published:

    Tags: All party, Demonitisation, PM Narendra Modi, Rajyasabha