• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • GREEN HEROES 12 YEAR OLD TN STUDENT CREATES SOLAR POWERED MOTORISED BICYCLE SANJ

Green Heroes : অভাবনীয় কীর্তি কিশোরের! সোলার বাই সাইকেল বানিয়ে নজির গড়ল ১২ বছরের পড়ুয়া...

তামিলনাড়ুর নবীন প্রতিভা

Green Heroes: সৌরশক্তির ব্যবহার করে মোটরের সাহায্যে সোলার বাই সাইকেলটিকে ((Solar Bicycle) বানানো হয়েছে। কিশোর বয়সে তাঁর এই কীর্তি বড় নজির গড়েছে।

  • Share this:

#চেন্নাই: বয়সে ছোট, তাতে কী? কর্মে তো বড়! তামিলনাড়ুর (Tamil Nadu) শিবগঙ্গাই (Sivagangai) জেলার বাসিন্দা ১২ বছর বয়সী কিশোর তৈরি করেছে পরিবেশ বান্ধব বাই সাইকেল। সৌরশক্তির ব্যবহার করে মোটরের সাহায্যে সাইকেলটিকে (Solar Bicycle) বানানো হয়েছে। কিশোর বয়সে তাঁর এই কীর্তি বড় নজির গড়েছে। ছেলেটির নাম বীরাহরিকৃষ্ণণ (Veeraharikrishnan)। বাবার নাম বীরাবথিরণ (Veerabathiran)। বীরাহরিকৃষ্ণণ স্থানীয় একটি বেসরকারি স্কুলের নবম শ্রেণির পড়ুয়া। ছোট থেকেই পুরনো জিনিস দিয়ে নতুন কিছু তৈরি করার ইচ্ছে। গত বছর থেকে করোনা অতিমারী ও লকডাউনের কারণে স্কুল বন্ধ। বাড়ি থেকেই অনলাইনে ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। ফলে বেশির ভাগ সময়ে অবসরে কেটেছে বীরাহরিকৃষ্ণণের। সেই অবসর সময়েই নতুন কিছু তৈরি করার ইচ্ছে থেকে এই বাই সাইকেলের ((Solar Bicycle) আবিষ্কার করেছে বীরাহরিকৃষ্ণণ।

আরও পড়ুন- রোমহর্ষক না হাড়হিম! গা ছমছমে দৃশ্য, হরিণ খেয়ে পেট ফুলে ঢোল ভয়ঙ্কর অজগরের...

বীরাহরিকৃষ্ণণ তাঁর সাধারণ সাইকেলটিকে সৌরশক্তির সাহায্যে মোটরচালিত বাই সাইকেল বানাতে চেয়েছিল। News18-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বীরাহরিকৃষ্ণণ বলে, “আমি সবসময়ই নিজের জিনিসগুলোকে নতুন ভাবে তৈরি করতে ভালোবাসি এবং আমার লক্ষ্য সেটাই থাকে। আমি অনেক দিন ধরে গবেষণা করে, আমার নিজেরে সাধারণ সাইকেলটিতে মোটর ফিট করি যা সম্পূর্ণ পরিবেশ বান্ধব। সৌরশক্তির সাহায্যে ওই মোটর চলবে। যেকোনও ধরনের সাইকেলকে এই ফর্ম্যাটে পরিবর্তন করা যেতে পারে। এই ধরনের সাইকেলের দাম প্রায় ১০,০০০ টাকা হতে পারে। যা সূর্যের আলোর সংস্পর্শে এলে প্রায় ৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত দৌড়াতে পারবে। একটানা ৫ ঘণ্টা চার্জ দিলেই যথেষ্ট। এই সাইকেলে ১৫০ কেজি পর্যন্ত ওজন বহন করা যেতে পারে। এছাড়াও এই সাইকেল সাধারণ কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে। এখন আমি এই সাইকেলের গতি নিয়ে রিসার্চ করছি।”

আরও পড়ুন- সিদ্ধার্থকে শেষবারের মতো এই কথাগুলোই বলেছিলেন শেহনাজ, শুনে চোখের জল ধরে রাখতে পারলেন না কেউই

বীরাহরিকৃষ্ণণের বাবা বলেন, “ প্রথমে ওঁ ব্যাটারি দিয়ে ওই সাইকেলটিকে তৈরি করেছিল, পরে সৌরশক্তি ব্যবহার করে। কিছু অটোমোবাইল কোম্পানি এই মডেল তৈরির জন্য আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। আমি ছেলের পড়াশোনার কথা ভেবে মানা করেছি, তবে ভবিষ্যতে ব্যবসার জন্য এটা নিয়ে কাজ করার ইচ্ছে রয়েছে, আমার আনন্দ হয় যে, আমার ছেলে অবসর সময়ে ভালো কিছু তৈরি করার জন্য় নিজের মনোনিবেশ করেছে। ওঁর নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস আমাকে গর্বিত করে। আমি চাই ভবিষ্যতে ওঁ আরও বড় কিছু আবিষ্কার করুক”।
Published by:Sanjukta Sarkar
First published: