Home /News /national /

Home Isolation New Guidelines: এবার হোম আইসোলেশন মাত্র ৭ দিন ! সহজ হল নিভৃতবাস থেকে মুক্তির নিয়মও

Home Isolation New Guidelines: এবার হোম আইসোলেশন মাত্র ৭ দিন ! সহজ হল নিভৃতবাস থেকে মুক্তির নিয়মও

প্রতীকী ছবি৷ Photo-PTI

প্রতীকী ছবি৷ Photo-PTI

বুধবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানালো, আক্রান্ত ব্যক্তির পর পর তিন দিন যদি জ্বর না আসে, তাহলে আইসোলেশন (Home Isolation) থেকে মুক্তি পেতে পারেন বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি : বদলে গেল নিয়ম। হোম আইসোলেশন (Home Isolation New Guidelines) নীতিতে বদল আনল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। ১৪ দিন নয়, এবার থেকে হোম আইসোলেশনে থাকতে হবে ৭ দিন (Covid 19 in India)।

বুধবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানালো, আক্রান্ত ব্যক্তির পর পর তিন দিন যদি জ্বর না আসে, তাহলে আইসোলেশন (Home Isolation) থেকে মুক্তি পেতে পারেন বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। এত দিন পর্যন্ত করোনা পরীক্ষা হওয়ার থেকে ১০ থেকে ১৪ দিন পর্যন্ত আইসোলেশনে থাকতে হত। এবার সেই মেয়াদ কমানো হল।

আরও পড়ুন: মঙ্গলবার রাতে এল খবর, এবার সানাকে নিয়ে প্রবল দুশ্চিন্তায় সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়!

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের গাইডলাইনে বলা হয়েছে, আইসোলেশন শুরু হওয়ার পর করোনা পরীক্ষা করার কোনও প্রয়োজন নেই।  স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে জানানো হল, আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা উপসর্গহীনদেরও কোভিড টেস্ট করাতে হবে না, শুধুমাত্র চিকিৎসককে দিয়ে পরীক্ষা করালেই চলবে।

এ দিকে, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৫৮ হাজার ৯৭ জন, যা গতকালের আক্রান্তের সংখ্যার তুলনায় ৫৫ শতাংশ বেশি। গত ২৮ ডিসেম্বর দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৯ হাজারের কাছাকাছি। মাত্র ৯ দিনেই সেই সংখ্যাটি প্রায় ৬ গুন বৃদ্ধি পেয়েছে।

আরও পড়ুন: হু-হু করে বাড়ছে করোনা ! দিল্লিতে শনি ও রবিবার জারি করা হল কার্ফু!

দেশে করোনা সংক্রমণে হার বাড়ছে। আক্রান্ত হচ্ছেন বহু মানুষ। বিশেষত চিকিৎসক বা স্বাস্থ্যকর্মীরা অধিক আক্রান্ত হচ্ছেন। দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেশ কিছুদিন পরে ৫০ হাজার ছাড়িয়েছে। পরিস্থতি ক্রমশ খারাপ হচ্ছে। দেশে ওমিক্রণ আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে ২৪৩ জন ওমিক্রন আক্রান্তের খোঁজ মেলায় , দেশে মোট ওমিক্রন রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২১৩৫৷

দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক ওমিক্রন আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে মহারাষ্ট্রে৷ সেখানে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা ৬৫৩। এর পরেই রয়েছে দিল্লির নাম, সেখানে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা ৪৬৪। দিল্লিতে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট রয়েছে। তিনটি ল্যাব থেকে ৩০-৩১ ডিসেম্বরের জিনোম সিকোয়েন্সিং রিপোর্ট অনুসারে, ৮১ শতাংশ নমুনায় ওমিক্রন সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। গত বছর ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টর সময় যেভাবে দ্বিতীয় ঢেউ নেমে এসেছিল দেশে, ঠিক তেমনই এবার ওমিক্রণ ভ্যারিয়েন্টের হাত ধরে তৃতীয় ঢেউ আসেছে!‌

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

Tags: Covid ১৯, Home isolation

পরবর্তী খবর