Bihar Election Results 2020: নজিরবিহীন লড়াইয়ে বিহার এনডিএ-র, একক বৃহত্তম দল আরজেডি

  • News18 Bangla
  • | November 11, 2020, 09:23 IST
    facebookTwitterLinkedin
    LAST UPDATED 5 MONTHS AGO

    AUTO-REFRESH

    HIGHLIGHTS

    11:6 (IST)

    10:48 (IST)

    10:35 (IST)

    8:18 (IST)
    8:1 (IST)


    এনডিএ জিতেছে ১২৫ আসনে। ম্যাজিক ফিগার ১২২। আরজেডি-র নেতৃত্বাধীন মহাজোটকে থামতে হল ১১০ আসনে। এনডিএ-র মধ্যে বিজেপি ৭৪ আসনে জয়ী হয়েছে। জেডিইউ ৪৩, ভিআইপি ও এইচএএম চারটি করে আসনে জিতেছে। মহাজোটের মধ্যে আরজেডি ৭৫, কংগ্রেস ১৯, বামেরা ১৬ আসন পেয়েছে।

    8:0 (IST)

    ডাবল ইঞ্জিন সরকারের হাতেই বিহারের ভার। মঙ্গলবার দিনভর টানটান লড়াইয়ের পর ১২২-এর ম্যাজিক ফিগার পার এনডিএ-র। ক্ষমতা ধরে রাখল এনডিএ জোট। ষষ্ঠবারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হতে চলেছেন নীতীশ কুমার। আরজেডি একক বৃহত্তম দল হলেও বিজেপির কাঁধে চড়েই বিহার ধরে রাখল জে়ডিইউ।

    ভোট আসে যায়। তবে এমন লড়াই সাম্প্রতিক কালে আর কখনও দেখা যায়নি। সকাল আটটা থেকে শুরু। রাত ১১ টা পেরিয়েও চলল ভোটগণনা। ততক্ষণে অবশ্য স্পষ্ট হয়েছে, ১২২ আসনের ম্যাজিক ফিগার পার করে বিহারে ফের সরকার গড়ছে এনডিএ। ডাবল ইঞ্জিন সরকারকে ভোট দিন। ভোট প্রচারে বারবার আবেদন করেছিলেন নরেন্দ্র মোদি।

    সেই ডাবল ইঞ্জিন সরকারের উপরই ভরসা রাখলেন বিহারবাসী। হিন্দি বলয়ে সবচেয়ে বেশি সময়ের জন্য মুখ্যমন্ত্রী থাকার রেকর্ড গড়ার পথে নীতীশ কুমার। যদিও নীতীশ বা এনডিএ - এবারের জয় খুব সহজ হয়নি। একেবারে ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে টক্কর। ভোট পর্ব শুরুর পরই তেজস্বী যাদবের উপর বাজি ধরছিলেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। প্রথম বড় পরীক্ষাতেই নীতীশ কুমার - নরেন্দ্র মোদি --  দুই হেভিওয়েটকে কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে ফেললেন তেজস্বী। একক বৃহত্তম দল হিসাবে উত্থান আরজেডির ৷ ৭৫ আসনে জয় আরজেডির ৷

    ভাবা হয়েছিল, লড়াইটা মূলত হবে আরজেডি বনাম জেডিইউ। ফলাফল কিন্তু বলছে, এনডিএ-কে বৈতরণী পার করানোর পিছনে বিজেপি।

    - ১৯.৩% ভোট পেয়েছে বিজেপি
    - ১৫.৪% ভোট জেডিইউয়ের দখলে

    ভোটের প্রাথমিক তথ্য বিশ্লেষণ করে রাজনৈতিক মহল বলছে, শহর, আধা শহর অঞ্চলে ভোট বাড়িয়েছে বিজেপি। গ্রামাঞ্চলেও অটুট গেরুয়া শিবিরের ভোটব্যাঙ্ক। ভোটপ্রচারে বারবার  এই ভোটারদেরই বার্তা দিতে চেয়েছেন নরেন্দ্র মোদিরা। বিহার জয়ের পর মোদির ট্যুইট, ‘‘বিহার আত্মনির্ভর হয়ে পথ দেখাবে। বিহারের তরুণ প্রজন্ম এনডিএ-র উপর ভরসা করেছেন। বিহারে ১৫ বছর ধরে এনডিএ সরকারের সুশাসন। এর জেরেই ফের ক্ষমতায় এনডিএ সরকার ৷’’

    নরেন্দ্র মোদির ভোট সেনাপতি অমিত শাহের ট্যুইট, ‘‘ফের জাতিবাদের বিরুদ্ধে রায় দিলেন বিহারবাসী। উন্নয়নের জন্য ভোট দিয়েছে বিহার। বিহারে ডাবল ইঞ্জিনের জয়। এই ফলাফল বিকাশ, বিশ্বাস ও উন্নয়নের জয় ৷’’

    ভোটগণনার শেষ পর্বে কারচুপির অভিযোগও তোলে আরজেডি। ভোটগণনায় অস্বাভাবিক দেরি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন মহাজোট শিবির। যদিও নির্বাচন কমিশনের দাবি, করোনা আবহে ভোট গণনায় যতটা সময় লাগার লেগেছে।

    বিহারে ফের ক্ষমতায়  এনডিএ। তবে এবারের ইনিংস গতবারের থেকে আলাদা। অনেক বেশি শক্তপোক্ত হয়ে শুরু করছে গেরুয়া শিবির। বিজেপির শক্তিবৃদ্ধি কী নীতীশের উপর চাপ বাড়াবে? সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছে না রাজনৈতিক মহল।

    0:46 (IST)

    ৬ বছর পরেও একটুও ম্লান হয়নি মোদি ম্যাজিক ৷ ফের আরও এক রাজ্যে উড়তে চলেছে গেরুয়া ধ্বজা ৷ শুধুমাত্র ওয়ান ম্যান শো মোদি ম্যাজিকের ক্যারিশমায় পদ্ম ঝড়ে ভর করে  বৈতরণী পার নীতীশের ৷ বুথ ফেরত সমীক্ষার ফলকে উল্টে ফেলে এনডিএ-এর জয়ের ট্রেন্ড স্পষ্ট হতেই ট্যুইটারে বিহারকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ৷ তিনি লেখেন, আত্মনির্ভর বিহার গঠনে এনডিএ-তে আস্থার জন্য ধন্যবাদ ৷

    নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল ঘোষণার বেশ কয়েক মুহূর্ত আগেই ভোটের ট্রেন্ডে জয়ের নিশ্চয়তা পেতেই ট্যুইটারে বিহারকে শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানাতে শুরু করলেন উচ্ছ্বসিত মোদি ৷ বিহারবাসীর উদ্দেশে তিনি লেখেন, ‘বিহারের যুবসমাজ এনডিএ-তে আস্থা রেখে বুঝিয়ে দিয়েছে যে এই দশক এবার বিহারের এবং আত্মনির্ভর বিহার হল তারই রোডম্যাপ ৷ যুবসমাজের এই আস্থা ও বিশ্বাসই এনডিএ-কে আগের থেকেও অতিরিক্ত পরিশ্রম করতে উৎসাহ যোগাবে ৷’

    শুধু যুব সমাজই নয়, বিহারের মেয়ে-বউদেরও বিশেষভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন মোদি ৷ তাঁর মতে, ‘এবার রেকর্ড সংখ্যক মহিলারা ভোট দান করে দেখিয়ে দিয়েছেন, আত্মনির্ভর বিহার গঠনে তাদের ভূমিকা কতটা গুরুত্বপূর্ণ ৷ আমি আজ সন্তুষ্ট ও প্রসন্ন যে গত কয়েক বছরে এনডিএ তাদের প্রয়োজনীয় আত্মবিশ্বাস জোগাতে পেরেছে ৷ এই আত্মবিশ্বাস বিহারকে এগোতে সাহায্য করবে ৷’

    0:41 (IST)
    0:39 (IST)
    22:43 (IST)

    আমাদের উপর কোনও চাপ নেই ৷ স্বাভাবিকভাবেই গণনা চলছে ৷ সব তথ্য ওয়েবসাইটে দেওয়া রয়েছে ৷ জানাল নির্বাচন কমিশন ৷

    #পটনা: ডাবল ইঞ্জিন সরকারের হাতেই বিহারের ভার। দিনভর টানটান লড়াইয়ের পর ১২২-র ম্যাজিক ফিগার পার এনডিএ-র। ক্ষমতা ধরে রাখল এনডিএ জোট। ষষ্ঠবারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হতে চলেছেন নীতীশ কুমার। আরজেডি একক বৃহত্তম দল হলেও বিজেপির কাঁধে চড়েই বিহার ধরে রাখল জে়ডিইউ।

    ভোট আসে যায়। তবে এমন লড়াই সাম্প্রতিক কালে আর কখনও দেখা যায়নি। সকাল আটটা থেকে শুরু। রাত ১১ টা পেরিয়েও চলল ভোটগণনা। ততক্ষণে অবশ্য স্পষ্ট হয়েছে, ১২২ আসনের ম্যাজিক ফিগার পার করে বিহারে ফের সরকার গড়ছে এনডিএ। ডাবল ইঞ্জিন সরকারকে ভোট দিন। ভোট প্রচারে বারবার আবেদন করেছিলেন নরেন্দ্র মোদি।

    সেই ডাবল ইঞ্জিন সরকারের উপরই ভরসা রাখলেন বিহারবাসী। হিন্দি বলয়ে সবচেয়ে বেশি সময়ের জন্য মুখ্যমন্ত্রী থাকার রেকর্ড গড়ার পথে নীতীশ কুমার। যদিও নীতীশ বা এনডিএ - এবারের জয় খুব সহজ হয়নি। একেবারে ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে টক্কর। ভোট পর্ব শুরুর পরই তেজস্বী যাদবের উপর বাজি ধরছিলেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। প্রথম বড় পরীক্ষাতেই নীতীশ কুমার - নরেন্দ্র মোদি --  দুই হেভিওয়েটকে কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে ফেললেন তেজস্বী। একক বৃহত্তম দল হিসাবে উত্থান আরজেডির ৷ ৭৫ আসনে জয় আরজেডির ৷

    ভাবা হয়েছিল, লড়াইটা মূলত হবে আরজেডি বনাম জেডিইউ। ফলাফল কিন্তু বলছে, এনডিএ-কে বৈতরণী পার করানোর পিছনে বিজেপি।

    - ১৯.৩% ভোট পেয়েছে বিজেপি - ১৫.৪% ভোট জেডিইউয়ের দখলে

    ভোটের প্রাথমিক তথ্য বিশ্লেষণ করে রাজনৈতিক মহল বলছে, শহর, আধা শহর অঞ্চলে ভোট বাড়িয়েছে বিজেপি। গ্রামাঞ্চলেও অটুট গেরুয়া শিবিরের ভোটব্যাঙ্ক। ভোটপ্রচারে বারবার  এই ভোটারদেরই বার্তা দিতে চেয়েছেন নরেন্দ্র মোদিরা। বিহার জয়ের পর মোদির ট্যুইট, ‘‘বিহার আত্মনির্ভর হয়ে পথ দেখাবে। বিহারের তরুণ প্রজন্ম এনডিএ-র উপর ভরসা করেছেন। বিহারে ১৫ বছর ধরে এনডিএ সরকারের সুশাসন। এর জেরেই ফের ক্ষমতায় এনডিএ সরকার ৷’’

    নরেন্দ্র মোদির ভোট সেনাপতি অমিত শাহের ট্যুইট, ‘‘ফের জাতিবাদের বিরুদ্ধে রায় দিলেন বিহারবাসী। উন্নয়নের জন্য ভোট দিয়েছে বিহার। বিহারে ডাবল ইঞ্জিনের জয়। এই ফলাফল বিকাশ, বিশ্বাস ও উন্নয়নের জয় ৷’’

    ভোটগণনার শেষ পর্বে কারচুপির অভিযোগও তোলে আরজেডি। ভোটগণনায় অস্বাভাবিক দেরি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন মহাজোট শিবির। যদিও নির্বাচন কমিশনের দাবি, করোনা আবহে ভোট গণনায় যতটা সময় লাগার লেগেছে।

    বিহারে ফের ক্ষমতায়  এনডিএ। তবে এবারের ইনিংস গতবারের থেকে আলাদা। অনেক বেশি শক্তপোক্ত হয়ে শুরু করছে গেরুয়া শিবির। বিজেপির শক্তিবৃদ্ধি কী নীতীশের উপর চাপ বাড়াবে? সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছে না রাজনৈতিক মহল।