corona virus btn
corona virus btn
Loading

ঘরে মেয়ে পাঠাও, টর্চের আলোয় সঙ্কেত পাঠাতেন আসারাম

ঘরে মেয়ে পাঠাও, টর্চের আলোয় সঙ্কেত পাঠাতেন আসারাম
Photo: facebook

ব্রহ্মজ্ঞানীদের যৌন সম্পর্ক স্থাপনে পাপ হয় না, এমনটাই মনে করতেন আসারাম বাপু ৷ সে কথা বলেওছিলেন তাঁর ঘনিষ্ঠ শিষ্য রাহুল কে সচরকে ৷ পরে রাহুলই বাপুর বিরুদ্ধে আদালতে সাক্ষ্য দেয় ৷

  • Share this:

#যোধপুর: ব্রহ্মজ্ঞানীদের যৌন সম্পর্ক স্থাপনে পাপ হয় না, এমনটাই মনে করতেন আসারাম বাপু ৷ সে কথা বলেওছিলেন তাঁর ঘনিষ্ঠ শিষ্য রাহুল কে সচরকে ৷ পরে রাহুলই বাপুর বিরুদ্ধে আদালতে সাক্ষ্য দেয় ৷ ১৬ বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণের ঘটনায় তাঁকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা শুনিয়েছে যোধপুর আদালত ৷ এই মামলায় গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষ্য ছিল রাহুল সচর ৷ তিনি জানান, যৌন উদ্দীপনা বৃদ্ধি করতে নিয়ম করে ওষুধ খেতেন স্বঘোষিত ‘গডম্যান’ ৷ প্রতিদিন মাদকও সেবন করতেন ৷ আশ্রমে মাদকের সাঙ্কেতিক নাম ছিল ‘পাঞ্চড বুটি’ ৷

আরও পড়ুন: আসারাম বাপুর সম্পত্তির পরিমাণ জানলে চোখ কপালে উঠবে আপনারও

আশ্রমের মধ্যে নিজের ঘর বা ‘কুটিয়া’য় থাকতেন আসারাম ৷ সব সময় তাঁর পাশে থাকতেন তিন সঙ্গিনী ৷ দিনেরবেলা আশ্রমের মধ্যে এই সঙ্গিনীদের নিয়ে ঘুরে বেড়াতেন বাপু ৷ পছন্দের মেয়েকে নির্বাচন করে নিতেন তখনই ৷ এরপর রাতের বেলা কুটিয়া থেকে টর্চের আলোয় সঙ্কেত পাাঠাতেন ওই তিন সঙ্গিনীর কাছে ৷ পূর্ব-নির্বাচিত সেই মেয়েকে সেই সময় আসারামের কাছে পাঠিয়ে দিত তাঁরাই ৷ একদিন আসারামকে আপত্তিজনক অবস্থায় দেখে ফেলেন রাহুল ৷ ধর্মগুরুকে এই রূপে মেনে নিতে পারেননি তিনি ৷ চিঠি লেখেন আসারামকে ৷ কেন তিনি মেয়েদের সঙ্গে এই কাজ করছেন, তা জানতে চান চিঠিতে ৷ কিন্তু চিঠির কোনও উত্তর পাননি ৷ আরও একটি চিঠি লেখেন কিছুদিন পর ৷ তবু কোনও উত্তর না আসায় বাপুকে একদিন সরাসরি প্রশ্ন করে বসেন সচর ৷ সেই সময় আসারাম তাঁকে জানান, ব্রহ্মজ্ঞানী মানুষদের কোনও পাপ হয় না ৷ এরপরেই তাঁকে রক্ষী দিয়ে বের করে দেওয়া হয় আশ্রম থেকে ৷

আরও পড়ুন: নাবালিকা ধর্ষণ মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড আসারামের

আদালতের কাছে রাহুল জানান, আশ্রমে অনেক ধরণের বেআইনি কাজ চলত ৷ এমনকী যাঁরা গর্ভবতী হয়ে যেতেন, তাঁদের গর্ভপাতের ব্যবস্থাও করতেন আসারামের তিন সঙ্গিনী ৷ আদালতে সাক্ষী দেওয়ার সময় একাধিকবার আসারামের শিষ্যদের হাতে আক্রান্ত হতে হয়েছে রাহুলকে ৷ তবে শেষ পর্যন্ত প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন তিনি ৷

First published: April 27, 2018, 11:47 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर