Home /News /national /

Ganja Smuggling: ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে গাঁজা পাচার; বাবা-ছেলে সহ গ্রেফতার আরও ৫!

Ganja Smuggling: ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে গাঁজা পাচার; বাবা-ছেলে সহ গ্রেফতার আরও ৫!

Representative Image

Representative Image

5 more arrested in ganja smuggling case through e-commerce platform: এরা ভাইজাগ থেকে জনপ্রিয় ই-কমার্স সংস্থার প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে মধ্যপ্রদেশে গাঁজা ডেলিভারি করত।

  • Share this:

#বিশাখাপত্তনম: জনপ্রিয় ই-কমার্স সংস্থার প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে গাঁজা বিক্রির অপরাধে কিছুদিন আগেই পুলিশ কয়েক জনকে গ্রেফতার করেছিল। এবার সেই র‍্যাকেটের আরও পাঁচজনকে পুলিশ গ্রেফতার করল বিশাখাপত্তনামের (Visakhapatnam) ভাইজাগ (Vizag) থকে। এই পাঁচজন জনপ্রিয় ই-কমার্স সংস্থার প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে চালিয়ে যাচ্ছিল গাঁজা বিক্রি।

এই পাঁচজন অপরাধীর মধ্যে এক বাবা ও তার ছেলেও জড়িত। জনপ্রিয় ই-কমার্স সংস্থার প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে গাঁজা বিক্রির অপরাধে পুলিশ ভাইজাগ থেকে যে পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে তারা হল সিএইচ শ্রীনিবাস রাও (Ch Srinivasa Rao), জে কুমারস্বামী (J Kumaraswamy), বি কৃষ্ণম রাজু (B Krishnam Raju), সি এইচ ভেঙ্কটেশ্বর রাও (Ch Venkateswara Rao), সি এইচ মোহন রাজু (Ch Mohan Raju) ওরফে রাখি (Rakhi)। এরা ভাইজাগ থেকে জনপ্রিয় ই-কমার্স সংস্থার প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে মধ্যপ্রদেশে গাঁজা ডেলিভারি করত।

আরও পড়ুন-অনলাইনে ড্রাগ বিক্রির মামলায় অ্যামাজন কর্তাদের গ্রেফতারের দাবি ব্যবসায়ী সংগঠনের !

অনলাইনে গাঁজা বিক্রির এই র‍্যাকেটকে প্রথম সামনে এনেছিল মধ্যপ্রদেশের ভিন্ড পুলিশ। তারা প্রথমে তিনজন যুবককে গ্রেফতার করে ই-কমার্স সংস্থার প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে গাঁজা বিক্রির অপরাধে। পুলিশ তাদের থেকে প্রায় ২০ কিলো শুকনো গাঁজা উদ্ধার করেছিল। সেই সূত্র ধরেই সামনে আসে ভাইজাগের এই পাঁচজন। ভাইজাগের স্পেশ্যাল এনফোর্সমেন্ট ব্যুরোর জয়েন্ট ডিরেক্টর এস সতীশ কুমার (S Satish Kumar) জানিয়েছেন যে, সঠিক সূত্র ও তথ্য অনুযায়ী প্রথমে সিএইচ শ্রীনিবাস রাওকে গ্রেফতার করা হয় ২১ নভেম্বর। তার কাছ থেকে প্রায় ৪৮ কিলো শুকনো গাঁজা উদ্ধার করা হয়। এই শুকনো গাঁজা মজুত করে রাখা হয়েছিল কাঞ্চরপালেম শহরের এক ভাড়া বাড়ি থেকে। সেই গাঁজা বিভিন্ন উপায়ে বাক্সবন্দি করে রাখা হয়েছিল। ইলেকট্রনিক মেশিনের বিভিন্ন বক্সে সেই শুকনো গাঁজা ভরে, সেটি ভালো করে বাক্সবন্দি করে রাখা হয়েছিল।

আরও পড়ুন- ডিজের আওয়াজে হার্ট অ্যাটাকে মারা গেল ৬৩ মুরগি; ফার্ম মালিকের এফআইআর দায়ের!

মধ্যপ্রদেশের সুরজ পাওয়াইয়া (Suraj Pawaiya) এবং মুকুল জয়সওয়াল (Mukul Jaiswal) ই-কমার্স সংস্থা অ্যামাজন তাদের ভেন্ডরের রেজিস্ট্রেশন করিয়েছিল অনলাইনে গাঁজা ডেলিভারি করার জন্য। তাদের সেই ফার্মের নাম হল বাবু টেক্স (Babu Tex)। সিএইচ শ্রীনিবাস রাও তাদের সূত্রের মাধ্যমে ভাইজাগ থেকে মধ্যপ্রদেশ এবং রাজস্থানে সেই শুকনো গাঁজা ডেলিভারি করত জনপ্রিয় ই-কমার্স সংস্থার প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে। জনপ্রিয় ই-কমার্স সংস্থার প্ল্যাটফর্মে সেই শুকনো গাঁজা দেখানো হয় স্টেভিয়া পাতা (Stevia Leaves) হিসাবে। ভাইজাগের স্পেশ্যাল এনফোর্সমেন্ট ব্যুরোর জয়েন্ট ডিরেক্টর এস সতীশ কুমার জানিয়েছেন যে, বিগত আট মাস ধরে সুরজ পাওয়াইয়া এবং মুকুল জয়সওয়াল জনপ্রিয় ই-কমার্স সংস্থার প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ভাইজাগ থেকে মধ্যপ্রদেশে প্রায় ৬০০ থেকে ৭০০ কেজি শুকনো গাঁজা সরবরাহ করেছে।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

Tags: Amazon, Drugs Case

পরবর্তী খবর