Home /News /nadia /
Nadia News: 'নদিয়া' থেকে 'রানাঘাট', মুখ্যমন্ত্রীর 'নতুন জেলা' ঘোষণায় যা বলছেন এলাকাবাসী

Nadia News: 'নদিয়া' থেকে 'রানাঘাট', মুখ্যমন্ত্রীর 'নতুন জেলা' ঘোষণায় যা বলছেন এলাকাবাসী

'নদিয়া' থেকে 'রানাঘাট'

'নদিয়া' থেকে 'রানাঘাট'

Nadia News: নদিয়া জেলা থেকে বিভক্ত হয়ে রানাঘাট নতুন জেলা হিসেবে ঘোষণার প্রস্তাবের পর থেকেই একাংশ জেলা বাসীর মধ্যে ক্ষোভ প্রকাশ।

  • Share this:

    নদিয়া: রাজ্যের আর কয়েকটি জেলার মতো-নদিয়া জেলাকেও দু ভাগ করে নতুন রানাঘাট জেলা তৈরির ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। শোনার পর থেকেই বিভিন্ন মানুষের মধ্যে বিভিন্ন রকম আবেগ তৈরি হয়েছে। 'নদিয়া' শব্দ পুরোপুরি বাদ দিয়ে রানাঘাট রাখা অনেকেই মেনে নিতে পারছেন না (Nadia News)।

    জেলা ভাগের ক্ষেত্রে প্রশাসনিক কাজকর্ম এবং সাধারণ মানুষের সুবিধার কথা সকলেই স্বীকার করছেন। একইসঙ্গে তাঁরা বলছেন, নতুন জেলা গঠিত হলে মানুষের সুবিধাই হবে। তার কারণ, কল্যাণী এবং হরিণঘাটা থেকে যেকোনও কাজের জন্য মানুষকে কৃষ্ণনগর ছুটে যেতে হত। সে ক্ষেত্রে নতুন রানাঘাট জেলা হওয়ায় তাদের এখন আর বেশি দূর যেতে হবে না। তাই নতুন জেলাকে তারা সমর্থন করছেন (Nadia News)।

    আরও পড়ুন : গান্ধি মূর্তি পাদদেশে অবস্থান বিক্ষোভকারী চাকরি প্রার্থীদের পাশে বাম বুদ্ধিজীবীরা

    কিন্তু নতুন জেলার নামকরণ নিয়ে বাসিন্দাদের অনেকেই সহমত পোষণ করছেন না। তার কারণ, নদিয়া জেলা শব্দের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে বহু গুণী মানুষের স্মৃতি। বিশেষ করে চৈতন্যদেবের নাম নদিয়া জেলার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। শান্তিপুরের অদ্বৈত আচার্য-সহ শান্তিপুরের বিভিন্ন রকম বিগ্রহ বাড়ির সঙ্গে নদিয়া নামটি বিশেষভাবে আবেগের সঙ্গে জড়িত রয়েছে। শান্তিপুরের গৃহ শিক্ষক কাশীনাথ রায় বলেছেন,'নদিয়া নামটি না থাকায় নতুন জেলার নাম রানাঘাটকে আমি মেনে নিতে পারছি না। তার কারণ, নদিয়া  (Nadia News) নামের সঙ্গে আমাদের আবেগ জড়িত রয়েছে। আমি শান্তিপুরের মানুষ। শান্তিপুরের নামের সঙ্গে চৈতন্যদেব, অদ্বৈত আচার্যের নাম জড়িত রয়েছে। এখানে এখন থেকে আমরা আর নদিয়া নাম ব্যবহার করতে পারব না, এটা হয় না। তাই আমি চাই, রানাঘাট নামের পরিবর্তন হয়ে নদিয়া দক্ষিণ রাখা হোক।'

    তৃণমূল কংগ্রেস নেতা সনৎ চক্রবর্তী মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণাকে পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছেন। তার বক্তব্য,' রানাঘাট জেলা ঘোষণা হবে, তা যেন আগে থেকেই বোঝা যাচ্ছিল। তার কারণ এর আগেই রানাঘাট পুলিশ জেলা করা হয়েছিল। আমাদের দলের ক্ষেত্রেও রানাঘাট সাংগঠনিক জেলা করা হয়েছে। নতুন রানাঘাট জেলা হওয়ায় এবার সাধারণ মানুষের প্রশাসনিক কাজ কর্মের ক্ষেত্রে অনেক সুবিধা হবে। মানুষকে আর কৃষ্ণনগর ছুটে যেতে হবে না।'

    আরও পড়ুন : ED আধিকারিকদের চক্ষু চড়ক গাছ, অর্পিতার রথতলার ফ্ল্যাটে এত খাট কেন? কী হয়!

    যদিও নতুন জেলার নাম শুধুমাত্র রানাঘাট, কিছুটা অবাক হয়ে গেলেন পেশায় পুরোহিত গোবিন্দ মুখোপাধ্যায়। বললেন,' তাহলে আমরা আর নদিয়া বলতে পারব না? এটা কেমন ব্যাপার হল? আমি মেনে নিতে পারছি না।' শুধু গোবিন্দ মুখোপাধ্যায়ই নয়, রানাঘাট নামের সঙ্গে নদিয়া শব্দটি জুড়ে না থাকাটা তাদের কাছে বিস্ময়কর বলেই মনে হচ্ছে।

    নতুন জেলা গঠন হলে জেলাশাসকের অফিস সহ সমস্ত প্রশাসনিক আধিকারিক নিয়োগ এবং জেলা শাসক নিয়োগসহ পরিকাঠামো তৈরি করতে যে বিশাল পরিমাণ খরচ হবে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিজেপির নদিয়া দক্ষিণ সংগঠনিক জেলার সম্পাদক ডঃ সোমনাথ কর। তিনি বলছেন,' মুখ্যমন্ত্রী বলছেন কোষাগারে টাকা নেই, নতুন জেলা গঠন হলে জেলাশাসকের অফিস সহ সমস্ত প্রশাসনিক আধিকারিককে নতুন করে নিয়োগ করা এবং পরিকাঠামো তৈরি করার জন্য যে বিপুল পরিমাণ খরচ হবে, এটা কী করে মিটবে, তা নিয়ে তো প্রশ্ন থেকেই যায়। তাই নতুন জেলা তৈরি হওয়াকে সাধারণ মানুষের সুবিধার কথা ভেবে আমি সমর্থন করলেও এর নামকরণ নিয়ে আমার প্রশ্ন রয়েছে। রানাঘাট নয়, নদিয়া দক্ষিণ জেলা রাখলে মানুষের আবেগকে আঘাত করা হত না। নদিয়ার গর্ব চৈতন্যদেব, অদ্বৈত আচার্য মহাকবি, কৃত্তিবাস। শান্তিপুরের সঙ্গে নাম জড়িত রয়েছে করুণানিধানের। শান্তিপুরের রাস, ফুলিয়ার তাঁতের শাড়ি, কল্যাণী ঘোষপাড়ার সতীমায়ের মেলা, কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়, বাদকুল্লার দুর্গাপুজো,এ সবই নদিয়া নামের সঙ্গেই জুড়ে রয়েছে। অনেকেরই মতে নদিয়া জেলার মধ্যে জুড়ে থাকা এইসব ঐতিহ্য নতুন রানাঘাট জেলার নামের সঙ্গে খাপ খায় না। নদিয়াবাসী বলে যে গর্ব অনুভব করা যায়, রানাঘাটের নামকরণে তার বিচ্যুতি ঘটে। তাই রানাঘাট নামকরণকে কোনওভাবেই সমর্থন করা যাচ্ছে না।

    দেশভাগের পর উদ্বাস্তু হিসাবে বহু মানুষ নদিয়া জেলা হিসেবেই ঠাঁই নিয়েছিলেন। রানাঘাট জেলা হলে সবই যেন ভুলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হয়। এর আগেও জেলার এসপি অফিস নিয়ে যাওয়া হয়েছে কল্যাণীতে, তাতে শান্তিপুর রানাঘাট মধ্যবর্তী এলাকার মানুষের ভোগান্তি বেড়েছে আরও। সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে, ভয়ংকর পরিস্থিতি হতে চলেছে বলে মনে করছেন জেলার একাংশ।

    প্রতিবেদন : মৈনাক দেবনাথ
    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published:

    Tags: Nadia news

    পরবর্তী খবর