Home /News /nadia /
Nadia: ভয়ঙ্কর কাণ্ড! হাসপাতালের বেড ভেঙে পড়ে গেল মা ও সদ্যোজাত!

Nadia: ভয়ঙ্কর কাণ্ড! হাসপাতালের বেড ভেঙে পড়ে গেল মা ও সদ্যোজাত!

title=

জেলার সরকারি হাসপাতাল গুলিতে প্রতিনিয়ত একাধিক প্রসূতি মহিলারা ভর্তি হন। হাসপাতাল গুলির পরিকাঠামো উন্নত করার জন্য সরকার থেকে একাধিক পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে ইতিমধ্যেই।

  • Share this:

    #নদিয়া: জেলার সরকারি হাসপাতাল গুলিতে প্রতিনিয়ত একাধিক প্রসূতি মহিলারা ভর্তি হন। হাসপাতাল গুলির পরিকাঠামো উন্নত করার জন্য সরকার থেকে একাধিক পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে ইতিমধ্যেই। এরপরেও হাসপাতালের বেড ভেঙে সদ্যোজাত শিশু ও তার মায়ের পড়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠল রানাঘাটে। জানা যায় রানাঘাট শরৎপল্লি এলাকার বাসিন্দা দুর্লভ মিত্র গত বৃহস্পতিবার দুপুরে তার স্ত্রী শ্রীমতি সুজাতা মিত্রকে মেটার্নিটি ওয়ার্ডে ভর্তি করেন। রাত ১ টা নাগাদ তার স্ত্রী একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। প্রসব হওয়ার পরে সদ্যোজাত শিশু ও তার মাকে বেডে স্থানান্তরিত করা হয়। জানা যায় ওই বেডে একসাথে দুজন প্রসূতি মহিলাকে সন্তান নিয়ে থাকতে দেওয়া হয়। শুক্রবার সকালে সুজাতা দেবীর সাথে থাকা ওই মহিলাকে ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়। এরপর সুজাতা দেবী তার সদ্যোজাত সন্তানকে নিয়ে একাই থাকেন সেই বেডে।

    শনিবার আনুমানিক সকাল ৮:৩০ নাগাদ দুর্লভ বাবুর ফোন আসে হাসপাতাল থেকে। এবং তাকে জানানো হয় যে তার স্ত্রী সদ্যজাত কন্যা সন্তানকে নিয়ে হাসপাতালে বেড ভেঙে পড়ে গিয়েছে এবং কোমরে আঘাত পেয়েছেন। যদিও তার সন্তানের কোনও আঘাত লাগেনি বলেই জানান তিনি। এরপরেই দুর্লভ বাবু হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্সদের সাথে দেখা করতে যায়।

    আরও পড়ুনঃ অনেক হয়েছে সতর্ক! এবার ফাইন করতে নামলেন পুরসভার আধিকারিকেরা

    অভিযোগ, বিষয়টি নিয়ে বলতে গেলে তাদের সাথে রীতিমতো দুর্ব্যবহার করা হয়, এমনকি তিনি জানান কর্তব্যরত হাসপাতালের আয়ারা তাদের পুলিশের ভয় পর্যন্ত দেখান। তিনি আরও জানান \"হাসপাতালের বেড ভেঙে যাওয়ার পরে যখন অভিযোগ করতে যাই, তারা বলেন সেটি তাদের দেখার দায়িত্ব নয়, পাবলিকের দেখার দায়িত্ব।\"

    আরও পড়ুনঃ ২০টি ফলন্ত গাছ কেটে ফেলা হল পর পর! নির্বিকার বন দফতর

    যদিও হাসপাতালে কর্তৃপক্ষের কাছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন, বর্তমানে হাসপাতালের বেডের তুলনায় রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি। সেই কারণে কোনও ভাবে হয়তো বেড ভেঙে দুর্ঘটনাটি ঘটে গেছে। তবে মা ও বাচ্চা দুজনেই ভালো আছে। ভবিষ্যতে যাতে এই ধরনের দুর্ঘটনা না থাকে সেই দিকে নজর রাখা হবে।

    Mainak Debnath
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Nadia, Ranaghat

    পরবর্তী খবর