• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • হাতিকে উত্যক্ত করতে গিয়ে পাল্টা হামলায় আহত শালবনীর যুবক

হাতিকে উত্যক্ত করতে গিয়ে পাল্টা হামলায় আহত শালবনীর যুবক

photo source collected

photo source collected

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ হাতির একটি পাল রঞ্জা বিটের রঞ্জার জঙ্গল সংলগ্ন রাজ্য সড়ক (গোয়ালতোড়-পিড়াকাটা) পারাপার করছিল। সেই সময় কিছু যুবক বিভিন্নভাবে হাতির পাল'কে উত্ত্যক্ত করছিল!

  • Share this:

    #শালবনী: হাতির হামলায় আহত ও নিহত হওয়ার ঘটনা যেমন ঘটে চলেছে, ঠিক তেমনই হাতিকে উত্ত্যক্ত করার অভিযোগও বারবার উঠে আসছে! বিশেষত বনদপ্তর ও পরিবেশ কর্মীরা বারবার সাধারণ মানুষকে সচেতন করছেন, মত্ত মাতঙ্গদের থেকে সচেতন দূরত্ব বজায় রাখার জন্য। একইসাথে হাতি-কে উত্যক্ত বা বিরক্ত করাও যে বন্যপ্রাণী আইন অনুযায়ী অপরাধ, তাও প্রচার চালানো হচ্ছে। তা সত্ত্বেও গ্রামবাসীরা একই ভুল বারবার করছেন! তার খেসারতও দিতে হচ্ছে অনেক সময়। সোমবার সন্ধ্যা নাগাদ পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার পিড়াকাটা রেঞ্জের রঞ্জা বিটে ঘটে গেল তেমনই এক দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা! শালবনী থানার রঞ্জা সংলগ্ন বেনাগেড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা রবিলাল মাণ্ডি নামে বছর ৩২ এর এক যুবক আহত হল হাতির হামলায়। তাকে উদ্ধার করে তড়িঘড়ি মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়। আপাতত তার অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানা গেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ হাতির একটি পাল রঞ্জা বিটের রঞ্জার জঙ্গল সংলগ্ন রাজ্য সড়ক (গোয়ালতোড়-পিড়াকাটা) পারাপার করছিল। সেই সময় কিছু যুবক বিভিন্নভাবে হাতির পাল'কে উত্ত্যক্ত করছিল! হঠাৎই একটি হাতি তেড়ে যায় উত্তেজিত জনতার দিকে। অনেকেই পালিয়ে গেলেও রবিলাল নামে ওই যুবক দাঁতালের সামনে পড়ে যায়! তাকে শুঁড়ে পেঁচিয়ে আছাড় দেয় বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। এরপরই সমবেত লোকজন একসাথে সকলে মিলে ওই হাতিটিকে তাড়া করলে, হাতিটি জঙ্গলে প্রবেশ করে। বরাত জোরে প্রাণে বেঁচে যায় ওই যুবক। খবর দেওয়া হয় বনদপ্তরে। ওই যুবককে উদ্ধার করে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়। ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পিড়াকাটা পুলিশ পোস্টের পুলিশ-ও। বন দফতরের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, "হাতিকে উত্যক্ত করা বা হাতির পালের কাছাকাছি যাওয়া থেকে সাধারণ মানুষকে বিরত থাকতে হবে। বারবার এই বিষয়ে প্রচার করা হচ্ছে। এদিন ওই যুবক আহত হয়েছেন, প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলেও খবর পেয়েছি। তবে, বড় বিপদ-ও হয়ে যেতে পারত!"

    Partha Mukherjee

    Published by:Piya Banerjee
    First published: