Home /News /life-style /
Parenting Tips: সন্তান সেক্সটিংয়ে আসক্ত! এই পরিস্থিতি সামলাবেন কী ভাবে ?

Parenting Tips: সন্তান সেক্সটিংয়ে আসক্ত! এই পরিস্থিতি সামলাবেন কী ভাবে ?

Parenting Tips: কী করছে, কোথায় যাচ্ছে- এ সবই নজর রাখা উচিত৷ যাতে কোনও বিপদে না-পড়ে

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: দায়িত্ব-সহকারে সন্তানকে বড় করা চাট্টিখানি কথা নয় (Parenting Tips)! বয়সের প্রতিটা ধাপে তাঁদের উপর নজরদারি প্রয়োজন৷ কী করছে, কোথায় যাচ্ছে- এ সবই নজর রাখা উচিত৷ যাতে কোনও বিপদে না-পড়ে৷ আর আজকাল সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে তো কথাই নেই!

    যুগ বদলালেও বেশির ভাগ ভারতীয় পরিবারে যৌনতা নিয়ে আলোচনা আজও একটা ট্যাবু৷ বিশেষ করে, পরিবারের মা-বাবারা (Parenting Tips) সন্তানদের সঙ্গে এই বিষয়ে কথা বলতে একেবারেই স্বচ্ছন্দ নন৷ ফলে এই বিষয়টায় ছেলে-মেয়েদের একেবারেই পরামর্শ দিতে পারেন না অভিভাবকেরা (Parents)৷ আর যদি সন্তানের যৌনতার বিষয়ে আগ্রহ অথবা সেক্সটিং (Teen-Sexting) মা-বাবার কাছে ধরা পড়ে যায়, সে ক্ষেত্রে স্বাভাবিক ভাবেই অভিভাবকেরা প্রথমে খানিক হতবাক হয়ে যান, তার পরে সন্তানকে কঠোর ভাবে শাসন করেন৷ কিন্তু সেটা কি ঠিক?

    সেক্সটিং কী?

    সেক্সটিং (Sexting) আসলে সেক্স-টেক্সটিং৷ সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে ইদানীং এর বাড়-বাড়ন্ত৷ ফলে নতুন প্রজন্ম মজেছে সেক্সটিংয়ে৷ আসলে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটের বিভিন্ন মেসেজিং অ্যাপের মাধ্যমে নিজের সঙ্গী অথবা প্রেমিক-প্রেমিকাকে যৌনতা বিষয়ক মেসেজ, হট ছবি ও ভিডিও পাঠানো হয়৷

    এ বার বয়ঃসন্ধির (Teen-Sexting) দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে থাকা অথবা বয়ঃসন্ধি পেরোনো বহু ছাত্র-ছাত্রীই তার স্কুলের সহপাঠী অথবা বন্ধুকে এই ধরনের ছবি অথবা ভিডিও পাঠিয়ে থাকে৷ এই রকম পরিস্থিতিতে তৈরি হলে যে কোনও মা-বাবাই অত্যন্ত ঘাবড়ে যান এবং অস্বস্তিতে পড়েন৷ তবে এই ধরনের পরিস্থিতি অত্যন্ত বুদ্ধির সঙ্গে মাথা ঠান্ডা রেখে সুন্দর ভাবে হ্যান্ডল করতে হবে৷ যাতে সন্তানের সঙ্গে মা-বাবার সম্পর্ক না-খারাপ হয়ে যায়৷ এই পরিস্থিতি কী ভাবে বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে হ্যান্ডল করা উচিত, সেই বিষয়ে রইল কিছু টিপস৷

    ঠান্ডা মাথায়:

    প্রত্যেক অভিভাবকই নিজের সন্তানকে স্মার্ট বলে মনে করেন৷ তাঁরা ভাবেন যে, তাঁদের সন্তানরা এমন কোনও কাজ করবে না৷ ফলে অনেক সময় ছেলে-মেয়ে সেক্সটিং (Teen-Sexting) করতে গিয়ে ধরা পড়লে অনেক মা-বাবাই বিষয়টিকে পাত্তা দেন না৷ এটা কিন্তু একেবারেই ঠিক নয়৷ সন্তান ধরা পড়লে তাই প্রথমে মাথা ঠান্ডা রাখতে হবে এবং বিষয়টিকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করতে হবে৷ আর একটা বিষয়, সন্তানের উপর না-চেঁচামেচি করে বরং তার সঙ্গে কথা বলতে হবে৷

    মুখোমুখি বসে আলোচনা:

    সন্তানের সেক্সটিং (Sexting) ধরা পড়েছে, আর তাতে হয়তো আপনি রেগে প্রায় জ্ঞানশূন্য হয়ে গেলেন৷ তখন সেই মুহূর্তে একদমই কোনও রকম পদক্ষেপ করা ঠিক নেই৷ তাই দরকার হলে এক দিন সময় নিয়ে আগে নিজের মাথা ঠান্ডা করতে হবে৷ তার পর সন্তানের মুখোমুখি বসে সরাসরি কথা বলা উচিত৷ অনেক ক্ষেত্রেই ছেলে-মেয়েরা হয়তো অভিযোগ করবে যে, কেন মা-বাবারা তাদের গোপনীয়তায় হস্তক্ষেপ করছে৷ তা সত্ত্বেও এই সংক্রান্ত বিপদ-আপদের ব্যাপারে সন্তানকে জানাতে হবে৷

    গণ্ডি এঁকে দেওয়া:

    কিছু বিষয়ে সন্তানের জন্য একটা অদৃশ্য গণ্ডি এঁকে দিতে হবে৷ যেমন- ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম আপনার সন্তান কতটা ব্যবহার করতে পারবে, অথবা দিনে কত ক্ষণ ব্যবহার করতে পারবে, সেই বিষয়ে একটা মাপকাঠি বানিয়ে দিতে পারেন৷ প্রয়োজন হলে সন্তানের পাঠানো টেক্সটের উপরেও নজরদারি চালাতে হবে৷ আর ছেলে-মেয়ে যদি কারও সঙ্গে ডেটিং করে, সে ক্ষেত্রেও কিছু নিয়ম বেঁধে দেওয়া উচিত৷ আর সন্তানকে জানিয়ে দিতে হবে যে, নিয়ম ভাঙলে কপালে কেমন ধরনের শাস্তি জুটবে৷

    আইনি সাহায্য:

    হয়তো জানতে পারলেন যে, আপনার সন্তান কোনও ফাঁদে পড়েছে৷ তাঁকে নগ্ন ছবি অথবা হট ছবি পাঠানোর জন্য ব্ল্যাকমেল করা হচ্ছে৷ এই মুহূর্তে নিজের সন্তানের পাশে থাকতে হবে এবং দেরি না-করে আইনি সাহায্য চাইতে হবে৷

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: Parenting, Parenting Tips

    পরবর্তী খবর