Home /News /life-style /
Make up tips : মেক আপের সময় স্কিনটোনের সঙ্গে রংমিলান্তি মনে রাখুন, বিরত থাকুন এই ভুলগুলো থেকে

Make up tips : মেক আপের সময় স্কিনটোনের সঙ্গে রংমিলান্তি মনে রাখুন, বিরত থাকুন এই ভুলগুলো থেকে

নিখুঁতভাবে মেক আপ করা একটি দক্ষতার কাজ

নিখুঁতভাবে মেক আপ করা একটি দক্ষতার কাজ

কোন স্কিন টোনে কী ব্যবহার করতে হবে এবং কতটা প্রয়োগ করতে হবে, মেক আপের এই আসল কৌশল রপ্ত করতে পারলেই সব সময়ই হয়ে ওঠা যায় রূপবতী।

  • Share this:

#কলকাতা: স্বাভাবিক গায়ের রঙকে উজ্জ্বল করতে নয়, বরং নিজের স্কিন টোন অনুযায়ী মেক আপেই আজকাল গুরুত্ব দেওয়া হয়। নিখুঁতভাবে মেক আপ করা (Make Up Tips) সত্যি একটি দক্ষতার কাজ যা শুধুমাত্র সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অভ্যাসের মাধ্যমে করা যায়। কোন স্কিন টোনে কী ব্যবহার করতে হবে এবং কতটা প্রয়োগ করতে হবে, মেক আপের এই আসল কৌশল রপ্ত করতে পারলেই সব সময়ই হয়ে ওঠা যায় রূপবতী।

. অনেক সময় ত্বকে মেকআপ শুকিয়ে গেলে ত্বক ড্রাই হয়ে যায়। তাই মেকআপ শুরুর আগে ত্বকে ভাল করে ময়শ্চারাইজার লাগাতে হবে।

. প্রাইমারের ব্যবহার ভুললে চলবে না। আমাদের ত্বক অনুযায়ী ম্যাট অথবা পোর-ফিলিং প্রাইমার ব্যবহার করতে হবে।

. চোখ ও ঠোঁট দুটোই বেশি হাইলাইট করলে কখনও কখনও দেখতে ভাল লাগে না, তাই যদি আমরা গাঢ় লাল রঙের লিপস্টিক পরি, তাহলে চোখ স্বাভাবিক রাখতে হবে এবং যদি স্মোকি আই মেকআপ করি তাহলে লিপস্টিকের শেড ন্যুড বেছে নেওয়াই শ্রেয়।

আরও পড়ুন : ঘন কালো লম্বা মজবুত চুল চাই? আজই ডায়েটে যোগ করুন এই খাবারগুলি

. এমন ব্র‍্যান্ডের মেক আপ প্রোডাক্ট বাছতে হবে যেখানে বিভিন্ন শেডের মেক আপ সামগ্রী রয়েছে। ফলে আমরা নিজেদের ত্বকের রঙ অনুযায়ী সহজেই মেক আপ বেছে নিতে পারব।

. চোখ হাইলাইট করতে আইশ্যাডো প্রাইমার ব্যবহার করা ভালো । অনেক সময় বেশি উজ্জ্বল রঙের আইশ্যাডো বাছতে অসুবিধা হয় । তাই উজ্বল লাল এবং হলুদ রঙের আইশ্যাডো ব্যবহার করলে প্রথমে আইশ্যাডো প্রাইমার লাগিয়ে নেওয়া উচিত।

. ম্যাজেন্ডা অথবা গোল্ডেন পিঙ্ক ব্লাশার এই স্কিনটোনের উপযুক্ত।

. তবে রুপোলি এবং গোলাপি আভার হাইলাইটার নজর কাড়লেও এইসব রঙের হাইলাইটারে ত্বকের স্বাভাবিক রঙ চাপা পড়ে যায় ৷ সেটা সাজবার সময় মনে রাখতে হবে ৷

আরও পড়ুন : গোবরজলের ছড়া দিয়ে মাটির উঠোন তকতকে করে শুরু দিন, ঠাকুমা পুষ্পরানি জানালেন সুস্থতার চাবিকাঠি

মেক আপের সময় কী কী বিষয় খেয়াল রাখতে হবে

অযথা ফেয়ারনেস ক্রিম দিয়ে নিজের স্বাভাবিক ত্বকের রঙকে উজ্জ্বল করার প্রয়োজন নেই। একইসঙ্গে নিজের স্কিন টোনের চেয়ে হালকা ফাউন্ডেশন ব্যবহার করাও কিন্তু মেক আপের একটি বড় ভুল। সব সময় নিজের স্কিনটোন অনুযায়ী শেড বাছা উচিত। কী ভাবে নিজের স্কিন টোন অনুযায়ী শেড বাছতে হবে?

. এমন কোনও লিপ শেড ব্যবহার করা উচিত নয় যা নিজের স্কিন টোনকে অনেক বেশি চেপে দেয়।

. নিজের স্কিনটোনের চেয়ে একটু গাঢ় শেডের কনট্যুর ব্যবহার করা উচিত।

. পাউডার ব্যবহারের পর কখনওই কোনও লিকুইড প্রোডাক্ট ব্যবহার করা উচিত নয় কারণ সেটি ত্বকে ছোপ ছোপ দাগ ফেলে দেয় যা ব্লেন্ড করলেও যেতে চায় না।

. গ্লিটার আইশ্যাডো ব্যবহার করলে হালকা হাইলাইটার ব্যবহারের এবং গ্লিটারি লিপস্টিক পরলে স্বাভাবিক আই লুকের পরামর্শ দেওয়া হয়।

কী ভাবে ত্বকের জন্য সঠিক শেড ব্যবহার করতে হবে

সঠিক ফাউন্ডেশন শেড বাছার আগে মুখে ও ঘাড়ে লাগিয়ে আগে পরীক্ষা করে নেওয়া উচিত। মুখে এবং ঘাড়ের অল্প অংশে ৩-৪ টি শেড ব্যবহার করে ১০-১৫ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। এর পর যে শেডটি ত্বকে ভাল ভাবে ব্লেন্ড হয়ে যাবে সেটি বেছে নেওয়া উচিত।

নিজের স্কিন টোনের সঙ্গে মানিয়ে সঠিক লিপ শেড বাছতে হবে। লিপস্টিক ব্যবহার করে নিজেকে সূর্যের আলোতে আয়নায় দেখতে হবে। যদি সেই লিপস্টিকে আমাদের বিবর্ণ না দেখায় তাহলে আমরা লিপস্টিকটি ব্যবহার করতেই পারি।

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published:

Tags: Make Up, Make Up Tips, Skin Tone

পরবর্তী খবর