Home /News /life-style /
Coronavirus: সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ছড়াচ্ছে বিএ.৪ এবং বিএ.৫ সাব ভ্যারিয়েন্ট, রইল লক্ষণ ও বাঁচার উপায়...

Coronavirus: সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ছড়াচ্ছে বিএ.৪ এবং বিএ.৫ সাব ভ্যারিয়েন্ট, রইল লক্ষণ ও বাঁচার উপায়...

কোভিডের সংক্রমণ বাড়ছে

কোভিডের সংক্রমণ বাড়ছে

Coronavirus: গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৮,৮১৯ জন, যা চার মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বিশ্ব জুড়ে ফের মাথা চাড়া দিচ্ছে করোনা। বহু মাস পর, প্রথমবারের মতো, ভারতে একদিনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৮,৮১৯ জন, যা চার মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

অনেকেই বলছেন, করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এভাবে বাড়লে চতুর্থ ঢেউ স্রেফ সময়ের অপেক্ষা। আমেরিকায় সংক্রমণ ছড়ানোর জন্য ওমিক্রনের বিএ.৪ এবং বিএ.৫ সাব ভ্যারিয়েন্টকেই দায়ী করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, এই সাব ভ্যারিয়েন্টগুলো পেরেন্ট ভ্যারিয়েন্টের চেয়েও খারাপ। এগুলোই উচ্চ হারে সংক্রমণের জন্য দায়ী। ভারতের মহারাষ্ট্র এবং তামিলনাড়ুতে একাধিক বিএ.৪ এবং বিএ.৫-এর কেস রিপোর্ট হয়েছে।

রিপোর্ট অনুযায়ী, আমেরিকার ৫২ শতাংশ সংক্রমণের পিছনে ওমিক্রনের বিএ.৪ এবং বিএ.৫ সাব ভ্যারিয়েন্ট দায়ী।

৪ উপায়ে চতুর্থ ঢেউ থেকে বাঁচতে পারে ভারত:

টেস্ট – করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই টেস্টের উপর জোর দিয়েছে হু। এটাই ভাইরাসের নতুন রূপগুলিকে ট্র্যাক করতে এবং সংক্রমণ রোধে সাহায্য করবে।

স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখা - হাত ধোয়া এবং স্যানিটাইজারের ব্যবহারই সংক্রমণের নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করেছে। ভালোভাবে হাত না ধুয়ে কিছু খাওয়া বা মুখে হাত দেওয়া উচিত নয়। জনবহুল এলাকায় হাত বারবার স্যানিটাইজ করা উচিত।

মাস্ক পরতে হবে - যাই হয়ে যাক মাস্ক পরতে হবে। যখন ভ্যাকসিন আসেনি তখন মাস্কই করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে সবচেয়ে কার্যকর সুরক্ষা হিসেবে কাজ করেছিল।

আরও পড়ুন: বড় খবর, করোনার কারণে নোটিশ জারি কলকাতার একাধিক স্কুলের! যা করতে হবে পড়ুয়াদের...

টিকা এবং বুস্টার: এখনও পর্যন্ত ভ্যাকসিনই করোনার সবচেয়ে কার্যকর চিকিৎসা হিসেবে সামনে উঠে এসেছে। সংক্রমণের বিস্তার এবং সংক্রমণের কারণে সৃষ্ট তীব্রতা নিয়ন্ত্রণে টিকা কার্যকর ভূমিকাও পালন করেছে।

নতুন সাব ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে কী কী উপসর্গ দেখা যায়: বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নতুন ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হলে প্রচণ্ড জ্বর, সর্দি, কাশি এবং ক্লান্তি দেখা যায়। তবে ২ থেকে ৩ দিনের বেশি উপসর্গগুলো স্থায়ী হয় না। যদিও বেশিরভাগ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাব ভ্যারিয়েন্টগুলি নিয়ে উদ্বেগের কোনও কারণ নেই।

আরও পড়ুন: নজরে ২১ জুলাই, বড় চমক দিতে চলেছে তৃণমূল! মঞ্চের অতিথিদের নিয়ে তুমুল গুঞ্জন

বিএ.৪ এবং বিএ.৫ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে: ইউএস সিডিসি থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, করোনা সংক্রমণ ফের দ্রুত গতিতে ছড়াচ্ছে। হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুলের বেথ ইজরায়েল ডেকোনেস মেডিকেল সেন্টারের গবেষকদের নতুন তথ্য অনুসারে, যারা আগে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এবং যাদের টিকা নিয়েছেন এমনকী যাঁরা বুস্টার ডোজও নিয়েছেন তাঁরাও এই নতুন সাব ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হচ্ছেন।

তাহলে কি টিকাকে বিশ্বাস করা যায়: হ্যাঁ। সমস্ত স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা এক বাক্যে এটাই বলছেন। দেখা গিয়ছে, যাঁরা টিকা নিয়েছেন তাঁরা বিএ.৪ এবং বিএ.৫ ভ্যারিয়েন্টের সংস্পর্শে এলে তাঁদের শরীরে অ্যান্টিবডি কমেছে। কিন্তু যাঁরা টিকা নেননি তাঁদের শরীরে কমা অ্যান্টিবডির সংখ্যার তুলনায় সেটা নগণ্য।

First published:

Tags: Coronavirus, Omicron, Omicron BA.2.75

পরবর্তী খবর