• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • Keratin Treatment : কেরাটিন ট্রিটমেন্ট ঠিক কী? কেন করাবেন এই ট্রিটমেন্ট? জেনে নিন খুঁটিনাটি

Keratin Treatment : কেরাটিন ট্রিটমেন্ট ঠিক কী? কেন করাবেন এই ট্রিটমেন্ট? জেনে নিন খুঁটিনাটি

Keratin Treatment:চুল মজবুত করতে কেরাটিন খুবই প্রয়োজনীয়

Keratin Treatment:চুল মজবুত করতে কেরাটিন খুবই প্রয়োজনীয়

ট্রিটমেন্টের মূল উপকরণ কেরাটিন প্রোটিন৷ মানুষের চুল, ত্বক এবং নখের মূল উপাদান কেরাটিন৷ চুল মজবুত করতে কেরাটিন খুবই প্রয়োজনীয় (usefulness of keratin treatment)

  • Share this:

    চুল মসৃণ করতে এখন কেরাটিন ট্রিটমেন্ট (Keratin Treatment) খুব ট্রেন্ডিং৷ এই ট্রিটমেন্টের মূল উপকরণ কেরাটিন প্রোটিন৷ মানুষের চুল, ত্বক এবং নখের মূল উপাদান কেরাটিন৷ চুল মজবুত করতে কেরাটিন খুবই প্রয়োজনীয় (usefulness of keratin treatment)৷

    জেনে নেওয়া যাক কেরাটিন ট্রিটমেন্টের খুঁটিনাটি-

    কী হয় কেরাটিন ট্রিটমেন্টে-

    এই ট্রিটমেন্টে চুলে লাগানো হয় কেরাটিন রাসায়নিক৷ চুল এর ফলে মসৃণ হয়৷ চুল থাকে জটমুক্ত৷ ফলে নারী পুরুষ নির্বিশেষে এই হেয়ার ট্রিটমেন্ট খুব জনপ্রিয়৷ দূষণ, উদ্বেগ-সহ নানা কারণে চুল থেকে কেরাটিন ক্ষয়ে যায়৷ কেরাটিনের অভাবে চুল হয়ে পড়ে জটপ্রবণ৷ চুলের দুর্বলতার জন্য সহজেই ভেঙে যায়৷ চুলে হারিয়ে যাওয়া যাওয়া কেরাটিন ফিরিয়ে এনে নতুন করে চুল গড়ে তোলে কেরাটিন৷

    কীভাবে করা হয় কেরাটিন ট্রিটমেন্ট-

    চুলে প্রথমে হেয়ার স্ট্রেটনিং কেমিক্যাল লাগিয়ে দেন হেয়ারড্রেসার৷ তার পর স্ট্রেটনারের উষ্ণতায় ধরে রাখা হয় কেরাটিনের গুণ৷ কেরাটিন ট্রিটমেন্টে সাধারণত চুলের দৈর্ঘ্যের উপর নির্ভর করে দেড় ঘণ্টা মতো সময় লাগে৷

    ট্রিটমেন্টের প্রভাব কত ক্ষণ থাকে-

    কেরাটিন ট্রিটমেন্টের মূল বিষয় হল জল এবং চুলের কুঁচকে যাওয়া বা চুল বাঁধা অন্তত তিন দিনের জন্য এড়িয়ে চলে হবে৷ নয়তো কিন্তু বাহারি চুলের দফারফা হবে৷ সব সময় সালফেটমুক্ত শ্যাম্পুই ব্যবহার করতে হবে৷ বিশেষজ্ঞ হেয়ারড্রেসারদের মত, এই ট্রিটমেন্টে চুল আবৃত করতে হবে সিল্ক বা স্যাটিনের বড় রুমালে৷ যাতে চুলের আর্দ্রতা ধরা থাকে৷ সাধারণত কেরাটিন ট্রিটমেন্ট চুলে দু’ থেকে চার মাস স্থায়ী হয়৷ তবে ঠিকভাবে যত্ন নিলে ৬ মাস অবধি এর প্রভাব থাকে৷ তবে এই ট্রিটমেন্টের ফলে চুলে স্বাভাবিক কোঁকড়ানো ভাব কিন্তু চিরতরে নষ্ট হয়ে যেতে পারে৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: