Home /News /life-style /
Health Risk: সুগার-ব্লাডপ্রেশার-কোলেস্টেরল চড়চড়িয়ে বাড়ে Red Meat খেলেই, স্ট্রোকের হাত থেকে বাঁচতে আজই ত্যাগ করুন

Health Risk: সুগার-ব্লাডপ্রেশার-কোলেস্টেরল চড়চড়িয়ে বাড়ে Red Meat খেলেই, স্ট্রোকের হাত থেকে বাঁচতে আজই ত্যাগ করুন

প্রতীকী ছবি ৷

প্রতীকী ছবি ৷

Health Risk: এই ধরনের মাংসই হয়ে ওঠে মৃত্যুর কারণ

  • Share this:

    সমীক্ষায় প্রকাশিত যে রেড মিট স্বাস্থ্যের পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকর ৷ বেশি পরিমাণে রেড মিট খেলে স্ট্রোক বা ক্যান্সারের ঝুঁকি দেখা দিতে পারে ৷ মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের একিট সমীক্ষায় জানতে পারা গিয়েছে রেডমিট ছাড়াও তৈল জাতীয় খাদ্য যেমন বার্গার, সস, ভিনিগারের খাদ্য সম্পর্কিত সামগ্রী খেলে তা মৃত্যুর কারণ হতে পারে ৷

    একটি রিসার্চে আরও বলা হয়েছে এমন কিছু রোগ আছে যার মত্যু হয় মানুষের হঠাৎ হঠাৎ করে তার মধ্যে ব্লাডসুগার, হার্ট, অ্যাটাক ক্যান্সার ইত্যাদি ৷ যা সংবাদে প্রকাশিতও হয়েছিল ৷ হার্বাড স্কুলের এক অধ্যাপক ও ক্যান্সার ইনস্টিটিউট অফ ডক্টর্সের অন্যতম চিকিৎসক মরিওস পরিষ্কার করে বলেছেন সবাই লাগাতার প্রসেসড ও রেডমিট খেয়ে থাকেন ফলত কোলেস্টেরল ও ক্যান্সারের কবলে আসতে পারেন, যা মৃত্যুর কারণ হতে পারে ৷

    নিরপেক্ষ রিসার্চে আরও জানতে পারা গিয়েছে নিয়মিত রেডমিট খেলে শরীরে কোলেস্টেরল ও ক্যান্সারের মত মারণ রোগ বাড়তে থাকে ৷ তাই কোলেস্টেরল ও ক্যান্সারের মত রোগের ঝুঁকি কমানোর জন্য রেডমিট একদমই ত্যাগ করা উচিৎ ৷ যাঁরা রেডমিট খান তাঁদের স্ট্রোক হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি ৷ য়াঁরা প্রতিদিন প্রসেসড খাবার খান তাঁদের স্ট্রোকের ঝুঁকি ১২ শতাংশ ৷

    আরও পড়ুন:  Jyotish Tips: ঘুম পেলেই ঘুমোচ্ছেন! যে কোনও সময়ে শুতে যাওয়ার অভ্যাস জীবনের সব কিছু শেষ করে দিতে পারে

    নর্থ বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষক জানিয়েছেন প্রতিদিন প্রসেসড মিট, রেডমিট ও এই ধরনের মাংস খাওয়ার অভ্যাস অনেক ঝুঁকি নিয়ে আসে জীবনে ৷ খাবার দাবারের সামগ্রী বদলাতে হয় ৷ সেক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়াটা অত্যন্ত জরুরি ৷

    আরও পড়ুন:  Health Tips: গোড়ালিতে এই সমস্যাগুলো হচ্ছে? সাবধান, হৃদরোগের প্রাথমিক লক্ষণ হতে পারে

    Disclaimer: উপরোক্ত তথ্য আসলে ঘরোয়া টোটকা ৷ কোনও চিকিৎসা বা ওষুধের বিকল্প হতে পারেনা ৷ তাই কোনও ব্যবহারিক প্রয়োগের আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন ৷

    Published by:Arjun Neogi
    First published:

    Tags: Health Risk, Health Tips

    পরবর্তী খবর