Home /News /kolkata /

Covid 19 Third Wave in Bengal: দৈনিক আক্রান্ত হতে পারেন ৩৫ হাজার মানুষ, বেসরকারি হাসপাতালগুলিক সতর্ক করল স্বাস্থ্য দফতর

Covid 19 Third Wave in Bengal: দৈনিক আক্রান্ত হতে পারেন ৩৫ হাজার মানুষ, বেসরকারি হাসপাতালগুলিক সতর্ক করল স্বাস্থ্য দফতর

করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে উদ্বিগ্ন রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর৷ প্রতীকী ছবি৷

করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে উদ্বিগ্ন রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর৷ প্রতীকী ছবি৷

কলকাতায় স্থানীয় ভাবে ওমিক্রন (Omicron) সংক্রমণ ছড়িয়েছে বলেও স্বীকার করে নিয়েছেন রাজ্যের স্বাস্থ্য অধিকর্তা (Covid 19 Third Wave in Bengal)৷

  • Share this:

#কলকাতা: দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময়ের ভয়ানক ছবিকেও ছাপিয়ে যেতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ৷ রাজ্যে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছতে পারে ৩৫ থেকে ৩৬ হাজারে (Covid 19 Third Wave)৷ বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে চিঠি দিয়ে এ ভাবেই সতর্ক করে পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুতি নিতে বললেন রাজ্যের স্বাস্থ্য অধিকর্তা অজয় চক্রবর্তী৷

কলকাতায় স্থানীয় ভাবে ওমিক্রন (Omicron) সংক্রমণ ছড়িয়েছে বলেও স্বীকার করে নিয়েছেন রাজ্যের স্বাস্থ্য অধিকর্তা৷ একই সঙ্গে অবশ্য তিনি আশা প্রকাশ করেছেন, তৃতীয় ঢেউয়ে পরিস্থিতি আগের তুলনায় খারাপ হয়ে মাস তিনেকের মধ্যেই তা নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে৷

রাজ্যে দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃহস্পতিবারই ২ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে৷ জুন মাসের পর ফের দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার পার করল৷ কিন্তু রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর মনে করছে, এই সংখ্যাটা কিছুই না৷ আগামী কয়েকদিনে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা কয়েক গুন বেড়ে তিরিশ হাজার ছাড়িয়ে যেতে পারে৷

আরও পড়ুন: ওমিক্রন আতঙ্কে বড় পদক্ষেপ! স্কুলে কারা আসবেন, কারা নয়, নির্দেশিকা জারি রাজ্যের

করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের মোকাবিলায় গতকাল উচ্চপর্যায়ের বৈঠক করে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর৷ জেলা স্তরে এবং সরকারি হাসপাতালে পরিস্থিতি মোকাবিলায় পরিকাঠামো তৈরির পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালগুলিকেও চিঠি দেওয়া হয়৷ পরিস্থিতি কতটা ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে সেই ইঙ্গিত দিয়ে বিপুল সংখ্যক রোগীর চাপ সামলাতে হাসপাতালগুলিকে যথাযথ পরিকাঠামো তৈরি রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে হাসপাতালগুলিকে৷

বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে স্বাস্থ্য দফতরের তরফে লেখা চিঠিতে বলা হয়েছে, 'গত কয়েকদিনে প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুন হয়েছে৷ বিশেষত কলকাতায় ওমিক্রনের স্থানীয় ভাবে সংক্রমণের প্রমাণ মিলেছে৷ পাঁচ জন এমন আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে যাঁদের বিদেশ যাত্রা বা বাইরে যাওয়ার কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি৷'

আরও পড়ুন: রাজ্যে আরও পাঁচজন ওমিক্রন আক্রান্তের খোঁজ, পরিস্থিতি উদ্বেগজনক!

রীতিমতো উদ্বেগ প্রকাশ করে চিঠিতে লেখা হয়েছে, 'আমরা সবাই জানি ওমিক্রন তিন থেকে পাঁচ গুন বেশি সংক্রামক৷ এটা শুধুমাত্র আগুনের স্ফুলিঙ্গ, খুব শিগগিরই হয়তো বা এক সপ্তাহের মঝ্যেই আমরা আবার মারাত্মক সমস্যার মধ্যে পড়তে চলেছি৷ তাই আমাদের আবার সংক্রমণ আটকানো এবং হাসপাতাল ও সেফ হোমগুলিতে বিপুল সংখ্যক করোনা রোগীর চাপ সামলানোর জন্য তৈরি হতে হবে৷ '

স্বাস্থ্য অধিকর্তা চিঠিতে লিখেছেন, করোনার প্রথম ঢেউয়ের সময় দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ধীর গতিতে বেড়েছিল৷ অক্টোবর মাসের ২০ তারিখেও দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৪১০০৷ দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণের গতি ছিল অনেক বেশি৷ সেই সময় দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ২০ থেকে ২২ হাজারে পৌঁছে যায়৷ এর পরেই হাসপাতালগুলিকে সতর্ক করে বলা হয়েছে, 'এবারে দ্বিতীয় ঢেউয়ের থেকেও দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা অনেকটা বেড়ে ৩০ থেকে ৩৫ হাজারে পৌঁছে যেতে পারে৷'

এই সতর্কবার্তা দিয়েই হাসপাতালগুলিকে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়ার পাশাপাশি সমস্ত স্বাস্থ্যকর্মীদেরও তৈরি রাখতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে৷ স্বাস্থ্য অধিকর্তা অবশ্য চিঠিতে আশা প্রকাশ করেছেন, করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের এই প্রকোপ দু' তিন মাসের বেশি স্থায়ী হবে না৷ ফলে, মার্চ থেকে এপ্রিল মাসের মধ্যেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন রাজ্যের স্বাস্থ্য অধিকর্তা৷

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

Tags: Covid ১৯, Omicron

পরবর্তী খবর