• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • WB HEALTH DEPARTMENT WORRIED ABOUT NORTH 24 PARGANAS COVID GRAPH CEASED FEW MARKETS AKD

রাজ্যের উদ্বেগ শুধুই উত্তর চব্বিশ পরগণা, বেশ কয়েকটি বাজার বন্ধের নির্দেশ

উত্তর চব্বিশ পরগণার বেশ কয়েকটি বাজার বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হল।

আগামী সাতদিন মোট সাতটি বাজার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা রুখতে উত্তর ২৪  পরগনায় বেশ কয়েকটি বাজার বন্ধের সিদ্ধান্ত নিল জেলা প্রশাসন। আপাতত একদিন অন্তর অন্তর বন্ধ থাকবে পানিহাটি বাজার, সোদপুর বাজার এবং সুখচর বাজারষ আগামী সাত দিন পুরোপুরি বন্ধ থাকবে তা হল ব্যারাকপুর মিউনিসিপ্যালিটি অধীনস্থ তালপুকুর বাজার, নোনাচন্দনপুকুর বাজার, শান্তিবাজার, বাবুবাজার,  নব তামার ঘাটবাজার , লেনিনগড় বাজার এবং স্বরূপনগরের তেতুলিয়া হোলসেল মার্কেট। অর্থাৎ আগামী সাতদিন মোট সাতটি বাজার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন।

উল্লেখ্য শুধু উত্তর ২৪ পরগনা নয়, রাজ্য প্রশাসনের নজরে রয়েছে হাওড়া ও কোশ্চেন ভাঙতে আগামী তিনদিন হাওড়া শহর গুলো বন্ধ করে রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ডোমজুড় মাকড়দহ ঘুসুড়ি নস্কর্পারা সাঁকরাইল রাজগঞ্জ আন্দুল এলাকার সমস্ত বাজার বন্ধ রাখা হবে রবিবার থেকে মঙ্গলবার। প্রশাসন আসলে খুঁটিয়ে পকেট চিহ্নিত করে সেই পদগুলিতে কোভিদ নিয়ন্ত্রণ করতে চাইছে। এই তালিকায় রয়েছেন রাজপুর সোনারপুর এলাকার দোকান বাজারও।

প্রসঙ্গত রাজ্যে করোনার গ্রাফ নিম্নমুখী। শনিবার স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী আক্রান্ত হয়েছেন ১৯৪ জন। এর মধ্যে সংক্রমণ সবথেকে বেশি উত্তর ২৪ পরগনাতেই। আর প্রশাসনের মাথাব্যথা তাই নিয়েই। এখানে শেষ ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২২৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩২ জনের। এই কারণেই প্রশাসনের বিশেষ সতর্ক দৃষ্টি রয়েছে এই জেলার দিকে।

উল্লেখ্য গত ১৮ এপ্রিলের পর এই প্রথম সর্ব নিম্ন মৃত্যুহার রাজ্যে। নিম্নমুখী করোনার গ্রাফ গোটা রাজ্যের জন্য স্বস্তির। এই আবহে প্রশাসন চাইছে আরও বেশি করে সর্তকতা অবলম্বন করতে। প্রয়োজনে মাইক্রো কন্টেনমেন্ট  জোন বাড়াতে। ছোট ছোট জোনগুলিকে বন্ধ রাখতে পারলে দিন কয়েকের মধ্যেই রাজ্যবাসী করোনা থেকে মুক্তি পেতে পারে, এমনটাই অনুমান স্বাস্থ্য দফতরের।  তবে একই সঙ্গে প্রমাদ গোনার পালা শুরু। কেননা হানা দিতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ। ইতিমধ্যেই কোমর বেঁধে তাঁর প্রস্তুতি শুরু করেছে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর।

Published by:Arka Deb
First published: