• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • TMC STARTS CAMPAIGNING IN BHAWANIPORE AS SOON AS ELECTION COMMISSION ANNOUNCES BYE POLL DATE DMG

Bhawanipore| Mamta Banerjee: তৈরিই ছিল তৃণমূল, দিন ঘোষণা হতেই ভবানীপুরে জোরদার প্রচার! শুরুতেই এগিয়ে গেলেন মমতা

ভবানীপুরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমর্থনে প্রচার৷

  • Share this:

#কলকাতা: যেন উপনির্বাচনের দিন ঘোষণার অপেক্ষা ছিল৷ দুপুরে কমিশন দিন ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমর্থনে পুরোদমে প্রচারে নেমে পড়ল তৃণমূল কংগ্রেস৷ আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ভবানীপুরে উপনির্বাচন৷ ফলে হাতে আর একমাসও সময় নেই৷ বিরোধীরা যেখানে এখনও প্রার্থীর নামই ঘোষণা করতে পারল না, সেখানে ভোটের দিন ঘোষণা হতেই প্রতিদ্বন্দ্বীদের থেকে অনেকটা এগিয়ে গেলেন তৃণমূলনেত্রী৷

এ দিন দুপুরের পর থেকেই ভবানীপুর বিধানসভা এলাকার বিভিন্ন জায়গায় প্রচারের কাজ শুরু করে দেন তৃণমূল কর্মীরা৷ কোথাও পোস্টার, কোথাও আবার হোর্ডিং লাগানোর কাজ শুরু হয়ে যায়৷ বাদ যায়নি দেওয়াল লিখনও৷ উন্নয়ন ঘরে ঘরে, ঘরের মেয়ে ভবানীপুর অথবা ভবানীপুর নিজের মেয়েকেই চায়৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভবানীপুরের ঘরের মেয়ে হিসেবে তুলে ধরেই মুখ্যমন্ত্রীর সমর্থনে প্রচার শুরু করেছে শাসক দল৷

এলাকার তৃণমূল নেতা এবং কলকাতা পুরসভার কো অর্ডিনেটর অসীম বসু বলেন, 'ভবানীপুর নিজের মেয়েকেই চায়। তাই আমরা প্রচার শুরু করে দিলাম। আগামী ২০-২২ দিন প্রচার হবে কোভিড প্রটোকল মেনেই। মানুষের সাড়া আমরা ইতিমধ্যেই পেয়েছি।'

নন্দীগ্রামে শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে তুল্যমূল্য লড়াইয়ের পর পরাজিত হতে হয়েছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে৷ বিকল্প হিসেবে আগে থেকেই ভাবা ছিল ভবানীপুরের নাম৷ তাই তৈরি ছিলেন দলের নেতা কর্মীরাও৷ ভবানীপুরের মানুষ যে মমতাকে হতাশ করবেন না, সে বিষয়ে চূড়ান্ত আত্মবিশ্বাসী তৃণমূল৷

আজ থেকেই ভবানীপুর বিধানসভা কেন্দ্রে প্রচার শুরু তৃণমূলের। দলের সুপ্রিমোর হয়ে একাধিক ওয়ার্ডে প্রচার শুরু ঘাস ফুল শিবিরের। কোথাও পোস্টার, হোর্ডিং। কোথাও শুরু দেওয়াল লিখন।

উন্নয়ন ঘরে ঘরে, ঘরের মেয়ে ভবানীপুরে। এই স্লোগানকে সামনে রেখেই প্রচার শুরু তৃণমূলের। দেওয়াল লিখনে অবশ্য 'খেলা হবে'র প্রাধান্যই বেশি৷ তৃনমূল নেতা অসীম বোস জানিয়েছেন, "ভবানীপুর নিজের মেয়েকেই চায়। তাই আমরা প্রচার শুরু করে দিলাম। আগামী ২০-২২ দিন প্রচার হবে কোভিড প্রটোকল মেনেই। মানুষের সাড়া আমরা ইতিমধ্যেই পেয়েছি।"

Published by:Debamoy Ghosh
First published: