Home /News /kolkata /
টেট ২০১৪, CBI-ED তদন্ত চেয়ে হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা 

টেট ২০১৪, CBI-ED তদন্ত চেয়ে হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা 

দুর্নীতির বিষয়টি প্রথম সামনে আসে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের বেঞ্চে হওয়া একটি মামলাকে ঘিরে। 

  • Share this:

#কলকাতা: প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির রহস্যভেদে সিবিআই এবং ইডি তদন্ত চেয়ে জনস্বার্থ মামলা কলকাতা হাইকোর্টে। প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ প্রাথমিক টেট ২০১৪কে ঘিরে৷ সারা রাজ্যের প্রায় ৪০ হাজারের বেশি প্রাথমিক শিক্ষক নিযুক্ত হয় ২০১৪ টেট থেকে।  জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেছেন তাপস ঘোষ এবং আইনজীবী তরুণজ্যোতি তিওয়ারি। দুর্নীতির বিষয়টি প্রথম সামনে আসে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের বেঞ্চে হওয়া একটি মামলা থেকে।

আরও পড়ুন Dilip Ghosh: সুকান্তকে পাশে বসিয়েই দলের জন্য 'অভিভাবক' চাইলেন দিলীপ! তুমুল শোরগোল বিজেপিতে

উত্তর দিনাজপুরের স্বদেশ দাস, ২০১৯ সালে মামলা করে হাইকোর্টের কাছে আবেদন জানান৷ তিনি জানান যে, তাঁকে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ চাকরি দেওয়ার পরও তা কেড়ে নিয়েছে। পুনরায় তাকে চাকরিতে বহাল করার নির্দেশ দিক কলকাতা হাইকোর্ট, এই অনুমতি চান তিনি। উত্তর দিনাজপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ এবং প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের বক্তব্য জানার পর বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় পর্যবেক্ষণে জানান, ৫ নথি সঠিক নয়। এই কারণেই চাকরি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে স্বদেশ দাসকে। পর্ষদের এই ভুল তারা স্বীকার করে নিয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের এই ভুল চাকরির জন্য কোনও আইনি অধিকার তৈরি করে দেয়না।

স্বদেশ দাস ওই মামলাতেই চাঞ্চল্যকর তথ্য আদালতের সামনে আনেন।স্বদেশ দাস আদালতকে জানান তাঁর ৫ নথি যদি সঠিক না হয় এবং তাঁর জন্য যদি চাকরি বাতিল হয়, তাহলে একই রকম ভুল নথিতে চাকরি করছেন আরও ১২ জন। তাদের নাম ও তালিকা আদালতকে দিতে পারেন।এই ১২ বেআইনি নিয়োগের তথ্য বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় জানতে পারার পর বিষয়টিকে জনস্বার্থ মামলায় পরিবর্তন  করে দেন।

আরও পড়ুন Bangla News: রানিকুঠির স্কুলের বাইরে 'আতঙ্কিত' ডাক্তারবাবু, সবাইকে ডেকে ডেকে কী বোঝাচ্ছেন?

২৭ অগাস্ট ২০২১ বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশে জনস্বার্থ মামলা হয় প্রাথমিকের এই ১২ নিয়োগ অনিয়ম। তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দল ডিভিশন বেঞ্চ, ৪০০০০ নিয়োগের নথি তলব করে। এরপর হঠাৎই স্বদেশ দাসের আইনজীবীদের হয়ে কেউ পরপর ২  শুনানির দিন অনুপস্থিত থাকে। জনস্বার্থ মামলাটি সেসময় খারিজ হয়ে যায়। এই পুরো ঘটনাক্রমকে হাতিয়ার করেই নতুন জনস্বার্থ মামলা বলে জানান আইনজীবী তরুণজ্যোতি তিওয়ারি। সাংসদ মহুয়া মিত্র, দমদমের তৃণমূল কংগ্রেস নেতা রাজু সেনশর্মা এবং বর্তমান শিক্ষামন্ত্রীর কিছু মন্তব্য তাদের মামলার একটা গুরুত্বপূর্ণ দিক বলে জানান তাপস ঘোষ এবং তরুণজ্যোতি তিওয়ারি। আগামী ১০ মে প্রধান বিচারপতি ডিভিশন বেঞ্চে মামলাটি শুনানির জন্য আসতে পারে।

Published by:Pooja Basu
First published:

Tags: High Court, TET, TET Exam

পরবর্তী খবর