অ্যাডমিট ছাড়াই পরীক্ষা হলে,উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর কেরিয়ার বাঁচালেন এই পুলিশকর্মী

অ্যাডমিট ছাড়াই পরীক্ষা হলে,উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর কেরিয়ার বাঁচালেন এই পুলিশকর্মী
সকলের মন জয় করে নিলেন এই পুলিশকর্মী

অ্যাডমিট কার্ড হাতে পেয়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলে ওই ছাত্রী৷ পুলিশের এমন মানবিকতাকে অভিনন্দন জানান পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা বোর্ডের আধিকারিকও৷

  • Share this:

#হাওড়াঃ এক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর একটি বছর বেঁচে গেল এক পুলিশের মানবিকতার কারণে৷

হাওড়া সাঁত্রাগাছির বাসিন্দা রোকসার খাতুন এক উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী৷ শুক্রবার পরীক্ষা দিতে এলে বাড়িতেই ফেলে আসে পরীক্ষার অ্যাডমিট কার্ড| সাঁত্রাগাছির বাসিন্দা ছাত্রীটির সিট পরে সালকিয়া এ এস উচ্চবিদ্যালয়ে৷ পরীক্ষা কেন্দ্রে ঢুকতেই গেটে অ্যাডমিট কার্ড দেখতে চাওয়া হলে, তা খুঁজে পায়নিওই ছাত্রী৷ ভয়ে কান্নাকাটি শুরু করে দেয় সে৷

ছাত্ররীর কান্নাকাটি দেখেই এগিয়ে আসেন কর্তব্যরত গোলাবাড়ি তাহানার ট্রাফিক অফিসার অমিত দাশ৷ পুরো ঘটনার কথা শুনে তিনি স্কুল কর্তৃপক্ষকে আবেদন জানান ছাত্রীটিকে পরীক্ষায় বসতে দেওয়া হোক৷ ৩০ মিনিট সময় চেয়ে নেন তিনি৷ ছাত্রীটির থেকে তার বাড়ির ফোন নম্বর নিয়ে সোজা বাইক নিয়ে চলে যান অমিতবাবু ৷

এ দিকে পুলিশের আবেদনে স্কুল কর্তৃপক্ষ তিরিশ মিনিটের জন্য পরীক্ষায় বসতে দেওয়া হয়৷ তবে এও জানানো হয়, তিরিশ মিনিটের মধ্যে যদি অ্যাডমিট কার্ড দেখতে না পারে তাহলে বর্ডার নিয়ম অনুযায়ী পরীক্ষার্থীকে পরীক্ষা দিতে দেওয়া হবে না, তার খাতা বাজেয়াপ্ত করা হবে৷ সালকিয়া থেকে প্রায় আট কিলোমিটার পথে অতিক্রম করে ছাত্রীর বাড়ি থেকে অ্যাডমিট কার্ড নিয়ে এবং ছাত্রীর ভাই কে সঙ্গে নিয়ে মাত্র ২৩ মিনিটের মধ্যেই অ্যাডমিট কার্ড পৌঁছে দেন অমিতবাবু৷ অ্যাডমিট কার্ড হাতে পেয়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলে ওই ছাত্রী৷ পুলিশের এমন মানবিকতাকে অভিনন্দন জানান পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা বোর্ডের আধিকারিকও৷

পরীক্ষা শেষে অমিতবাবুকে প্রণাম করতে পরীক্ষা দিতে আসা ছাত্রীরা এগিয়ে আসেন, আবেগে চোখে জল চলে আসে পুলিশকর্মী অমিতবাবুর | অমিতবাবু জানান, পরীক্ষায় বসা অসম্ভব জেনে কান্নাকাটি করা মেয়েটির মুখের দিকে তাকিয়েই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে ভাবেই হোক মেয়েটির একটি বছর কোনোরকম ভাবে নষ্ট হতে দেব না৷ আর এতগুলো মেয়ে যখন তাকে প্রণাম করতে যায় তখন নিজের আবেগ ধরে রাখতে পারেননি তিনি |

অমিতবাবুর কথায় রাস্তায় দাঁড়িয়ে বাহবার থেকে বেশি গালিগালজি শুনতে হয় সারাদিন৷ তাই ভালোবাসা পেলে আবেগপ্রবন হয়ে পড়াটাই স্বভাবিক বলে মনে করি |

First published: March 14, 2020, 6:52 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर