অশান্তি নিয়েই পুলিশ-প্রশাসনকে দুষলেন দিলীপ,বললেন ভোটের আগেই শুরু হয়ে গিয়েছে ভোটগণনা

File Photo

  • Share this:

    #কলকাতা: রাজ্য জুড়ে দিনভর অশান্তি অব্যাহত ৷ চলছে লাঠি-বোমা-গুলি ৷ শাসক এবং বিরোধী দল মিলিয়ে এখনও অবধি 9 জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে ৷ আহতের সংখ্যা বহু ৷ পঞ্চায়েত ভোট ঘিরে রাজ্যজুড়ে সংঘর্ষের জন্য শাসক দলকেই কাঠগড়ায় তুললেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ ৷ একইসঙ্গে পুলিশের ভূমিকা নিয়েও রাজ্য পুলিশ প্রশাসনকে তুলোধনা করলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি ৷ বলেন,

    চোখের সামনে গুলি-বোমা-মারধর দেখেও বন্দুক হাতে নিয়ে দর্শকের মত দাঁড়িয়ে রয়েছে পুলিশ ৷

    দিলীপ ঘোষের মতে,

    বিরোধী দলের দাবি মেনে রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোটের নিরাপত্তায় কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে আসা হলে, রাজ্য জুড়ে এহেন সন্ত্রাস হত না ৷ শান্তিপূর্ণ পঞ্চায়েত নির্বাচনের জন্যই আমরা হাইকোর্ট থেকে সুপ্রিম কোর্ট অবধি গিয়েছিলাম ৷

    একইসঙ্গে পঞ্চায়েত ভোট শেষ হতে না হতেই ভোটগণনা শুরু হয়ে গিয়েছে বলে দাবি করলেন দিলীপ ঘোষ ৷ তিনি বলেন,

    নির্বাচন কমিশনের নির্ধারিত দিনেই পঞ্চায়েত ভোটের দিন স্থির হয় ১৪ মার্চ ৷ কিন্তু ১৩ মার্চ গভীর রাত থেকেই ছাপ্পা মারা শুরু হয়ে গিয়েছে ৷ বিকাল ৫ টায় ভোট শেষ হবে। আর ১৭ তারিখ পঞ্চায়েত ভোটের কাউন্টিং হওয়ার কথা। কিন্তু আবার আজ থেকেই অনেক জায়গায় কাউন্টিং শুরু হয়ে গিয়েছে।

    অপরদিকে, রাজ্যজুড়ে চলা অশান্তির বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের রুখে দাঁড়ানোকে বাহবা দিলেন দিলীপ ঘোষ ৷ বলেন,

    অশান্তি উপেক্ষা করে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিচ্ছে সাধারণ মানুষ ৷ সারা পশ্চিমবঙ্গে উন্নয়ন বাহিনী যে দাপট সেটা দেখলাম আজ জেলায় জেলায় বাইক বাহিনী দাপিয়ে বেড়িয়ে। সাধারণ মানুষ তার প্রতিরোধ করার চেষ্টা করেছে ।

    উত্তরবঙ্গের উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের ঘটনাটিরও চরম নিন্দা করলেন দিলীপ ঘোষ ৷ বলেন,

    কোচবিহারের নাটাবাড়িতে এক বিজেপি এজেন্টের সঙ্গে কথা কাটাকাটির পরই সপাটে চড় মারেন রবীন্দ্রনাথবাবু । তার প্রদত্যাগের দাবি জানাচ্ছি আমি ৷ এমনকী, এই বিষয়টি নিয়ে নির্বাচন কমিশনকেও লিখিত অভিযোগ জানাব আমরা ৷

    First published: