চোখে জল আনছে পেঁয়াজের দাম! এক দিনে ১০ টাকা বাড়ল, আরও বৃদ্ধির আশঙ্কা!

আরও ঝাঁঝালো হচ্ছে পেঁয়াজ। ফাইল চিত্র

কেজিতে অন্তত ১০ টাকা করে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। রাতারাতি এই দামবৃদ্ধিই মধ্যবিত্তের উদ্বেগের কারণ।

  • Share this:

    #কলকাতা: হুহু করে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। রীতিমতো নাভিশ্বাস মধ্যবিত্তের। এখন প্রতি কিলো পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে ৪০ টাকায় । অর্থাৎ কেজিতে অন্তত ১০ টাকা করে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। রাতারাতি এই দামবৃদ্ধিই মধ্যবিত্তের উদ্বেগের কারণ।

    গত বছরও একটা নির্দিষ্ট সময়ে পেঁয়াজের দাম বেড়েছিল। কিন্তু বণিকমহল বলছে এই দুই বছরের মূল্যবৃদ্ধির কার্যকারণ আলাদা। ঠিক কি কারণে বাড়ল এবছর পেঁয়াজের দাম ? বাজারঘুরেরা বলছেন, এ বছর পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির মূল কারণ হল- বাংলার পেঁয়াজের স্টক আপাতত শেষ। এখন বাজারে পেঁয়াজ বলতে যা আছে তা পুরোটাই নাসিক থেকে আনা। করোনা পরিস্থিতিতে মহারাষ্ট্র হোক বা বাংলা হাজারো বিধি-নিষেধ। তাই নাসিক থেকে পেঁয়াজ আনতে পরিবহণের জন্য বেগ পেতে হচ্ছে। তাছাড়া প্রতিদিন ঊর্ধ্বমুখী পেট্রোল ডিজেলের দাম। সেই দাম যোগ হচ্ছে দ্রব্যমূল্যের সঙ্গে। শুধু পেঁয়াজ নয় অন্যান্য আনাজ এর দাম বাড়তে পারে এই ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধির কারণেই।

    লেক মার্কেটের এক পেঁয়াজ বিক্রেতা বলছেন, ঝড়ের গতিতে এ বছর বাংলার পেঁয়াজের ভান্ডার শেষ হয়ে গেল। এখন পেঁয়াজ মানেই ভরসা নাসিক। সেই কারণেই খুচরা বাজারে হঠাৎ এমন দাম বৃদ্ধি। এক দিনেই কেজি প্রতি ১০ টাকা দাম বেড়ে গিয়েছে পেঁয়াজের। পেঁয়াজ কিনতে ৩০০ টাকা বেশি দাম দিতে হচ্ছে। আগে যে পেঁয়াজ ৮০০-৯০০ টাকায় কিনতাম এখন তা ১২০০ টাকায় কিনতে হচ্ছে।

    জ্বালানি ও যোগান দুই শর্তই মধ্যবিত্তের নাভিশ্বাস তুলছে। বণিকমহল মনে করছেন নির্বাচনের ডামাডোলে পেঁয়াজের রপ্তানির ওপর রাস্তা না যায়নি এ বছর। বাংলার পেঁয়াজ প্রচুর পরিমাণে রপ্তানি হয়ে গিয়েছে বাংলাদেশ। এই কারণেই বাংলার পেঁয়াজ মে মাসের শুরুতেই শেষ। এর মাশুল আগামীদিনেও গুনতে হবে মধ্যবিত্তকে। আজ ২৫ টাকার পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে ৪০ টাকায়। আগামী দিনে এই দাম কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় সেটাই দেখার

    Published by:Arka Deb
    First published: