গৃহবধূর রহস্যমৃত্যু, বাপের বাড়িতে না জানিয়েই দাহের প্রস্তুতি

গৃহবধূর রহস্যমৃত্যু, বাপের বাড়িতে না জানিয়েই দাহের প্রস্তুতি
representative image

বিয়ের পাঁচ মাসের মধ্যেই গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুতে ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য ৷ এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুন করার অভিযোগ উঠল তাঁর স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির বিরুদ্ধে।

  • Share this:

    #বারুইপুর: বিয়ের পাঁচ মাসের মধ্যেই গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুতে ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য ৷ এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুন করার অভিযোগ উঠল তাঁর স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির বিরুদ্ধে। খুনের পর বাপের বাড়ির লোককে না জানিয়ে চুপচাপ শ্মশানে গিয়ে দেহ দাহ করার চেষ্টা করা হয়েছে বলেও অভিযোগ ৷ মৃতার নাম রিতা চক্রবর্তী(২১)। ঘটনাটি ঘটেছে বারুইপুর থানার বিদ্যাধরপুর বনবিবিতলা এলাকায়।

    গৃহবধূর রহস্যমৃত্যুর খবর পেয়ে বারুইপুর থানার পুলিশ শ্মশানে পৌঁছে দাহ আটকায় ৷ মৃত্যুর আসল কারণ জানতে বধূর মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ ৷ ঘটনায় মৃতার বাপের বাড়ির লোকেদের অভিযোগের ভিত্তিতে বারুইপুর থানার পুলিশ মৃতার স্বামী সুমন চক্রবর্তী,শ্বশুর তপন চক্রবর্তী ও দেওরকে আটক করেছে পুলিশ ৷ চলছে জিজ্ঞাসাবাদ ৷

    গত মার্চ মাসে উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালি থানার গাববেরিয়া এলাকার বাসিন্দা রীতার সঙ্গে বিয়ে হয় বারুইপুরের বিদ্যাধরপুর বনবিবি তলার সুমনের ৷ বিয়ের আগে থেকেই একে অপরকে চিনতেন রীতা ও সুমন ৷ তবে তাদের এই সম্পর্কে সম্মতি ছিল না রীতার পরিবারের ৷ বাড়ির বিরুদ্ধে গিয়েই সাত পাকে বাঁধা পড়ে তারা দু’জন ৷


    বিয়ের পাঁচ মাস পরেই মেয়ের এই পরিণতিতে ভেঙে পড়েছে রীতার পরিবার ৷ মৃতার পরিবারের অভিযোগ, খুন না করলে কেন তড়িঘড়ি তাহলে মৃতদেহ লোপাটের চেষ্টা করছিলেন সুমনের বাড়ির লোকজন? ইতিমধ্যেই এ বিষয়ে বারুইপুর থানায় খুনের অভিযোগ দায়ের করেছেন রীতার বাপের বাড়ির লোকেরা। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে মৃতার স্বামী সহ মোট তিনজনকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে বারুইপুর থানার পুলিশ।

    First published:

    লেটেস্ট খবর