• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • Mamata Banerjee on Deucha Pachami: সিঙ্গুরের মতো জোর খাটানো হবে না ডেউচা পাচামিতে, বিধানসভায় ঘোষণা মমতার

Mamata Banerjee on Deucha Pachami: সিঙ্গুরের মতো জোর খাটানো হবে না ডেউচা পাচামিতে, বিধানসভায় ঘোষণা মমতার

ডেউচা পাচামি নিয়ে আশ্বস্ত করলেন মুখ্যমন্ত্রী৷

ডেউচা পাচামি নিয়ে আশ্বস্ত করলেন মুখ্যমন্ত্রী৷

* জোর করে নয় অধিগ্রহণ জানিয়ে দিল রাজ্য সরকার। কাজ হবে সকলের সাথে কথা বলেই। 

  • Share this:

#কলকাতা: ডেউচা পাচামি প্রকল্প নিয়ে সাবধানী রাজ্য সরকার। এই খনি প্রকল্প নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee on Deucha Pachami Project) সরকার কোনও ধরনের জেদাজেদিতে যাবে না। রাজ্য সরকার জানিয়ে দিয়েছে, সকলের আস্থা অর্জন করেই শিল্প স্থাপনে উদ্যোগী হবে।

মঙ্গলবার বিধানসভায় রাজ্যে শিল্প স্থাপন প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে মমতা (Mamata Banerjee) বুঝিয়ে দেন, ডেউচা- পাচামিকে সিঙ্গুর হতে দেবে না রাজ্য সরকার৷ মুখ্যমন্ত্রী  বলেন, ‘‘এখানে সিঙ্গুরের (Singur) মতো জেদাজেদি হবে না। সকলের আস্থা অর্জন করেই শিল্প স্থাপনের কাজ হবে। রাজ্য সরকার পুনর্বাসনের প্যাকেজ ঘোষণা করেছে৷ তার পরে কারও কোনও বক্তব্য থাকলে তা শোনা হবে। এখানে কোনও ইগোর ব্যাপার নেই। প্রকল্প রূপায়িত হলে বিদ্যুতের দাম কমে যাবে। রাজ্যের মানুষের সুবিধা হবে।’’

আরও পড়ুন: 'একলা চলো' না 'জোট'? পুরভোটে বাম-কংগ্রেস 'বন্ধুত্ব' প্রশ্নে মতানৈক্য স্পষ্ট বামফ্রন্টে...

প্রসঙ্গত, অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় সহ বেশ কয়েকজনকে নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। যাঁরা ডেউচা পাচামির কয়লা খনি প্রকল্পের জন্য জমির মালিকদের সঙ্গে কথা বলবেন। প্রকল্প রূপায়ণ নিয়ে এলাকার মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ বজায় রাখবেন।

এর আগে, ডেউচা পাচামিতে জমি অধিগ্রহণ নিয়ে স্থানীয়দের একাংশের মধ্যে খানিক অসন্তোষ তৈরি হয়েছিল। প্রকল্প যে অঞ্চলে রূপায়িত হবে, তার একটি বড় অংশে আদিবাসীদের বাস। এই প্রকল্প নিয়ে রাজ্যের প্রাক্তন  মুখ্যসচিব রাজীব সিংহ মহম্মদ বাজারে বৈঠক করেছিলেন। সেই বৈঠকে আদিবাসীরা একটি স্মারকলিপিও জমা দিয়েছিলেন। এর মধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর বিধানসভার ঘোষণা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ। তবে মুখ্যমন্ত্রীর এই প্যাকেজ ঘোষণার পর ডেউচা পাচামির বাসিন্দাদের একাংশ জানিয়েছেন, সরকারের প্যাকেজ ভাল করে দেখার পরই যাবতীয় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন: 'বাজে বকে, কাজ করে না!' বিধায়কদের শপথ বয়কট বিজেপি-র, তীব্র কটাক্ষ করলেন মমতা

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ‘‘ডেউচা পাচামি হল বীরভূম জেলার মহম্মদবাজার হরিণসিংহ কোল ব্লক। এখানে ৩ হাজার ৪০০ একর জমির মধ্যে ১ হাজার ১৭৮ মিলিয়ন হেক্টর জমির তলায় কয়লা, ১ হাজার ১৪৮ মিলিয়ন হেক্টর ব্যাসল্ট জমা রয়েছে। এই ৩ হাজার ৪০০ একরের মধ্যে এক হাজার একর সরকারি জমি। আমরা আগে সরকারি জমিতে কাজ শুরু করব। তার পর ধাপে ধাপে অন্যান্য জায়গায় জমি নেওয়া হবে।’’

রাজ্য সরকারের থেকে প্রাপ্ত তথ্য বলছে, ডেউচা পাচামি এলাকাটিতে ১২টি গ্রামে ৪ হাজার ৩১৪টি বাড়িতে ২১ হাজারের বেশি মানুষ বাস করেন। যার মধ্যে ৩ হাজার ৬০০ জন তফসিলি জাতি এবং ৯ হাজার ৩৪টি তফশিলি উপজাতির মানুষ রয়েছেন। বিপুল কয়লা জমা থাকায় এই এলাকা দেশের সবচেয়ে বড় কোল ব্লকগুলির মধ্যে অন্যতম। এখান থেকে উত্তোলিত কয়লা শুধু জেলা নয়, রাজ্য ও দেশের অর্থনীতির উন্নতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে চলেছে। এর ফলে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে এক লক্ষের বেশি মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

এই প্রকল্পে রাজ্য সরকার ৩৫ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করছে। এর মধ্যে ১০ হাজার কোটি টাকা ত্রাণ ও পুর্নবাসন প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ থাকছে। রাজ্য সরকার সূত্রে খবর, প্রথম ধাপে কাজ হবে দেওয়ানগঞ্জে। সেখানে কম গভীরতায় কয়লা রয়েছে। সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে কাজ হবে বলে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি জমিহারাদের আকর্ষণীয় প্যাকেজ এবং উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন দেওয়া হবে। তাঁদের জমি, বাড়ি এবং পরিবারের এক জনকে চাকরি দেওয়া হবে। যাঁদের ওই এলাকায় বাড়ি-সহ জমি রয়েছে, তাঁরা বিঘা প্রতি ১০ থেকে ১৩ লক্ষ টাকা পাবেন। এ ছাড়াও স্থানান্তরকরণের জন্য পাবেন পাঁচ লক্ষ টাকা। কলোনিতে পাবেন ৬০০ বর্গ ফুটের বাড়ি।

যে সব পরিবার বাড়ি জমি হারাবে, তাদের একজন করে সদস্য চাকরি পাবেন। এমন চাকরি পাবেন ৪ হাজার ৯৪২ জন। প্রায় ৩ হাজার জন শ্রমিক, যাঁরা পাথরভাঙার কাজ করেন, তাঁরা ভরনপোষনের জন্য এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা পাবেন। ওই এলাকায় ১৬০ জন কৃষি শ্রমিক ৫০ হাজার টাকা পাবেন। ৫০০ দিনের জন্য ১০০ দিনের কাজ পাবেন। ২৮৫ জন পাথর ভাঙার যন্ত্রের মালিক তাঁদের জমি ও পরিকাঠামোর দাম এবং ৫০ হাজার টাকা পাবেন অন্যত্র কাজ সরিয়ে নেওয়ার ক্ষতিপূরণ বাবদ।ছয় মাস ধরে ১০ ট্রাক ব্যাসল্ট বিনামূল্যে পাবেন।

সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, কয়লা খনি প্রকল্পের কাছেই চাঁদা মৌজায় ব্যাসল্ট শিল্প উদ্যানের পুনর্গঠন হবে। ২৭ জন খাদান মালিক জমি ও বাড়ির দাম পাবেন।আপাতত এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে রাজ্যের তরফে। সূত্রের খবর, শীঘ্রই প্রশাসনিক আধিকারিকদের একটি দল এলাকায় পরিদর্শন করতে পারেন।

Published by:Debamoy Ghosh
First published: