হোম /খবর /কলকাতা /
ট্রলির মধ্যে বিবস্ত্র অবস্থায় ছিল দেহ, পরিচিতরাই কি খুন করেছে? ধোঁয়াশায় পুলিশ

ট্রলির মধ্যে বিবস্ত্র অবস্থায় ছিল দেহ, পরিচিতরাই কি খুন করেছে? ধোঁয়াশায় পুলিশ

  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: প্রথমে ভারী কিছু দিয়ে মাথায় আঘাত। তারপর শ্বাসরোধ। ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট অনুযায়ী, এভাবেই খুন করা হয়েছে নরেন্দ্রপুরের বিশ্বাস দম্পতিকে। কিন্তু, কারা খুন করল? পরিচিত কেউ? খুনের উদ্দেশ্যই বা কী? এ সব নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা।

    নরেন্দ্রপুরের কেয়ারটেকার দম্পতিকে কারা খুন করল? কেন খুন করল? এ সবের উত্তর এখনও পুলিশের অধরা। তবে, কীভাবে খুন করা হয়েছে, সেটা অনেকটাই স্পষ্ট। ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট অনুযায়ী, গত রবিবার রাত দুটোর পরে খুন করা হয়। প্রথমে খুন করা হয় প্রদীপ বিশ্বাসকে। তারপর তাঁর স্ত্রী আলপনাকে। দু’জনকেই প্রথমে মাথায় আঘাত করা হয়। তারপর শ্বাসরোধ করে খুন

    আলপনার দেহ উদ্ধারের সময় দেখা গিয়েছে তাঁর হাত বাঁধা ছিল। গলায় ছিল গামছার ফাঁস। তদন্তকারীদের অনুমান, চার অথবা তার বেশি দুষ্কৃতী হামলা চালায়। কারণ, একাধিক ব্যক্তির হাতের ছাপ মিলেছে।পুলিশের অনুমান, পরিচিত কেউ এই খুন করে থাকতে পারে। কারণ, বাড়িতে ঢোকার কোনও দরজাই ভাঙা ছিল না। পরিচিত কাউকে দেখেই কি তা হলে দরজা খুলে দেন দম্পতি? খতিয়ে দেখছে পুলিশ। তদন্তকারীদের অনুমান, আততায়ীদের সঙ্গে ধস্তাধস্তিও হয়েছিল। তাই ঘরে বিভিন্ন জিনিস লণ্ডভণ্ড অবস্থায় মিলেছে।পুলিশের অনুমান, তদন্তের অভিমুখ ঘোরাতে শুধুমাত্র একটি টিভি আততায়ীরা নিয়ে যায়। অথচ, আলমারিতে রাখা নগদ টাকায় হাত দেয়নি। তা হলে কী কারণে খুন? নরেন্দ্রপুরের এই বাগানবাড়ির জমিতে কারখানা তৈরির কথা চলছিল। সেই সূত্রে কোনও বিবাদ থেকেই কি খুন?

    • নরেন্দ্রপুরের এই বাগানবাড়ির মালিক দীপঙ্কর দত্ত রুবি এলাকার বাসিন্দা

    • মাঝেমধ্যে তিনি পরিবার নিয়ে এই বাগানবাড়িতে থাকেন

    • এছাড়া, শীতকালে পিকনিকের জন্য এটি ভাড়া দেওয়া হয়।

    • কেয়ারটেকার দম্পতি বাগানবাড়ির মালিকের দূরসম্পর্কের আত্মীয়ও হন

    • ১৯৯৭ সাল থেকে তাঁরা এই কাজ করছিলেন।

    • এখন তাঁরা মাসে হাজার পাঁচেক টাকা বেতন পেতেন।

    • এই বেতনে তাঁরা মাঝেমধ্যেই কীভাবে বেড়াতে যেতেন, এই বিষয়টিও ভাবাচ্ছে পুলিশকে।

    দুজনেরই মোবাইল ফোনের হদিশ মেলেনি। তবে, তদন্তকারীরা কল ডিটেলস রিপোর্ট বের করছেন। সেখান থেকে কোনও সূত্র মিলতে পারে বলে তাঁরা আশাবাদী। ইতিমধ্যেই, মৃতের পরিজন এবং বাগানবাড়ির মালিক-সহ জনা দশেককে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার, নরেন্দ্রপুরের এই বাগানবাড়ির বাথরুম থেকে বিশ্বাস দম্পতির বিবস্ত্র দেহ উদ্ধার হয়। দুটি দেহই ট্রলিব্যাগে ভরা ছিল।

    First published:

    Tags: Kolkata Police, Narendrapur murder case