Oxygen Crisis: ছোট সিলিন্ডার ২০ হাজার, বড় ৪০! খাস কলকাতায় অক্সিজেনের কালোবাজারি ফাঁস

Oxygen Crisis: ছোট সিলিন্ডার ২০ হাজার, বড় ৪০! খাস কলকাতায় অক্সিজেনের কালোবাজারি ফাঁস

বাজেয়াপ্ত খালি সিলিন্ডার

ইতিমধ্যেই কালোবাজারি রুখতে উদ্যোগী হয়েছে কলকাতা পুলিশ। নজরদারিতে গড়া হয়েছে বিশেষ দল। রবিবার সেই সূত্রেই উত্তর কলকাতার মানিকতলা থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার কালোবাজারি চক্রের হদিশ পেল কলকাতা পুলিশের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ (EB)।

  • Share this:

    #কলকাতা: করোনা সংক্রমণের (Coronavirus) দ্বিতীয় ঢেউ বিদ্যুৎ গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে। গোটা দেশজুড়েই অক্সিজেনের (Oxygen) চাহিদা তুঙ্গে। একটু অক্সিজেনের জন্যই হাহাকার সর্বত্র। এই সুযোকেই কাজে লাগিয়ে কলকাতায় এক শ্রেণির ব্যবসায়ীরা অক্সিজেন সিলিন্ডারের দাম ইচ্ছেমত হাঁকছেন। শুরু হয়েছে ব্যাপক কালোবাজারি। আর সাধারণ মানুষের অসহায়তার সুযোগ নিয়ে মুনাফা লুটছেন কালোবাজারিরা। ইতিমধ্যেই কালোবাজারি রুখতে উদ্যোগী হয়েছে কলকাতা পুলিশ। নজরদারিতে গড়া হয়েছে বিশেষ দল। রবিবার সেই সূত্রেই উত্তর কলকাতার মানিকতলা থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার কালোবাজারি চক্রের হদিশ পেল কলকাতা পুলিশের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ (EB)।

    মানিকতলার বিধান সরণীতে ইবি-র অভিযানে ধরা পড়েছে ৫২ কোজি ওজনের ১৩টি খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১৫ কেজি ওজনের ২টি খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার। জেরায় ওই চক্রের চাঁইরা জানিয়েছে, ছোট অক্সিজেন সিলিন্ডারগুলি ১৮-২০ হাজার টাকায় বিক্রি করা হত, আর বড়গুলি দাম ছাড়িয়ে যেত ৩৫ হাজার টাকা। যদিও বাজেয়াপ্ত করা অক্সিজেন সিলিন্ডারগুলি সবকটিই খালি ছিল। লাইসেন্স নিয়ে সংস্থার মালিককে তলব করা হয়েছে।

    প্রসঙ্গত, অক্সিজেনের কালোবাজারি রুখতে কলকাতা পুলিশের ইনটেলিজেন্স ব্রাঞ্চের পক্ষ থেকে তৈরি করা হয়েছে একটি বিশেষ টিম। ওই টিমে রয়েছেন ৮ জন ইবি'র গোয়েন্দা আধিকারিক ও পুলিশকর্মী। অক্সিজেন সিলিন্ডার কালোবাজারির চেষ্টা করলে সঙ্গেসঙ্গে গ্রেফতার করা হবে বলে জানিয়েছেন ইনটেলিজেন্স ব্রাঞ্চের আধিকারিকরা।

    এদিকে, কলকাতায় রোগীদের কাছে দ্রুত অক্সিজেন পৌঁছে দিতে গ্রিন করিডর করছে কলকাতা পুলিশ। এই জন্য দু’টি নম্বরও দেওয়া হয়েছে কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে। নম্বর দুটি হল- ০৩৩২২৫০৫০৯৬/০৩৩২২১৪৩৬৪৪। এই নম্বরে ফোন করলেই পৌঁছে যাবে ফোর্স।

    Published by:Suman Biswas
    First published: