corona virus btn
corona virus btn
Loading

বাংলার বিধ্বস্ত এলাকায় নামবে সেনা, নবান্নের সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ রাজ্যপালের

বাংলার বিধ্বস্ত এলাকায় নামবে সেনা, নবান্নের সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ রাজ্যপালের
রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

ভয়ঙ্কর দুর্যোগে সম্পূর্ণ তছনছ হয়ে যাওয়া রাজ্যকে স্বাভাবিক ছন্দে ফেরাতে এবার সেনার সাহায্য চাইল রাজ্য সরকার ৷

  • Share this:

#কলকাতা: আমফানের দাপটে ছারখার রাজ্য ৷ রাজ্যকে স্বাভাবিক ছন্দে ফেরাতে এবার সেনার সাহায্য চাইল রাজ্য সরকার ৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের এই সিদ্ধান্তের প্রশংসায় পঞ্চমুখ রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় ৷ ট্যুইট করে রাজ্য সরকারকে এই পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানিয়েছেন রাজ্যপাল ৷

শনিবার স্বরাষ্ট্র দফতরের তরফে ট্যুইট করে সেনা তরফে সাহায্য চাওয়া হয় ৷ এর পরেই ট্যুইট করে রাজ্যপাল লেখেন, রাজ্য সরকার সেনার থেকে সাহায্য ও সহযোগিতা চেয়েছে ৷ এই পদক্ষেপ সত্যিই প্রশংসনীয় ৷ জনগণের কাছে এই কঠিন সময়ে ধৈর্য রাখার ও শান্ত থাকার অনুরোধ ৷ প্রশাসন যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বিদ্যুত সহ সমস্ত পরিষেবা স্বাভাবিক করার চেষ্টা চালাচ্ছে ৷

৭২ ঘণ্টারও বেশি সময় কেটে গিয়েছে ৷ ধ্বংস লীলা চালিয়ে বিদায় নিয়েছে আমফান ৷ ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া বাংলার জেলাগুলি এখনও গুণে চলেছে শুধুই ক্ষয়ক্ষতির খতিয়ান ৷ ভয়ঙ্কর দুর্যোগে সম্পূর্ণ তছনছ হয়ে যাওয়া রাজ্যকে স্বাভাবিক ছন্দে ফেরাতে এবার সেনার সাহায্য চাইল রাজ্য সরকার ৷

এদিন স্বরাষ্ট্র দফতরের তরফে ট্যুইট করে সেনার সঙ্গে সঙ্গে রেল ও পোর্টকেও এগিয়ে আসতে আহবান জানানো হয়েছে ৷ বিভিন্ন দফতর থেকে কর্মী ও জিনিসপত্র পাঠানোর আবেদন স্বরাষ্ট্র দফতরের ৷ রাজ্যের এরকম বিপর্যয়ে ২৪ ঘণ্টা নাওয়া খাওয়া ভুলে কাজ করে চলেছেন কর্মীরা ৷ তবুও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে অনেক সময়ের প্রয়োজন ৷ সেই কারণেই এরকম অসহায় পরিস্থিতিতে আরও কর্মীর জন্য সেনার কাছে সাহায্য চেয়েছে রাজ্য বলে জানা গিয়েছে ৷ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে ভারতীয় রেল ও পোর্টকেও ৷

দুই ২৪ পরগণা সহ কলকাতা আমফানের দাপটে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত ৷ জায়গায় জায়গায় গাছ উপড়ে গিয়েছে ৷ ধ্বংস লক্ষাধিক বাড়ি ৷ নষ্ট মাঠের লক্ষ লক্ষ টাকার ফসল ৷ গ্রামাঞ্চলে তো দূরে খাস কলকাতা শহরেই বহু এলাকায় এখনও বিদ্যুত সংযোগ ফেরেনি ৷ আমফানে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা৷ মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, শুধুমাত্র দক্ষিণ চব্বিশ পরগণা জেলাতেই ১০ লক্ষ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ৭৬ লক্ষ মানুষ৷ উপড়ে গিয়েছে ৪১ হাজারের বেশি বিদ্যুতের খুঁটি৷ ৫৬টি নদীবাঁধও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ তার উপরে, আরও ৩২টি নদী বাঁধে ফাটল ধরেছে বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ জেলার ৩.২ লক্ষ মৎস্যজীবীও আমফানের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন৷

Published by: Elina Datta
First published: May 23, 2020, 6:14 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर