corona virus btn
corona virus btn
Loading

টানা তিনদিন না ঘুমিয়ে কাজ করছি, এখন রাজনীতি করতে হলে মাথা কেটে নিন, গুলি করুন আমায়: মুখ্যমন্ত্রী

টানা তিনদিন না ঘুমিয়ে কাজ করছি, এখন রাজনীতি করতে হলে মাথা কেটে নিন, গুলি করুন আমায়: মুখ্যমন্ত্রী

বিরোধীদের তির্যক মন্তব্যে বিব্রত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ এমন বিপর্যয়ের পরিস্থিতিতে রাজনীতি বরদাস্ত করতে না পেরে ক্ষোভ উগরে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

  • Share this:

#কলকাতা: আমফানের দাপটে ছারখার রাজ্য ৷ ৭২ ঘণ্টারও বেশি সময় কেটে গিয়েছে ৷ ধ্বংস লীলা চালিয়ে বিদায় নিয়েছে আমফান ৷ ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া বাংলার জেলাগুলি এখনও গুণে চলেছে শুধুই ক্ষয়ক্ষতির খতিয়ান ৷ ভয়ঙ্কর দুর্যোগে সম্পূর্ণ তছনছ হয়ে যাওয়া রাজ্যকে স্বাভাবিক করতে ঘুম নাওয়া খাওয়া ভুলে কাজ করে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও সরকারের দফতরের সমস্ত কর্মীরা ৷ সকলের একটাই লক্ষ্য, ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া রাজ্যকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব স্বাভাবিক জনজীবন ও পরিষেবা ফিরিয়ে দেওয়া ৷ এর মধ্যে বিরোধীদের তির্যক মন্তব্যে বিব্রত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ এমন বিপর্যয়ের পরিস্থিতিতে রাজনীতি বরদাস্ত করতে না পেরে ক্ষোভ উগরে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

শনিবার নবান্নে দাঁড়িয়ে সাংবাদিক বৈঠকে এমন পরিস্থিতিতে শাসক-বিরোধীদের রাজনীতি নিয়ে রাগ চেপে রাখতে না পেরে বলেন, ‘করোনা, পরিযায়ী শ্রমিক তার মধ্যে আমফান ৷ ১৯৩৭ সালের এমন ভয়ানক ঘূর্ণিঝড় প্রথম দেখছে বাংলা ৷ ধ্বংসস্তূপ থেকে জীবনে ফিরিয়ে দিতে গত বুধবার থেকে আমরা নিরন্তর কাজ করে চলেছি ৷ আমি ও আমার টিম কেউ তিনদিন ঘুমোয়নি ৷ দিন রাত কাজই করে চলেছি ৷ এমন পরিস্থিতিতে দয়া করে রাজনীতি করবেন না ৷ ’ এখানেই শেষ নয়, বিরোধীদের উদ্দেশে কখনও অনুরোধ তো কখনও উষ্মা প্রকাশ ৷ বিরোধীদের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রীর বার্তা, এখন কদিন রাজনীতি না হয় বন্ধ রাখুন ৷ ভোট আসলে যত খুশি আমার বিরুদ্ধে রাজনীতি করবেন ৷ এখন ক্ষান্ত হন ৷ উস্কানি দেবেন না ৷ এই পরিস্থিতিতেও রাজনীতি করতে হলে কাজ করতে না দিতে হলে বরং আমাকে গুলি করুন, নইলে আমার মাথা কেটে নিন ৷’ ২০০৯-এর কথা মনে করিয়ে দিতে বিরোধীদের তিনি বলেন, আয়লার সময়ে আমরা রাজ্য সরকারের সহযোগিতা করেছিলাম,রাজনীতি করিনি ৷ এখন আপনারাও দয়া করে তা করবেন না ৷

এদিন মুখ্যমন্ত্রী কাকদ্বীপের ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা ঘুরে দেখেন৷ দুই ২৪ পরগণা সহ কলকাতা আমফানের দাপটে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত ৷ জায়গায় জায়গায় গাছ উপড়ে গিয়েছে ৷ ধ্বংস লক্ষাধিক বাড়ি ৷ নষ্ট মাঠের লক্ষ লক্ষ টাকার ফসল ৷ গ্রামাঞ্চলে তো দূরে খাস কলকাতা শহরেই বহু এলাকায় এখনও বিদ্যুত সংযোগ ফেরেনি ৷ আমফানে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা৷ মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, শুধুমাত্র দক্ষিণ চব্বিশ পরগণা জেলাতেই ১০ লক্ষ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ৭৬ লক্ষ মানুষ৷ উপড়ে গিয়েছে ৪১ হাজারের বেশি বিদ্যুতের খুঁটি৷ ৫৬টি নদীবাঁধও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ তার উপরে, আরও ৩২টি নদী বাঁধে ফাটল ধরেছে বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ জেলার ৩.২ লক্ষ মৎস্যজীবীও আমফানের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন৷

Published by: Elina Datta
First published: May 23, 2020, 10:42 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर