Home /News /kolkata /
Boubazar Tragedy: অঙ্ক কষছিল ছোট্ট ছেলে, পরদিন পরীক্ষা! ১০ মিনিটে বদলে গেল বাড়ির ঠিকানা

Boubazar Tragedy: অঙ্ক কষছিল ছোট্ট ছেলে, পরদিন পরীক্ষা! ১০ মিনিটে বদলে গেল বাড়ির ঠিকানা

Boubazar Tragedy: পরদিন পরীক্ষা ছিল একরত্তির। তখনও সে বোঝেনি, রাতারাতি তাঁর মাথার ছাদটাই চলে যাবে।

  • Share this:

ওঙ্কার সরকার, কলকাতা: মাত্র ১০ মিনিট হাতে। অঙ্ক পরীক্ষার আগের রাতে বাবা মায়ের হাত ধরে ঠিকানা পরিবর্তন। দেওয়া হল না পরীক্ষা।

সাউ পরিবার স্বচ্ছল মধ্যবিত্ত। ঠিকানা ১৯ নম্বর দূর্গাপিতুরি লেন। পরিবারে রয়েছেন ৬ জন সদস্য। দুর্গা পিতুরি লেনের অন্য পরিবারের মতো বুধবার রাতে আচমকা মাথায় ভেঙে পড়ে আকাশ।

২০১৯ সালের পর ফের একবার বাড়ি ছাড়া হতে হল পুরো পরিবারকে। পরিবারে ২ জন প্রবীণ নাগরিক যেমন রয়েছেন, তেমন খুদে সদস্যও রয়েছে ২ জন।

আরও পড়ুন- ''দোকানে তালা ঝুলছে, কাল কী হবে? কোথায় যাব?'' হাহাকার বৌবাজারের সোনা ব্যবসায়ীর

নিকুঞ্জ সাউ। বয়স ১০ বছর। সেন্ট পলস স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্র। তাদের স্কুলে চলছে পরীক্ষা। বৃহস্পতিবার ছিল অঙ্ক পরীক্ষা। বুধবার সন্ধ্যায় অঙ্ক কষতে কষতেই  মাত্র ১০ মিনিটের নোটিসে বাবা মার হাত ধরে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে এসেছে নিকুঞ্জ।

মুহূর্তের মধ্যে ১৯ নম্বর দুর্গা পীতুরি লেনের ঠিকানা বদলে হয়ে যায় ৩ নম্বর ক্রিক রো। ক্রিক রোর এক হোটেলের ৪ তলার একটি ঘর এখন তার ঠিকানা।

দীর্ঘ প্রায় ২ বছর করোনা ভাইরাসের প্রকোপে ছিল স্কুল বন্ধ। এতদিন পর সব শিশুদের মতো সবে স্কুল যাওয়া শুরু করেছিল নিকুঞ্জ। পরীক্ষার জন্যে প্রস্তুতি নিয়েছিল। কিন্তু স্কুলের টার্ম পরীক্ষা তার আর দেওয়া হল না।

নিকুঞ্জের ঠাকুমা ছবি সাউ জানাচ্ছেন, আমাদের তো যেমন তেমন ভাবে জীবন কেটেছে। কিন্তু বাচ্চার ভবিষ্যত কী হবে? আজ তো পরীক্ষাটা দিতেই পারল না আমার নাতি। আমরা খুব আতঙ্কে আছি। আগেরবার তো বলেছিল আর কিছু হবে না, ফের নিজের বাড়ি ছাড়তে হল আমাদের।

পরিবারের যেমন রয়েছে নিজের বাড়ি হারানোর যন্ত্রণা, একই সঙ্গে রয়েছে আতঙ্ক। তাঁদের এই নিয়ে দুবার ঘর ছাড়া হতে হয়েছে। এবার কবে বাড়ি ফিরতে পারবেন, সেই আতঙ্ক গ্রাস করছে প্রতি মুহূর্তে।

আরও পড়ুন- '' বাড়িতে বাচ্চা, অসুস্থ বয়স্ক মানুষ, আমাদেরও বাড়ি ছাড়তে হলে?''

একইসঙ্গে, আগামিদিনে মেট্রো রেল চালু হলে বাড়িটা থাকবে তো? সেই  চিন্তার শেষ নেই বাড়ি ছেড়ে হোটেলে থাকা পরিবার গুলোর। ক্রিক রো এই হোটেলের ১০টি ঘরে ৭টি পরিবারের ৩০ জন সদস্য আশ্রয় নিয়েছেন। ২০১৯ সালে ৩ মাস থাকতে হয়েছিল বাড়ি ছেড়ে, এবার কত দিন? সেই প্রহর গুনছেন দুর্গা পিতুরী লেনের এই পরিবারগুলি।

Published by:Suman Majumder
First published:

Tags: Boubazar, Bowbazar metro

পরবর্তী খবর