Home /News /kolkata /
Park Circus Firing Update: ঠান্ডা চাউনি, হঠাৎ মাথায় বন্দুক ঠেকালো পুলিশকর্মী! পার্ক সার্কাসে এক চুলের জন্য বাঁচল বিহারের ছাত্র

Park Circus Firing Update: ঠান্ডা চাউনি, হঠাৎ মাথায় বন্দুক ঠেকালো পুলিশকর্মী! পার্ক সার্কাসে এক চুলের জন্য বাঁচল বিহারের ছাত্র

আহত মহম্মদ সরফরাজ এবং আত্মঘাতী কনস্টেবল চড়ুপ লেপচা (ডানদিকে)৷

আহত মহম্মদ সরফরাজ এবং আত্মঘাতী কনস্টেবল চড়ুপ লেপচা (ডানদিকে)৷

সরফরাজের পরিবারের সদস্যরা জানাচ্ছেন, মাত্র চারদিন আগেই কলকাতার আলিমুদ্দিন স্ট্রিটে মামাবাড়িতে এসেছিল সে৷

  • Share this:

#কলকাতা: রাস্তা দিয়ে যেতে যেতে হঠাৎই মাথায় বন্দুক ঠেকালেন এক পুলিশকর্মী৷ মাত্র চারদিন আগে বিহার থেকে কলকাতায় আসা বছর ঊনিশের মহম্মদ সরফরাজ প্রথমে ভেবেছিল, হয়তো তাঁর সঙ্গে মজা করছেন ওই পুলিশকর্মী৷

কিন্তু কলকাতা পুলিশের সশস্ত্র বাহিনীর কনস্টেবল চড়ুপ লেপচার শীতল চাউনি দেখেই অন্যরকম ঠেকেছিল সরফরাজের৷ তার দিকে তাক করা ইনসাসের নল এড়িয়ে প্রাণভয়ে ছুটতে শুরু করে সে৷

আরও পড়ুন: পরিবারের হাল ধরেছিলেন, কনস্টেবলের গুলিতে লড়াই শেষ হাওড়ার রিমার

পরের মুহূর্তেই সরফরাজকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় কলকাতা পুলিশের ওই কনস্টেবল৷ কিন্তু বরাতজোরে গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়৷ রাস্তায় দাঁড়ানো একটি গাড়ির গায়ে লাগে গুলিটি৷ সেই অভিঘাতেই বারুদের আগুনে আঘাত লাগে সরফরাজের বাঁ হাতে৷ কোনওক্রমে বন্ধুর গ্যারেজে ঢুকেই সংজ্ঞা হারায় সে৷

শুক্রবার সন্ধ্যায় এসএসকেএম হাসপাতালের ট্রমা কেয়ার সেন্টারে বাইরে ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে শিউরে উঠছিল এবার বিহারের দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা দেওয়া সরফরাজ৷ কলকাতায় মামাবাড়িতে ঘুরতে এসে যে এমন অভিজ্ঞতা হবে, দুঃস্বপ্নেও ভাবতে পারেনি সে৷

আরও পড়ুন: হাতে ইনসাস, তাণ্ডবের আগে সিঁড়ি দিয়ে নামছেন সেই কনস্টেবল, দেখুন ভিডিও

সরফরাজের পরিবারের সদস্যরা জানাচ্ছেন, মাত্র চারদিন আগেই কলকাতার আলিমুদ্দিন স্ট্রিটে মামাবাড়িতে এসেছিল সে৷ এ দিন দুপুরে সেখান থেকেই পার্ক সার্কাস চত্বরে এক বন্ধুর গ্যারেজে যাচ্ছিল সে৷ তখনই লোয়ার রেঞ্জ রোডে কলকাতা পুলিশের সশস্ত্র বাহিনীর কনস্টেবল চড়ুপ লেপচার মুখোমুখি পড়ে যায় সে৷ যার গুলিতে এ দিন প্রাণ হারিয়েছেন হাওড়ার বাসিন্দা রিমা সিং নােম এক তরুণী৷ আহত হয়েছেন সরফরাজ ছাড়াও মহম্মদ বসির আলম নামে এক ব্যক্তি৷ পরে নিজেই আত্মঘাতী হন ওই কনস্টেবল৷

ঘটনার পর সরফরাজকে প্রথমে অ্যাম্বুল্যান্সে চাপিয়ে প্রথমে ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যায় তার বন্ধুরা৷ সেখান থেকে তাঁকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ যদিও চোট গুরুতর না হওয়ায় সন্ধ্যায় সরফরাজকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়৷ মামাবাড়ি ঘুরতে এসে বরাতজোরে প্রাণ বাঁচিয়ে বাড়ির ফিরছে এই ছাত্র৷

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

Tags: Kolkata Police, Park Circus

পরবর্তী খবর