এশিয়ান পেইন্টস শারদ সম্মান 2019: শিল্পী যেথা মননশীল সেথা শিল্পের জয়

এশিয়ান পেইন্টস শারদ সম্মান 2019: শিল্পী যেথা মননশীল সেথা শিল্পের জয়

আজ থেকে একশো বছর আগে কলকাতা শহরে বারোজন বন্ধু মিলে ঘরের দালান থেকে বেরিয়ে বারোয়ারি পূজোর সূত্রপাত ঘটায় যেখানে দূর্গা আরাধনা হয়ে উঠলো পাড়ার সম্মিলিত আরাধনা এবং সংস্কৃতির অটুট মেলবন্ধন।

  • Share this:

#কলকাতা: আজ থেকে একশো বছর আগে কলকাতা শহরে বারোজন বন্ধু মিলে ঘরের দালান থেকে বেরিয়ে বারোয়ারি পূজোর সূত্রপাত ঘটায় যেখানে দূর্গা আরাধনা হয়ে উঠলো পাড়ার সম্মিলিত আরাধনা এবং সংস্কৃতির অটুট মেলবন্ধন।

আজ থেকে একটু 35 বছর আগের পাতা উল্টিয়ে দেখা যাক: সাল 1985- বিজ্ঞাপন জগতের তিন মহারতি ডেরেক ও ব্রেন, সুমিত রায় এবং কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় ও এশিয়ান পেইন্টস এর যৌথ উদ্যোগে বারোয়ারি পূজোর শিল্পের শ্রেষ্ঠত্বকে সর্বসমক্ষে তুলে ধরতে শুরু হলো শারদ সম্মান, যেখানে শ্রেষ্ঠ পূজো, বছরের বিস্ময়, শ্রেষ্ঠ প্রতিমা শিল্পী এবং বিশেষ সম্মানের মত বিষয় নিয়ে শারদীয়ার সঙ্গে জড়িত শিল্পকে উৎসাহ প্রদান করার রীতি বুনন শুরু হলো। 1985 সালে সূচনাপর্ব থেকে এশিয়ান পেইন্টস শারদ সম্মান দেখতে দেখতে 35 বছরে পা দিলো।

এশিয়ান পেইন্টস শারদ সম্মান ২০১৯ এই প্রচলিত রীতির বর্তমান সংকলন এবং আজও শিল্প এবং সংস্কৃতির মেলবন্ধনের সমাদরে উঠে এলো বেশ কয়েকটি নাম –

শ্রেষ্ঠ পূজো

A 1

Loading...

টালা পার্ক প্রত্যয়

থিমের শিল্পী: সুশান্ত পাল

প্রতিমা শিল্পী: সুব্রত কর্মকার

থিম: কল্পলোক

সীমিত এবং অসীমের দুর্দান্ত মেলবন্ধনে গড়ে ওঠা এই কারুকার্য কল্পলোকের অস্বাভাবিকতাকে অনন্য রূপ প্রদান করে। যাহাই সীমিত তাহাই অসীম- এ এক নতুন জগতের মুখে মানব মননকে ঠেলে দেয়। দেবীর মাতৃত্ববোধ এবং অশনি শক্তির বিনাশে তার অসীম শক্তিকে তুলে ধরার জন্য যথোপযুক্ত শিল্পের প্রয়োগ করা হয়েছে। শিল্পীকে কুর্ণিশ!

A2

নাকতলা উদয়ন সংঘ

থিমের শিল্পী: ভবতোষ সুতার

প্রতিমা শিল্পী: ভবতোষ সুতার

থিম: জন্ম

জন্ম হল কালের এক অপরূপ সৃষ্টি। জন্মের পর বিবিধ পর্যায়ে একটি জীব কালের নীয়মে বেড়ে ওঠে, কিন্তু ফিরে তাকায়না আর! মহিষাসুর আজ মায়ের কাছে দ্বিতীয় জন্মের জন্য অনুগ্রহ প্রার্থী! ১০০০০ মাটির পাত্র দ্বারা তৈরী এই থিম তার আলোক সজ্জার সাহায্যে জন্মের আইরনিকে তুলে ধরেছে নিখুঁত ভাবে।

A 3

বরিশা ক্লাব

থিমের শিল্পী: রিন্টু দাস

প্রতিমা শিল্পী: উদয় শঙ্কর মন্ডল(প্রভু)

থিম: মোবাইল টাওয়ারের ফলে পক্ষী এবং পরিবেশের ওপর নেমে আসা বিপদ

শিল্প যে মানবকল্যাণের লড়াইয়ে ব্যবহৃত একটি ধারালো অস্ত্র তা বরিশা ক্লাব প্রমাণ করে দিলো। কৃত্রিম মোবাইল নেটওয়ার্ক, অ্যান্টেনা এবং পাখির কঙ্কাল সহ কারুকার্যের ভিত্তিতে সামাজিক সচেতনতাকে এক ধাপ এগিয়ে দিলো এই থিম। মা দূর্গা মা ধরিত্রীই বটে, যিনি আজ সত্যই বিপদের মুখে! আমরা কি সক্ষম হবো তাকে রক্ষা করতে, নাকি তিনি সর্বশক্তি দ্বারা নিজেই নিজের রক্ষিনী? এই উত্তর বরিশা ক্লাবের কাছে।

বছরের বিস্ময়

a 4

ওয়েলিংটন নাগরিক কল্যাণ সমিতি

থিমের শিল্পী: দীপাঞ্জন দে

প্রতিমা শিল্পী: নবকুমার পাল

থিম: মিলনে মহান

দেবীর আরাধনা জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানব এবং কার্যের মেলবন্ধনে গড়ে ওঠা একটি রীতি। মানব মিলনই এই উৎসবের উৎকর্ষতা। আর “মিলনে মহান” হল এবারের ওয়েলিংটন নাগরিক কল্যাণ সমিতির মূল থিম। ফ্যান এবং রান্নাঘরের সামগ্রী দ্বারা গড়ে ওঠা থিম এখানকার বাজারের বিক্রেতা এবং কর্মীতের প্রতি সম্মান জ্ঞাপনের একটি অসাধারণ উদ্যোগ।

a5

সমাজসেবী সংঘ

থিমের শিল্পী: প্রদীপ দাস

প্রতিমা শিল্পী: পিন্টু সিকদার

থিম: কুর্ণিশ

সত্যিই কুর্ণিশ সেই সমস্ত মানুষদের প্রতি যারা প্রতিদিন নিজের ঘাম-রক্ত এক করে আমাদের পূজো সাফল্যমণ্ডিত করে তুলছেন, তুলে চলেছেন। সমাজসেবী সংঘ তাদের জানায় কুর্ণিশ এক অসাধারণ চিত্রায়ণের মাধ্যমে, যেখানে তুলে ধরা হয়েছে তাদের থাকা, খাওয়ার জায়গা, তাদের প্রতিদিনকার রোজনামচা, বিনোদনের বিবিধ চিত্র। দেবীর হাতে নেই কোনো অস্ত্র, তিনি শ্রমিকদের দ্বারা ব্যবহৃত সরঞ্জাম হস্তে, তাদের রোজকার ব্যবহৃত বস্ত্র পরিধান করে মানব কল্যাণে নিমজ্জিত।

শ্রেষ্ঠ প্রতিমা শিল্পী

a 7

সুরুচি সংঘ

থিমের শিল্পী: ভবতোষ সুতার

প্রতিমা শিল্পী: ভবতোষ সুতার

থিম: উৎসব

উৎসব আজ সকলের ঘরে ঘরে; মনে কি পৌঁছেছে? এই প্রশ্ন উত্তর পেতে অবশ্যই ঘুরে আসুন সুরুচি সংঘ। ২০০ ফিট বড় মেঘ ছেয়ে আছে প্যান্ডেলের ওপরে। শিল্পের এই ভাবনাকে কুর্ণিশ! এই পৃথিবীর সমস্ত উৎসবের মুলে রয়েছে দুটি মেরুর সহাবস্থান এবং একতা।

বিশেষ সম্মান

a8

ঠাকুরপুকুর স্টেট ব্যাংক পার্ক সার্বজনীন

থিমের শিল্পী: পার্থ দাশগুপ্ত

প্রতিমা শিল্পী: পার্থ দাশগুপ্ত (আল্পনাতে সহায়তাকারী সুধিরঞ্জন মুখার্জী)

থিম: আবাহনে আল্পনা

থিম সকল সাজ একদিকে আর আল্পনা অন্যদিকে- মন জয় করা কারুকার্য! রবীন্দ্র ভাবনা কে কাজে লাগিয়ে কিভাবে এই আরাধনা আরও জোরালো করা যায়, তা প্রমাণিত হলো।

First published: 04:32:23 PM Oct 07, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर