কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা ভীতি চলে গিয়েছে! সমীক্ষা বলছে ৬১% জনতা কেনাকাটায় আগ্রহী!

করোনা ভীতি চলে গিয়েছে! সমীক্ষা বলছে ৬১% জনতা কেনাকাটায় আগ্রহী!

করোনা অতিমারীর জেরে ক্রেতা থেকে বিক্রেতা সবারই মুখ চুন হয়ে গিয়েছিল একটা সময়ে। আদৌ কি জমবে এ বারের উৎসবের বাজার?

  • Share this:

#কলকাতা: উৎসবের মরশুম শুরু হয়ে গিয়েছে। দুর্গাপুজো, নবরাত্রি, দিওয়ালি থেকে ক্রিসমাস। কেনার এবং বেচার এটাই তো আদর্শ সময়। যদিও করোনা অতিমারীর জেরে ক্রেতা থেকে বিক্রেতা সবারই মুখ চুন হয়ে গিয়েছিল একটা সময়ে। আদৌ কি জমবে এ বারের উৎসবের বাজার?

জমবে মশাই, জমবে। লোকাল সার্কল বলে একটি সংস্থা জানাচ্ছে যে দেশের ৬১% জনতাই কেনাকাটায় ইচ্ছুক। এঁদের মধ্যে ৫১ শতাংশ জানিয়েছেন যে তাঁরা অনলাইনে কেনাকাটায় আগ্রহী, কারণ এতে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা সহজ হবে। ভারতের ৩৩০টি জেলার বিভিন্ন শহরে প্রায় তিন লক্ষ ক্রেতার উপর এই সার্ভে করা হয়েছে। আরও একটি বিষয় লক্ষ্য করার মতো। আগের বছরের তুলনায় এই বছরে অনলাইনে কেনাকাটার বিপুল উৎসাহ দেখা যাচ্ছে। আগের বছর যা ছিল মাত্র ২৭%, এখন সেটাই ৫১%-তে এসে দাঁড়িয়েছে।

লোকাল সার্কল সার্ভে বলছে, গত বছরের তুলনায় এই বছরে উৎসবের সময় অনলাইন কেনাকাটার হার এক লাফে ৮৯% বেড়ে গেছে। ক্রেতাদের প্রশ্ন করা হলে জানা গিয়েছে যে এই বছর ৩% ক্রেতা উৎসবের মরসুমে ৫০,০০০ টাকা খরচ করতে রাজি। ১৪% ক্রেতা বলেছেন যে তাঁরা ১০ থেকে ৫০ হাজারের মধ্যে খরচ করবেন। বাকি ৪৪% ১ থেকে ১০ হাজার খরচ করবেন। ১২% ক্রেতা অবশ্য ঠিক করেননি এখনও যে তাঁরা কত খরচ করবেন। আর ২৭% জনতা জানিয়েছেন যে তাঁরা কিছু কিনবেন না। এই তথ্যগুলি জরুরি কারণ এর উপরে নির্ভর করেই অঙ্ক কষা যাবে যে আদতে ভারতে উৎসবের মরশুমে মানুষ কতটা খরচ করবেন।

যখন ক্রেতাদের এই প্রশ্ন করা হয় যে তাঁরা কোথা থেকে জিনিস কিনবেন, তার উত্তরে এই তথ্য পাওয়া যায়- ২৬% ক্রেতা অনলাইন ওয়েবসাইট ও অ্যাপস থেকে কিনতে চান। ১১% ক্রেতা স্থানীয় দোকানে ফোন করে বাড়িতে জিনিস আনাবেন। ২৫% ক্রেতা স্থানীয় দোকান ও অনলাইন শপিং দুটোরই সাহায্য নেবেন। ২৪% জনতা শপিং মল, স্থানীয় খুচরো বিক্রেতা ও বিভিন্ন বাজার ঘুরবেন। ১৪% জনতা এখনও ঠিক করেননি যে তাঁরা কীভাবে কেনাকাটা করবেন।

এ বার প্রশ্ন হল দেশবাসী কী কী কিনতে চান! ১৫% কিনতে চান স্মার্টফোন, ল্যাপটপ, প্রিন্টার ইত্যাদি। ১৯% কিনতে চান এসি, টিভি, ফ্রিজ ইত্যাদি। ১১% ক্রেতা বাড়ি সাজানোর জিনিস যেমন পর্দা, আসবাব ইত্যাদি কিনতে চান। ৮% ফ্যাশনের জিনিস কিনতে চান, ৩২% মুদিখানার জিনিস ও খাবার কিনতে চান, ৪% অন্যান্য জিনিস কিনতে চান এবং বাকি ১১% এখনও কী কিনবেন ঠিক করেননি।

লোকাল সার্কেল সব শেষে এটাই বলছে যে ভারতীয়রা বাড়িতে বসে সুরক্ষিতভাবে শপিং করতে পারছেন, তাই অনলাইন শপিং আরও বেশি বৃদ্ধি পাবে। এখন এই অনলাইন সাইটগুলো ঠিকঠাক পরিষেবা দিতে পারে কিনা এবং ছোট ব্যবসায়ী ও স্থানীয় শিল্পীদের জায়গা দিতে পারে কি না সেটাই দেখার।

Published by: Simli Raha
First published: October 6, 2020, 6:21 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर