কলকাতা

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

কলেজ স্ট্রিটে ঝুলবারান্দা ভেঙে গুরুতর জখম ৩, আশঙ্কাজনক অবস্থায় কলমিস্ত্রী

কলেজ স্ট্রিটে ঝুলবারান্দা ভেঙে গুরুতর জখম ৩, আশঙ্কাজনক অবস্থায় কলমিস্ত্রী

কলেজ স্ট্রিটে পুরনো জরাজীর্ণ বাড়ির ঝুলবারান্দার একাংশ ভেঙে পড়ায় জখম ৩জন। তাঁরা এনআরএস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন

  • Share this:

#কলকাতা: কলেজ স্ট্রিটে পুরনো জরাজীর্ণ বাড়ির ঝুলবারান্দার একাংশ ভেঙে পড়ায় জখম ৩জন। তাঁরা এনআরএস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। পুরনো বহুতলের ঝুলবারান্দার একাংশ ভেঙে যাওয়ায় সেখান থেকে ৫ জনকে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে গিয়েছে দমকল।

শুক্রবার সকাল থেকে বহুতলের ঝুলবারান্দায় জলের লাইন সারাইয়ের কাজ চলছিল। সেই কাজ করতে গিয়েই বিপত্তি ঘটে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন সকাল থেকে জরাজীর্ণ বাড়ির চারতলার বারান্দায় জলের লাইন সারাইয়ের কাজ চলছিল। কলমিস্ত্রি ছেনি-হাতুড়ি দিয়ে জরাজীর্ণ বাড়ির বারান্দা ফুটো করে জলের লাইন সারাই করার চেষ্টা করছিলেন। সেই সময় আচমকাই বারান্দার একাংশ ভেঙে যায়। তার জেরে চার তলা থেকে সোজা রাস্তায় পড়ে যান ২জন কলমিস্ত্রি। তিনতলায় এক বৃদ্ধার মাথাতেও চাঙড় খসে পড়ে চারতলা থেকে। স্থানীয় বাসিন্দারা প্রথমে আহত মিস্ত্রীদের এনআরএস হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে বৃদ্ধাকেও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এই ঘটনার পর দমকল ও কলকাতা পুলিশের বিপর্যয় মোকাবিলা দল ঘটনাস্থলে আসেন। তাঁরা বিপজ্জনক বাড়ি থেকে ৫ জনকে উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যান। পুলিশ সূত্রে খবর, বাড়িটির কোনও অংশ ভেঙে ফেলা হবে কি না সে ব্যাপারে পুরসভার পরামর্শ চাওয়া হয়েছে।

কলেজ স্ট্রিটে বর্ণপরিচয়ের ঠিক বিপরীতে অবস্থিত বাড়িটি পুরনো হলেও কোথাও বিপজ্জনক বলে লেখা নেই। কিন্তু সেই বহুতলের বিভিন্ন জায়গাতেই ফাটল ধরা পড়েছে। দেওয়াল ফাটিয়ে বড় হচ্ছে বটগাছ। তাই বাড়িটিকে বিপজ্জনক বলে মনে করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। যদিও বিপজ্জনক এই বাড়ির কোনও মেরামতি হত না বলেই দাবি বাসিন্দাদের।

রাস্তার উপরেই বারান্দার একাংশ ভেঙে রাস্তায় পড়ায় কলেজ স্ট্রিট মোড় থেকে ঠনঠনিয়া কালীবাড়ি পর্যন্ত রাস্তা বন্ধ করে দেয় পুলিশ। জোর কদমে চলে উদ্ধারকাজ। রাস্তা থেকে ভেঙে পড়া চাঙড় সরানোর পর গাড়ি চলাচল শুরু হয়।

SUJOY PAL

Published by: Rukmini Mazumder
First published: June 5, 2020, 8:59 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर