নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত ডোনাল্ড ট্রাম্প,পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবর্গ

নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত ডোনাল্ড ট্রাম্প,পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবর্গ
ডোনাল্ড ট্রাম্প, পরিবেশ কর্মী গ্রেটা এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মনোনীত হয়েছে নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য photo/the sun

প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পেলেন।এছাড়াও পরিবেশ কর্মী গ্রেটা থুনবর্গ, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিরোধী আন্দোলনের প্রধান মুখ নাভালনি এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু মনোনয়ন পেয়েছে। কোভাক্স কর্মসূচির জন্য মনোনয়ন পেয়েছ হু।

  • Share this:
    p style="text-align: justify;">#ওয়াশিংটন: গল্প নয়, একেবারে সত্যি। স্বপ্ন নয়, প্রকৃত বাস্তব। কয়েকদিন আগে বিদায় নিতে হয়েছে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট পদ থেকে। তাঁর বিরুদ্ধে ইমপিচমেন্ট প্রক্রিয়া চলছে মার্কিন সেনেটে। আমেরিকার বহু মানুষ এখনও দেশের একাধিক খারাপ অবস্থার জন্য তাঁকে দোষী মনে করেন। ভাইরাস পরিস্থিতি সামলানো থেকে শুরু করে আর্থিক মন্দা, দুর্নীতি এবং বর্ণবিদ্বেষ, আমেরিকায় ট্রাম্প জমানার মত হাল কখনও ছিল না, মনে করেন দেশের অধিকাংশ মানুষ। বিদায় নিয়েও সমালোচনা থেকে মুক্তি পাননি তিনি। কিন্তু এবার সেই প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পেলেন।

    এছাড়াও পরিবেশ কর্মী গ্রেটা থুনবর্গ, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিরোধী আন্দোলনের প্রধান মুখ নাভালনি এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু মনোনয়ন পেয়েছে। কোভাক্স কর্মসূচির জন্য মনোনয়ন পেয়েছ হু। একটা সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অভিযোগ তোলেন চিনের কথাতেই চলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। ইচ্ছে করেই ভাইরাসের খবর চেপে রেখেছিল তাঁরা। তবে নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন আসার পর হু এবং আমেরিকার সম্পর্ক নতুন করে গড়ে উঠবে পরিষ্কার করে দিয়েছে মার্কিন প্রশাসন। প্রাক্তন নোবেলজয়ী ছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন আইনসভার সদস্যরা নাম প্রস্তাব করতে পারেন। রবিবার ছিল প্রস্তাবের শেষ দিন।

    নরওয়ের পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের হেনরিক উর্দাল নিশ্চিত করেছেন সাধারণত নরওয়ের আইনসভার সদস্যরা বিজয়ী বেছে নেন। রয়েছে ন্যাটো’ জোটের নাম। মনোনয়ন পেয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংগঠন ‘ইউএনএইচসিআর’-এরও। নোবেল পুরস্কার প্রাপকদের নাম ঘোষণা করা হবে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে।এদের মধ্যে আলাদা করে উল্লেখ করতেই হবে গ্রেটার কথা। ২০১৮ সালের মে মাসে গ্রেটার বয়স যখন ১৫, সে সময় গ্রেটা স্থানীয় এক পত্রিকার জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে এক রচনা প্রতিযোগিতায় পুরস্কার পান। তিন মাস পর অগাস্টে সুইডেনের পার্লামেন্ট ভবনের সামনে বিক্ষোভ করা শুরু করেন তিনি।


    সুইডেন সরকার যেন ২০১৫ সালের প্যারিস সম্মেলনে বিশ্বের শীর্ষ নেতাদের আলোচনায় ঠিক হওয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কার্বন নির্গমন নিয়ন্ত্রণ করার বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়, সে লক্ষ্যে বিক্ষোভ করে গ্রেটা। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর বিক্ষোভ ভাইরাল হয় এবং প্রতিবাদ বড় হয়ে ছড়িয়ে পড়ে। টাইম ম্যাগাজিনেও এই তরুনীর কথা উল্লেখ করা হয়।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: