Home /News /international /
The US imposes new sanctions on Russia: রাশিয়াকে কোণঠাসা করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একগুচ্ছ নতুন পদক্ষেপ, কতটা কড়া হল নিষেধাজ্ঞা?

The US imposes new sanctions on Russia: রাশিয়াকে কোণঠাসা করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একগুচ্ছ নতুন পদক্ষেপ, কতটা কড়া হল নিষেধাজ্ঞা?

রাশিয়ান ব্যাঙ্ক, সরকারি কর্মকর্তা এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের (Vladimir Putin) কন্যাদের লক্ষ্য করে নতুন নিষেধাজ্ঞা জারি!

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ইউক্রেনে (Ukraine) অসামরিকদের উপর হামলার অভিযোগ তুলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (USA) এবং তার মিত্র দেশগুলি রাশিয়ার (Russia) উপর নতুন নিষেধাজ্ঞা (Sanctions) আরোপ করেছে। ইউক্রেনের রাজধানী কিভের কাছে বুচা (Bucha) নামক একটি ছোট শহরে কমপক্ষে ৩০০ জন অসামরিক মানুষের মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছে। আর এর পরেই রাশিয়া বিরোধী ক্ষোভ তীব্র হচ্ছে। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি (Volodymyr Zelenskyy) বুচা শহরের হত্যাকাণ্ডকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে ভয়ঙ্কর যুদ্ধাপরাধ বলে অভিহিত করেছেন। চলতি সপ্তাহেই রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে (United Nations Security Council) দেওয়া ভাষণে জেলেনস্কি রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইচ্ছাকৃতভাবে প্রাপ্তবয়স্ক এবং অসামরিক নাগরিকদের (Ukrainian Civilians) হত্যা করার এবং তাদের মৃতদেহ পোড়ানোর চেষ্টা করার অভিযোগ করেছেন। জেলেনস্কি বলেন, "রাশিয়ান সেনারা ইচ্ছাকৃতভাবে কামান এবং বিমান হামলার মাধ্যমে ইউক্রেনের শহরগুলিকে ছাই করে দিচ্ছে। তারা ইচ্ছাকৃতভাবে রাস্তায় বের হওয়া অসামরিক লোকদের গুলি করেছে। এমনকী তারা ইচ্ছাকৃতভাবে আশ্রয়কেন্দ্র বোমা হামলা চালিয়ে উড়িয়ে দিয়েছে।"

যদিও রাশিয়া তাদের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে। ক্রেমলিন বলেছে যে বুচার রাস্তায় মৃতদেহের যে সমস্ত ছবি সাংবাদিকরা তুলেছে, রুশ বাহিনী (Russian Army) শহর ছেড়ে যাওয়ার আগে এসব ছিল না। তাদের আরও দাবি, রাশিয়ান সেনাবাহিনীকে হেয় করার জন্য এটি একটি ভয়াবহ জালিয়াতি।

রাশিয়ার উপর আরোপিত নতুন নিষেধাজ্ঞা কী?

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির আর্তি ফেরায়নি পশ্চিমারা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জি সেভেন (G-7) এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের (European Union) সঙ্গে সমণ্বয় করে রাশিয়ান ব্যাঙ্ক, সরকারি কর্মকর্তা এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের (Vladimir Putin) কন্যাদের লক্ষ্য করে নতুন নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। রাশিয়ার সর্ববৃহৎ বেসরকারি ব্যাঙ্ক আলফা ব্যাঙ্ক (Alfa Bank) এবং এর বৃহত্তম আর্থিক প্রতিষ্ঠান সবারব্যাঙ্কের (Sberbank) উপর কঠোর আর্থিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এর মাধ্যমে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোনও বাসিন্দা বা নাগরিক এই ব্যাঙ্কগুলির সঙ্গে লেনদেন করতে পারবে না। করলে তাদের সমস্ত সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হবে। ব্রিটেনও (UK) সবারব্যাঙ্কের সম্পদও ফ্রিজ করেছে এবং বলেছে যে এই বছরের শেষ নাগাদ তারা রাশিয়া থেকে কয়লা (Coal) আমদানি নিষিদ্ধ করবে। শুক্রবার পুতিনের দুই মেয়ে কাতেরিনা ভ্লাদিমিরোভনা টিখোনোভা (Katerina Vladimirovna Tikhonova) এবং মারিয়া ভ্লাদিমিরোভনা ভোরোন্টোভার (Maria Vladimirovna Vorontsova) ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে বরিস জনসন সরকার। এছাড়াও পুতিনের মেয়েদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করাও হবে।

ক্রেমলিনের শীর্ষ কর্মকর্তা এবং রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের পরিবারের সদস্যদের উপর সম্পূর্ণ অবরোধমূলক নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা করেছে হোয়াইট হাউস। রাশিয়ার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ (Dmitry Medvedev) এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিশুস্টিনের (Mikhail Mishustin) পাশাপাশি বিদেশমন্ত্রী সের্গেই লাভরভের (Sergey Lavrov) স্ত্রী ও কন্যার উপরেও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। হোয়াইট হাউসের কর্মকর্তারা বিবিসিকে (BBC) বলেছেন যে তাঁরা পুতিনের মেয়েদের টার্গেট করছেন, কারণ তাঁদের কাছে পুতিনের সম্পদের নিয়ন্ত্রণ থাকতে পারে।

মার্কিন ট্রেজারি সেক্রেটারি জ্যানেট এল ইয়েলেন বলেন, "আমরা পুতিনের বর্বরতার জবাবে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে রাশিয়াকে বিচ্ছিন্ন করার জন্য অতিরিক্ত পদক্ষেপ নিচ্ছি। রাশিয়ার সবচেয়ে বড় ব্যাঙ্ককে সম্পূর্ণরূপে অবরুদ্ধ করা এবং রাশিয়ায় নতুন বিনিয়োগ নিষিদ্ধ করা সহ এই গুরুতর পদক্ষেপ পুতিনের যুদ্ধ তহবিল ও সরবরাহ ক্ষমতাকে আরও সীমিত করবে।"

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন (Joe Biden) শীঘ্রই আমেরিকানদের রাশিয়ায় নতুন বিনিয়োগ নিষিদ্ধ করার একটি নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করবেন বলে জানা গিয়েছে। এদিকে, শুক্রবারই ইউরোপীয় কমিশন (European Commission) রাশিয়ান কয়লা আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। ইউরোপের দেশগুলির বন্দরগুলোয় রাশিয়ান জাহাজের উপরও নিষেধাজ্ঞার অনুমোদন দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। সড়ক পথে ইউরোপের সঙ্গে রাশিয়ান এবং বেলারুশিয়ান বাণিজ্যও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়াও পুতিনের দুই প্রাপ্তবয়স্ক কন্যার উপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ইউরোপীয় কাউন্সিলের ফরাসি প্রেসিডেন্সির এক কর্মকর্তা বলেছেন, রাশিয়ার বিরুদ্ধে পঞ্চম দফার এই নিষেধাজ্ঞাগুলি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট চার্লস মিশেল (Charles Michel) ট্যুইটারে বলেছেন, নিষেধাজ্ঞার প্যাকেজটি অগাস্ট থেকে কার্যকর করা হবে। কিভের কাছে বুচায় গত সপ্তাহে অনেক অসামরিক লোকের মৃতদেহ উদ্ধারের পর ইউরোপীয় কমিশন নতুন আর্থিক ব্যবস্থার প্রস্তাব দেয়। রাশিয়ার জ্বালানির উপর ব্যাপকভাবে নির্ভরশীল ইউরোপীয় দেশগুলি এই প্রথমবারের মতো রুশ জ্বালানি খাতের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাব দিয়েছে। যদিও প্রস্তাবিত নিষেধাজ্ঞাটি নিয়ে বিতর্ক হয়। কারণ জার্মানির মতো বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় সদস্য জ্বালানি ও শক্তির জন্য রাশিয়ার উপর ব্যাপকভাবে নির্ভরশীল।

অস্ট্রেলিয়া (Australia) বৃহস্পতিবার ঘোষণা করেছে যে তারা ৬৭ জন রাশিয়ানের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে। অস্ট্রেলিয়ার বিদেশমন্ত্রী মারিস পেইন (Marise Payne) বলেছেন, "আমি রাশিয়ার সেই ৬৭ জন অভিজাত ও ধন কুবেরদের উপরে নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা করছি, যাঁরা পুতিনের ঘনিষ্ঠ ও তাঁর জঘন্য কর্মকাণ্ডে সহায়তা ও সমর্থন করেছেন।

কী কারণে রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা?

বুচায় গণগত্যার (Bucha Massacre) ঘটনা সামনে আসার পরই রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা চাপানোর দাবি জোরাল হয়। বুচা গণহত্যার কথা উল্লেখ করে প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, "বড় যুদ্ধাপরাধের চেয়ে কম কিছু ঘটছে না। দায়িত্বশীল দেশগুলিকে এই অপরাধীদের জবাবদিহি করতে একত্রিত হতে হবে।"

কী ঘটেছে বুচায়?

ইউক্রেনের রাজধানীর কিভের (Kyiv) উত্তর-পশ্চিমে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত বুচা শহর। যেখানে রাশিয়ার আক্রমণ শুরু হওয়ার আগে আনুমানিক ৩৬ হাজার মানুষের বসবাস ছিল। সোমবার জেলেনস্কি যে শহরে গিয়েছিলেন সেখানে ৩০০টিরও বেশি মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে। কয়েকটি দেহ ছিল হাত-পা পিছমোড়া করে বাঁধা, কোনওটার মাথায় বুলেটের ক্ষতচিহ্ন। মার্চের মাঝামাঝি থেকে পাওয়া স্যাটেলাইট চিত্রগুলি এখন প্রকাশ্যে আসছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে রাস্তায় পড়ে রয়েছে মৃতদেহের সারি। গত কয়েকদিনে সাংবাদিকরা অনেক মৃতদেহ কয়েক সপ্তাহ ধরে রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখেছেন। একটি গির্জার কম্পাউন্ডে অগভীর গণকবরে অনেকগুলি মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে। কর্মকর্তারা বলেছেন যে পাঁচটি মৃতদেহ তাদের হাত বাঁধা অবস্থায় শিশুদের স্যানিটোরিয়ামের বেসমেন্টে পাওয়া যায়। মনে করা হচ্ছে, হত্যার আগে ওই জায়গাতেই লোকজনের উপর অত্যাচার চালানো হয়েছিল।

এই গণহত্যার ছবি দেখে অনেকেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের (World War II) সময়ের উদাহরণ টানছেন। কারণ সেই সময় এই অঞ্চলে বহু অসামরিক মানুষকে হত্যা করেছিল অ্যাডলফ হিটলারের (Adolf Hitler) বাহিনী। কিভের প্রথম যুদ্ধ এবং দ্বিতীয় যুদ্ধের মধ্যে যখন রেড আর্মি (Red Army) ইউক্রেন থেকে জার্মানদের পিছনে ঠেলে দিতে শুরু করে, তখন ইউক্রেনের রাজধানী, বুচা সহ বিভিন্ন এলাকায় নিধনযজ্ঞ হয়েছিল। আনুমানিক ১৫ লাখ মানুষকে গুলি করে হত্যা করেছিল হিটলারের রেড আর্মি। নিহতদের বেশিরভাগই ছিল ইহুদি। ঠিক একই রকমের চিত্র দেখা গিয়েছে বুচাতেও। সাইকেলের পাশে, ফুটপাতে এবং বাড়ির উঠোন এবং বাগানে মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা গিয়েছে। ছবি ও ভিডিও থেকে এটা পরিষ্কার যে অসামরিক নাগরিকদের নির্বাচারে হত্যা করা হয়েছে।

বাসিন্দারা হিউম্যান রাইটস ওয়াচকে (Human Rights Watch) বলেছেন যে রুশ সেনারা বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে লোকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে এবং তাদের সম্পত্তি লুট করেছে। রাশিয়ান সশস্ত্র যানবাহনগুলি বাড়ি লক্ষ্য করে নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে বলেও অভিযোগ। ৪ মার্চ বুচায় রাশিয়ান বাহিনী পাঁচজনকে গ্রেফতার করে এবং তাদের মধ্যে একজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। একজন প্রত্যক্ষদর্শী হিউম্যান রাইটস ওয়াচকে বলেছেন যে সেনারা পাঁচজনকে রাস্তার পাশে হাঁটু গেড়ে বসতে বাধ্য করেছিল, তারপর একজনের মাথার পিছনে গুলি করেছিল।

আন্তর্জাতিক মহল ও রাশিয়ার প্রতিক্রিয়া: কিভের মেয়র ভিটালি ক্লিটসকো (Vitali Klitschko) বলেছেন যে বুচা এবং অন্যান্য শহরতলিতে যা ঘটেছে, সেটাই শুধুমাত্র গণহত্যা হিসাবে বর্ণনা করা যেতে পারে। রবিবার প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছিলেন যে রাশিয়ার এই সামরিক পদক্ষেপ ছিল গণহত্যা, সমগ্র জাতি এবং জনগণকে নির্মূল করাই রাশিয়ার উদ্দেশ্য।

ইউক্রেনের সমস্ত পশ্চিমা মিত্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন কাউন্সিল (Council of the European Union), ন্যাটো (NATO) এবং রাষ্ট্রসংঘ (United Nations) বুচায় গণহত্যার তীব্র নিন্দা করেছে। আরও নিষেধাজ্ঞা চাপানোর দাবির সঙ্গে জার্মানি, ফ্রান্স, ইতালি, স্পেন, ডেনমার্ক এবং সুইডেন কয়েক ডজন রাশিয়ান কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে এবং সুইডিশ প্রসিকিউটররা ইউক্রেনে সম্ভাব্য যুদ্ধাপরাধের প্রাথমিক তদন্ত শুরু করেছে।

যদিও এই কূটনৈতিক বহিষ্কারকে অদূরদর্শিতা বলে অভিহিত করেছে মস্কো। তারা পাল্টা একই রকমের পদক্ষেপ নেওয়ার হুঁশিয়ারিও দিয়েছে।

Published by:Rukmini Mazumder
First published:

Tags: Ukraine crisis

পরবর্তী খবর