Home /News /international /
Kali Idol reached London|| বাংলা থেকে লন্ডন পাড়ি! ব্রিটিশ মিউজিয়ামে বসছে কুমোরটুলির রুদ্ররূপী কালীমূর্তি

Kali Idol reached London|| বাংলা থেকে লন্ডন পাড়ি! ব্রিটিশ মিউজিয়ামে বসছে কুমোরটুলির রুদ্ররূপী কালীমূর্তি

Kali Idol reached London: 'গডেস-ফিমেল পাওয়ার ইন ওয়ার্ল্ড বিলিফ', নারী শক্তির ক্ষমতায়ন-এই বিষয়ক এক প্রদর্শনীর মধ্যে পৃথিবীর তিন রূদ্র রূপী দেবীমূর্তির উদ্বোধন হবে। গ্রিসের শিল্পের দেবী এথেনা, মিশরের যুদ্ধের দেবী সেখমেতের সঙ্গে হিন্দু দেবী কালীর মূর্তির উদ্বোধন হবে আগামী ১৭ মে।

আরও পড়ুন...
  • Share this:

#কলকাতা: লন্ডনের ব্রিটিশ মিউজিয়ামে এ বার বসছে কুমোরটুলির তৈরি কালী। বাংলার দেবী মূর্তি পাড়ি দিচ্ছে বিদেশে। প্রতিবছর বিদেশে যে মহা ধুমধামে দুর্গাপুজো হয়, তা কারও অজানা নয়। বেশ জাঁকজমক করেই হয় আরাধনা। কিন্তু এই উদ্যোগ অনেকটাই আলাদা। 'গডেস-ফিমেল পাওয়ার ইন ওয়ার্ল্ড বিলিফ', নারী শক্তির ক্ষমতায়ন-এই বিষয়ক এক প্রদর্শনীর মধ্যে পৃথিবীর তিন রূদ্র রূপী দেবীমূর্তির উদ্বোধন হবে। গ্রিসের শিল্পের দেবী এথেনা, মিশরের যুদ্ধের দেবী সেখমেতের সঙ্গে হিন্দু দেবী কালীর মূর্তির উদ্বোধন হবে আগামী ১৭ মে। রূদ্র রূপী দেবীর মধ্যে মা কালী থাকবেন না, এ একেবারে অসম্ভব। কালী মূর্তিটি তৈরি করেছেন কলকাতার কুমোরটুলির শিল্পী কৌশিক ঘোষ। বেশ যত্ন করে তৈরি করা হয়েছে এই মূর্তি।

আরও পড়ুন: হাসপাতাল আতঙ্কে ঘরছাড়া শতাধিক! ভরসা দিতে বউবাজারে 'দুয়ারে কাউন্সিলর'

কালো কালী মূর্তির হাঁটু পর্যন্ত দুলছে মুন্ডমালা, পায়ের নীচে শিবের অধিষ্ঠান, পিছনে সোনালী চালচিত্র, মূর্তির ওজন ৩৫ কিলোগ্রাম। মায়ের এই রূপ দেখে চোখ জুড়িয়ে যাবে। গত ৫৯ বছর ধরে ইউরোপের প্রথম দুর্গাপুজো হচ্ছে ক্যামডেন শহরে। সেই সুবাদে যখনই ব্রিটিশ মিউজিয়াম এই ঈশ্বর ভাবনার উদ্যোগ নেন, ক্যামডেন দুর্গাপুজো উদ্যোক্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন মিউজিয়াম কর্তৃপক্ষ। ডা: আনন্দ গুপ্ত, চেয়ারপার্সন, ক্যামডেন দুর্গা পুজো কমিটির পক্ষে এই উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত হন। আগামী ১৭ মে মূর্তির উদ্বোধন হবে। এই মুহূর্তকে আরও মনোময় করে তোলার জন্য আনন্দ গুপ্তের নির্দেশনায় রবীন্দ্রনাথের চিত্রাঙ্গদা পরিবেশন করা হবে, এই বিশেষ উৎসবে।

আরও পড়ুন: বাড়িটা ঠিক আছে তো এখনও? স্কুল ড্রেস পরে বাড়ি দেখতে এল ছোট্ট অংশুমান

এই মূর্তি তৈরি করতে সময় লেগেছে প্রায় দেড় মাস। ইতিমধ্যেই মূর্তি পৌঁছে গিয়েছে ব্রিটিশ মিউজিয়ামে। আনন্দ গুপ্ত জানিয়েছেন, "সত্যি এক ইতিহাসের সাক্ষী হতে চলেছি আমরা। খুব গর্ব অনুভব করছি, এমন একটা উদ্যোগের সঙ্গে থাকতে পেরে। মন থেকে খুব আনন্দ হচ্ছে।"

ARUNIMA DEY

Published by:Shubhagata Dey
First published:

Tags: Kumartuli, London

পরবর্তী খবর