বিদেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

মদ্যপ অবস্থায় ঘোড়াকে চুম্বনের চেষ্টা, যুবকের নাকে কামড় বসাল সে! তার পর...

মদ্যপ অবস্থায় ঘোড়াকে চুম্বনের চেষ্টা, যুবকের নাকে কামড় বসাল সে! তার পর...

ভাসিলি তার পর ঘোড়ার মুখে চুম্বনের চেষ্টা করেন। ঘোড়া বিরক্ত হয়ে সোজা তার নাকে কামড়ে দেয়

  • Share this:

#মস্কো: মদ্যপ (Drunk) অবস্থায় ঘোড়ার মুখে চুম্বন (Kiss) যুবকের। বিরক্ত হয়ে তাঁর নাকে কামড় বসাল ঘোড়া (Horse)। ঘটনাটি রাশিয়ার (Russia)। পুলিশ ও ঘোড়ার মালিকের পক্ষ থেকে এমন অভিযোগ করা হলেও, বিষয়টি স্বীকার করেননি ওই যুবক। তাঁর কথায়, ঘোড়াকে খাওয়াতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে!

রাশিয়ার স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, পুলিশ (Police) জানিয়েছে, ভাসিলি নামে ওই যুবক কিছু দিন আগে বন্ধুদের সঙ্গে একটি পানশালায় গিয়েছিলেন। সেখান থেকে মদ্যপ অবস্থায় বেরোনোর সময় তাদের সামনে দুই মহিলা পড়েন। তাঁরা দু'জনই দু'টো ঘোড়ায় সওয়ার ছিলেন। মহিলাদের বিরক্ত করার চেষ্টা করেন ভাসিলি। কিন্তু মহিলারা সে বিষয়ে গুরুত্ব না দেওয়ায় তিনি এর পর ঘোড়ার দিকে নজর দেন।

মহিলাদের ছেড়ে ভাসিলি ঘোড়াকে বিরক্ত করা শুরু করেন। পুলিশের কথা অনুযায়ী, ভাসিলি তার পর ঘোড়ার মুখে চুম্বনের চেষ্টা করেন। ঘোড়া বিরক্ত হয়ে সোজা তার নাকে কামড়ে দেয়। নাক থেকে কার্যত মাংস উঠে আসে।

রক্তাক্ত অবস্থায় ভাসিলিকে তড়িঘড়ি হাসপাতালে (Hospital) নিয়ে যান তাঁর বন্ধুরা। সেখানে গেলে চিকিৎসকরা তাঁর নাকে অনেকগুলো সেলাই করেন। চিকিৎসকরা জানান, প্লাস্টারের কোনও দরকার নেই। ক্ষত খুব একটা গভীর নয় বা হাড়ও ভেঙে যায়নি। তবে, সেলাই পড়েছে অনেকগুলো, ফলে দাগ থেকে যাবে।

এ দিকে, পুলিশের কাছে এক মহিলা জানিয়েছেন যে, বার বার সতর্ক করা হয়েছিল ভাসিলিকে এ ব্যাপারে। বলা হয়েছিল, ঘোড়া বিরক্ত হতে পারে আর বিরক্ত হলে কামড়াতেও পারে। কিন্তু ওই যুবক কথা শোনেননি। তিনি ঘোড়াকে চুম্বনের (Kiss) চেষ্টা করেই চলেন!

পুলিশও দাবি করে, পানশালা থেকে বেরিয়ে মদ্যপ অবস্থাতেই ছিলেন যুবক। ফলে, নেশার ঘোরেই এ কাজ করেছেন তিনি।

তবে, যাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, সেই ভাসিলি অবশ্যই অর্ধেক বিষয়ই স্বীকার করেননি। মদ্যপান করার কথা তিনি স্বীকার করেছেন ঠিকই, কিন্তু ঘোড়াকে চুম্বনের বিষয়টি স্বীকার করেননি। তাঁর কথায়, তিনি ঘোড়াটিকে গাজর খাওয়াতে গিয়েছিলেন। ঘোড়াটি উলটে তাঁকে কামড়ে দেয়!

যুবকের এই দাবির পরও মহিলার দাবি, যুবককে বার বার নিষেধ করা হয়েছিল এমন কাজ করতে। তাঁর সঙ্গে থাকা আরও এক মহিলাও একই কথা বলেন ভাসিলিকে, কিন্তু তিনি কথা শোনেননি। ফলে এই ঘটনা ঘটেছে।

পুরো ঘটনাটির তদন্ত করছে পুলিশ। যুবককেও হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

Published by: Ananya Chakraborty
First published: December 12, 2020, 6:49 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर