corona virus btn
corona virus btn
Loading

সীমান্ত সংঘর্ষের আঁচ কলকাতায়, শহরের হোটেলে 'নো এন্ট্রি' চিনাদের

সীমান্ত সংঘর্ষের আঁচ কলকাতায়, শহরের হোটেলে 'নো এন্ট্রি' চিনাদের

সীমান্তে আমাদের সেনা জওয়ানদের ওপর ওরা হামলা চালাবে! আর আমরা ওদের হোটেলে ওয়েলকাম জানাব...

  • Share this:

#কলকাতা : গালওয়ান থেকে দেবসুং উপত্যকা। সীমান্তে ইন্দো-চিন সংঘাতে পারদ বাড়ছে। সীমান্ত সংঘর্ষের উত্তেজনা ছুঁয়ে গেছে এই শহরকেও। চিনা বিদ্বেষে ফুটছে কল্লোলিনী। কখনও সে বিদ্বেষে ছুঁড়ে ফেলেছে চিনা পণ্য কখনও বা এই শহরের হোটেলের দরজা বন্ধ হয়েছে চিনা নাগরিকদের জন্য।

মধ্য কলকাতার পার্ক স্ট্রিট, রয়েড স্ট্রিট, মির্জা গালিব স্ট্রিট! শহরে ব্যবসা করতে আসা চিনা নাগরিকদের চেনা ডেরাগুলোর অন‍্যতম। সীমান্তে ভারত-চিন সংঘর্ষে চিনা নাগরিকদের জন্য বন্ধ হয়ে গেল এই শহরের একাধিক হোটেলের দরজা। পার্ক ইন, গ্রীন ভিউ, প্রেসিডেন্সি ইন, আকাশগঙ্গা! তালিকার শেষ নেই! শনিবার মধ্য কলকাতার চালু হোটেলগুলোর অনেকগুলোতেই চাইনিজদের জন্য 'নো এন্ট্রি'।

পার্ক ইন হোটেলের মালিক ইশতিয়াক আহমেদ যেমন বলেছিলেন, ‘সীমান্তে আমাদের সেনা জওয়ানদের ওপর ওরা হামলা চালাবে! আর আমরা ওদের হোটেলে ওয়েলকাম জানাব, এটা হতে পারে না। আমাদের হোটেলের দরজা আজ থেকে ওদের জন্য বন্ধ।’ মির্জা গালিব স্ট্রিটের প্রেসিডেন্সি ইন কিংবা ফ্রি স্কুল স্ট্রিটের হোটেল বেঙ্গলের ছবিটা একই রকম। হোটেলের প্রবেশদ্বার থেকে রিসেপশন। সর্বত্র সাদা কাগজে কম্পিউটার প্রিন্টে ছাপা CHINESE BOARDERS ARE NOT ALLOWED! বার্তাটা পরিষ্কার,প্রেসিডেন্সি ইন হোটেলের ম্যানেজার রাজা কিংবা হোটেল বেঙ্গলের মালিক সাব্বির আহমেদ বলছিলেন,‘আর্থিক ক্ষতি হলে হবে। কিন্তু চীনাদের সঙ্গে কোন ব্যবসায়িক সম্পর্কে নেই। হোটেলে জায়গা দেওয়ার তো প্রশ্নই ওঠে না।’

এই শহরের উপপ্রান্তে রয়েছে আস্ত একটা চিনে পাড়া। আনলক পর্বে সেখানেও মন্দ ব্যবসার ছোঁয়া। পারতপক্ষে চাইনিজদের ছায়া মাড়াতে রাজি নয় কলকাতা। শহরের একাধিক হোটেলে চীনা নাগরিক নিষিদ্ধ যেন স্পষ্ট করে দিল সেটাই। লে, লাদাখে স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্র হাতে না হলেও সীমান্তে কর্তব্যরত জওয়ানদের পাশে রয়েছে সিটি অফ জয়। একেবারে নিজের ঢঙে। প্রতিবাদের সুর চড়িয়ে। দেশ জুড়ে জয় জওয়ান, জয় হিন্দুস্তানের কোরাসে পিছিয়ে নেই আমাদের কলকাতা।

PARADIP GHOSH

Published by: Debalina Datta
First published: June 28, 2020, 12:35 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर