Home /News /hooghly /
 Hooghly: দুমাস ধরে উত্তরপাড়া স্টেশনে! অবশেষে প্রশাসনের চোখে পড়তেই বৃদ্ধার ঠাঁই বৃদ্ধাশ্রমে

 Hooghly: দুমাস ধরে উত্তরপাড়া স্টেশনে! অবশেষে প্রশাসনের চোখে পড়তেই বৃদ্ধার ঠাঁই বৃদ্ধাশ্রমে

বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে কিছু সংখ্যক মুষ্টিমেয় মানুষ নিজেদের জীবনে এতটাই ব্যস্ত হয়ে যে তাদের লালন পালন করে বড় করে তোলা মা-বাবার জন্য তাদের আর বাড়িতে জায়গায় থাকে না।

  • Share this:

    হুগলি: বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে কিছু সংখ্যক মুষ্টিমেয় মানুষ নিজেদের জীবনে এতটাই ব্যস্ত হয়ে যে তাদের লালন পালন করে বড় করে তোলা মা-বাবার জন্য তাদের আর বাড়িতে জায়গায় থাকে না। নচিকেতার গানের মত আশ্রয় হয় বৃদ্ধাশ্রমে। আবার এমন মানুষও রয়েছে আমাদের পারিপার্শ্বিক সমাজে নিজেদের জন্মদাত্রী মা কে বয়স কালে ছেড়ে দিয়ে চলে আসে শহরের কোনো ব্যাস্ততম জায়গার আড়ালে। তাদের এই দুর্দশা থাকে উদ্ধার করতে কখনও কখনও কোনও স্বেচ্ছাসেবী দল বা কোন ব্যক্তি তাদের কাছে আবির্ভূত হন মসিহার মত। দীর্ঘ দু'মাস হুগলি উত্তরপাড়া স্টেশনে ধীরে ধীরে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছিলেন ষাটোর্ধ্ব এক মহিলা। মহিলার নাম রেখা চক্রবর্তী। বাড়ি বা বাড়ির লোক সম্বন্ধে কিছুই বলতে পারছিলেন না তিনি। ষাটোর্ধ্ব ঐ মহিলাকে দেখে মনে হয় অসম্ভব কোনো মানসিক চাপের প্রতিফলন ঘটেছে তার চেহারার মধ্যে দিয়ে। দেবাশিস মজুমদার নামক এক স্বহৃদয় ব্যক্তি ওই মহিলার করুণ অবস্থা দেখে তার কাছে ছুটে যান। তিনি কথা বলে বুঝতে পারেন ওই মহিলা নিজের নাম ছাড়া আর কিছুই বলতে পারছেনা। আর বলতে পারছেন 'মাস দুয়েক আগে উত্তরপাড়া স্টেট জেনারেল হসপিটালে তাকে কেউ ছেড়ে চলে গেছে।' তারপর থেকেই ওই মহিলা দীর্ঘ দু'মাস ধরে উত্তরপাড়া স্টেশনে অর্ধভুক্ত অনাহারে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে চলেছেন। দেবাশিস মজুমদার জানান, ওই মহিলার করুন অবস্থা সরকারের দৃষ্টিগোচর করার জন্য খবর দেন সংবাদ মহলে। বিভিন্ন সাংবাদিকদের তৎপরতায় ওই মহিলার সম্বন্ধে অবগত হন স্থানীয় প্রশাসন।

    তারপরই রবিবার সন্ধ্যায় রেখা চক্রবর্তী নামক ওই প্রবীণ মহিলাকে নিয়ে আসা হয় কোন্নগর নবোগ্রমের স্বতভারতি বৃদ্ধাশ্রমে। উত্তরপাড়া পৌরসভার চেয়ারম্যান দিলীপ যাদব রায়পুর গ্রাম পঞ্চায়েতের পঞ্চায়েত প্রধান আচ্ছা লাল যাদব এর তৎপরতায় ওই মহিলাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয়। উত্তরপাড়া পৌরসভার চেয়ারম্যান দিলীপ যাদব জানান, ওই মহিলার খবর সোশ্যাল মিডিয়া মারফত তিনি জানতে পারেন। জানা মাত্রই ওই মহিলাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয়। কানাইপুর পঞ্চায়েতের পঞ্চায়েত প্রধান আচ্ছা লাল যাদব জানান, ওই মহিলাকে এখন তারই পঞ্চায়েতের আওতায় থাকা একটি বৃদ্ধাশ্রমের রাখা হয়েছে। ওই মহিলা সুস্থ হয়ে উঠলে তাকে তার পরিবার-পরিজন সম্বন্ধে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। যতদিন না তিনি সুস্থ হচ্ছেন তিনি ওইখানেই থাকবেন।

    আরও পড়ুনঃ পুলিশের মানসিক স্বাস্থ্য চাঙ্গা করে তুলতে চালু হল 'লেটস ওপেন আপ'

    তিনি আরও বলেন, সোশ্যাল মিডিয়া মারফতি বিভিন্ন পোস্ট এর মাধ্যম দিয়ে ওই মহিলার ছবি দিয়ে জানার চেষ্টা চলবে ওই মহিলা কোথা থেকে এসেছেন। এই বিষয়টি থেকে প্রশ্ন থেকেই যায় মানুষের মানবিকতার উপর। যে মা তার নিজের সন্তানকে বড় করে তোলার জন্য জীবনের সবটুকু নিঃশেষ করে দেয়। বয়স কালে কিনা সেই মহিলার স্থান হবে রেল স্টেশন!

    আরও পড়ুনঃ রাজ্যের মধ্যে সেরা পোস্টমাস্টার হলেন আরামবাগের শৈলেন ঘোষাল

    প্রশ্ন থাকছে ভবিষ্যৎ তাহলে কি এতটাই নিষ্ঠুর গড়ে তুলছে মানুষকে। এর নেপথ্যের কারণ কি? শিক্ষার অভাব! নাকি সামাজিক শিক্ষার অভাব? কিছুদিন আগে শেওড়াফুলি স্টেশন থেকেও এক বয়স্ক মহিলাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তার চিকিৎসার জন্য। সেখানেও ওই মহিলার কাছে তার উদ্ধারকারীরা দেবদূতের মত আগমন ঘটিয়ে তার জীবন বাঁচিয়েছেন।

    Rahi Haldar
    First published:

    Tags: Hooghly

    পরবর্তী খবর