হোম /খবর /হুগলি /
পুরপ্রধান পক্ষপাতিত্ব করছেন, অভিযোগ তুলে পথে বৈদ্যবাটির কাউন্সিলরদের একাংশ

Hooghly News: বেছে বেছে ঘনিষ্ঠ কাউন্সিলরদের ওয়ার্ডেই টাকা দিচ্ছেন পুরপ্রধান, অভিযোগ তুলে পথে বৈদ্যবাটির পুর প্রতিনিধিরা

X
title=

পুরসভার উন্নয়নের টাকা নিয়ে পুরপ্রধানের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুললেন বৈদ্যবাটির কাউন্সিলরদের একাংশ। পথে নেমে তাঁরা বিক্ষোভ‌ও দেখান

  • Share this:

হুগলি: পুরসভার ওয়ার্ড উন্নয়নের টাকা পাওয়া নিয়ে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ। আর তা নিয়ে ব্যাপক শোরগোল পড়ে গেল হুগলির বৈদ্যবাটিতে। পুরপ্রধানের বিরুদ্ধে পক্ষপাতীত্বের অভিযোগ তুলে ব্যানার-পোস্টার নিয়ে পথে নামলেন কাউন্সিলরদের একাংশ।

বিক্ষোভে যোগ দেওয়া কাউন্সিলরদের অভিযোগ, বৈদ্যবাটি পুরসভার বেশ কিছু ওয়ার্ড আছে যেখানে উন্নয়নের প্রয়োজন। কিন্তু উন্নয়ন করার জন্য বেছে বেছে সেই ওয়ার্ডগুলোয় টাকা বরাদ্দ করা হচ্ছে না। শুধুমাত্র পুরপ্রধানের ঘনিষ্ঠ কাউন্সিলররা বাড়তি সুবিধা পাচ্ছেন। তাদের ওয়ার্ডের উন্নয়নে বাড়তি টাকা দেওয়া হচ্ছে।

বৈদ্যবাটী পুরসভার ২০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হরিপদ পালের অভিযোগ, তাঁর ওয়ার্ড পিছিয়ে থাকা এলাকা। কাঁচা রাস্তা, কাঁচা নর্দমার সমস্যা আছে। পানীয় জলের সুব্যবস্থা নেই। তাঁর দাবি, পুরপ্রধান প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন পুরসভায় বিশেষ অর্থ সাহায্য এলে তা ২০ নম্বর ওয়ার্ডের কাজের জন্য দেওয়া হবে।কিন্তু কাজের ক্ষেত্রে দেখা গেল তা হয়নি। বিধায়ক ও পুরপ্রধানের পছন্দের ওয়ার্ডে সেই বিশেষ অর্থ দেওয়া হয়েছে।

শহরজুড়ে অবৈধভাবে বহুতল নির্মাণ এবং বৈদ্যবাটি পুরসভার ২০ নম্বর ওয়ার্ডে কাঁচা রাস্তা এবং পানীয় জলের সমস্যা থাকলেও বিশেষ খাতের অর্থ থেকে তাদের বঞ্চিত করা হল কেন, এই সংক্রান্ত ব্যানার লিখে বৈদ্যবাটী পুরসভার সামনে বিক্ষোভ দেখান ২০ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। সেখানে হাজির ছিলেন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হরিপদ পাল।

আরও পড়ুন: একসঙ্গে ৩ সন্তানের জন্ম দিলেন পুলিশ মা!

তৃণমূল কাউন্সিলর প্রবীর পাল বলেন, "বিধায়কের কোটায় একটা স্পেশাল ফান্ড আসে পুরসভায়। ১০ জন কাউন্সিলরকে সেই ফান্ডের টাকা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমরা বঞ্চিত। আমরা চাই ২৩ টা ওয়ার্ডেই সমান উন্নয়ন হোক। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উন্নয়ন নিয়ে রাজনীতি করেন না তাই আমরাও রাজনীতি চাই না।যে সমস্ত কাউন্সিলর স্পেশাল ফান্ডের টাকা পাননি পুরসভায় এসে পুরপ্রধানকে আমরা জানিয়েছি। পুরপ্রধান কথা দিয়েছেন আগামী দিনে স্পেশাল ফান্ডের টাকা দেওয়া হবে।"

কাউন্সিলরদের একাংশের বিক্ষোভ প্রসঙ্গে বৈদ্যবাটি পুরসভার পুরপ্রধান পিন্টু মাহাত বলেন, "বিধায়ক অরিন্দম গুঁইন মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে এই স্পেশাল ফান্ডের টাকার ব্যবস্থা করেছেন। যে সমস্ত কাউন্সিলররা বিধায়কের কাছে ওয়ার্ডের উন্নয়নের জন্য টাকা চেয়ে দরবার করেছিলেন তাঁদের এই ফান্ড দেওয়া হয়েছে। যারা আগামী দিনে করবেন তাঁদেরও দেওয়া হবে। পুরসভার সব ওয়ার্ডেই উন্নয়ন হোক আমরা চাই।"

রাহী হালদার

Published by:Kaustav Bhowmick
First published: