Home /News /explained /
Brain Stroke| Health: বাড়ছে না তো ব্রেন স্ট্রোকের ঝুঁকি? জানুন বুঝবেন কী ভাবে

Brain Stroke| Health: বাড়ছে না তো ব্রেন স্ট্রোকের ঝুঁকি? জানুন বুঝবেন কী ভাবে

photo source collected

photo source collected

Brain Stroke| Health: ব্রেনে যখন রক্ত সরবরাহ আচমকা বন্ধ হয়ে যায় অথবা যখন রক্তক্ষরণ শুরু হয় তখন সেই পরিস্থিতিকে ব্রেন স্ট্রোক বলা হয়।

  • Share this:

#কলকাতা: বয়স বাড়ার সঙ্গে একাধিক রোগে আক্রান্ত হন অনেকে। চিকিৎসকদের মতে ৪৫ বছর পার করার সঙ্গে ছোটখাটো বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় আমাদের। যত বয়স বাড়ে, রোগ বৃদ্ধির পরিমাণও বাড়ে।

সাধারণ ভাবে যে সব সমস্যাগুলি ঘরে ঘরে দেখা যায় তা হল ব্লাড প্রেসার, ব্লাড সুগার, চোখের বিভিন্ন সমস্যা ইত্যাদি। এই সব কিছুর মধ্যে আরও একটি রোগ আক্রমণ করতে পারে আচমকা। তা হল ব্রেন স্ট্রোক (Brain Stroke)। সঠিক সময়ে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ না নিলে আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। কী কী কারণে হতে পারে ব্রেন স্ট্রোক? সম্পূর্ণ তথ্য রইল এই প্রতিবেদনে।

ব্রেন স্ট্রোক কী?

ব্রেনে যখন রক্ত সরবরাহ আচমকা বন্ধ হয়ে যায় অথবা যখন রক্তক্ষরণ শুরু হয় তখন সেই পরিস্থিতিকে ব্রেন স্ট্রোক বলা হয়। রক্ত সঞ্চালন বন্ধ হয়ে গেলে ব্রেনের কোষগুলিতে অক্সিজেনের মাত্রা এক ধাক্কায় কমে যায় এবং সঙ্গে সঙ্গে কোষগুলির মৃত্যু হয়। ব্রেন স্ট্রোকের ক্ষেত্রে অতি দ্রুত চিকিৎসা প্রয়োজন। যত দ্রুত চিকিৎসা করা হবে, তত বেশি রোগীর ব্রেনে ক্ষতির সম্ভাবনা কমবে। এমনকী, ব্রেন স্ট্রোকের ফলে শরীরের কোনও একটি অঙ্গ সঠিক ভাবে না-ও কাজ করতে পারে। সারা জীবনের মতো পক্ষাঘাতে ভুগতে পারেন রোগী।

ব্রেন স্ট্রোকের ঝুঁকি কী ভাবে বাড়ে?

যেহেতু ব্রেনে রক্ত সঞ্চালনের সমস্যার জেরে এবং অক্সিজেনের অভাবের কারণে ব্রেন স্ট্রোক হয় তাই এই রোগের ক্ষেত্রে অনেকগুলি কারণ রয়েছে। প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ একাধিক কারণ রয়েছে ব্রেন স্ট্রোকের পিছনে। প্রথমত, অস্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ ব্রেন স্ট্রোকের অন্যতম কারণ। এছাড়াও অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের জন্যও অনেকে সমস্যায় পড়েন।

অনিয়ন্ত্রিণ জীবন যাপন ব্রেন স্ট্রোকের সম্ভাবনা অনেকটাই বাড়িয়ে দেয়। এই বিষয়ে একটি গবেষণা করেছে জন হপকিন্স মেডিসিন (John Hopkins Medicine)। সেই গবেষণায় উঠে এসেছে গর্ভনিরোধক ওষুধ (Contraceptive Pills) খেলেও তা ব্রেন স্ট্রোকের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয় এবং সেই গবেষণায় উঠে এসেছে যে পুরুষদের থেকে মহিলাদের মধ্যে অনেক বেশি ব্রেন স্ট্রোকের সম্ভাবনা থাকে।

গবেষকদের দাবি, গর্ভনিরোধক ওষুধ খাওয়ার পর তা ওয়েস্ট্রোজেন হরমোনের (Oestrogen) উপর প্রভাব ফেলে যার কারণে মহিলাদের ব্রেন স্ট্রোক হতে পারে। তবে এটাই শুধু একমাত্র কারণ নয়, ব্রেন স্ট্রোকের জন্য আরও বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। সেগুলোতেও নজর রাখা যাক এক এক করে!

স্মোকিং

ব্রেন স্ট্রোকের জন্য অন্যতম বড় কারণ ধূমপান। ২০১৯ সালে প্রকাশিত একটি সংবাদপত্রের রিপোর্টে প্রকাশ ভারতে মোট যে সংখ্যক মানুষের বয়স ১৮ বছরের বেশি, তার মধ্যে ৩৪.৬ শতাংশ মানুষ ধূমপান করেন। দেখা গিয়েছে যাঁরা ধূমপান করেন তাঁদের মধ্যে ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই বেশি।

তুলনামূলকভাবে যাঁরা ধূমপান করেন না তাঁদের ক্ষেত্রে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। শুধু ব্রেন স্ট্রোক নয়, ধূমপানের ফলে হৃদরোগের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। এবং ফুসফুসের বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হতে পারেন ধূমপায়ী ব্যক্তি। শ্বাসকষ্ট দেখা দিতে পারে। জন হপকিন্স মেডিসিন-এর গবেষণায় যে রিপোর্ট প্রকাশ হয়েছে তাতে বলা হয়েছে ধূমপানের ফলে কোনও ব্যক্তির ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা দ্বিগুণ বেড়ে যায়।

শরীরচর্চার অভাব

শরীরচর্চা কমিয়ে দিতে পারে ব্রেন স্ট্রোকের সম্ভাবনা। দৈনিক শরী চর্চা যে শুধু অতিরিক্ত ওজন কমাতে সাহায্য করে এমনটা নয় বা স্থুলকায় চেহারা থেকে মুক্তি দেয় এমনটা ন-য় ব্রেন স্ট্রোকের হাত থেকেও রক্ষা করে। এমনকী, ব্রেন স্ট্রোক ছাড়াও আরও বেশ কিছু জটিল রোগ থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করে। তাই বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ দৈনিক শরীরচর্চা করা প্রয়োজন। দৈনিক শরীরচর্চা, সুষম আহার এবং অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন বর্জন শরীরের অনেক রোগ থেকে দূরে রাখতে সাহায্য করে। তাই নিয়মিত নির্দিষ্ট সময় মেনে শরীরচর্চা করা দরকার।

অতিরিক্ত মদ্যপান

অতিরিক্ত মদ্যপান ব্রেন স্ট্রোকের অন্যতম কারণ বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এই বিষয়ে তাঁদের যুক্তি, অতিরিক্ত মদ্যপান করলে শরীরে রক্তচাপ বেড়ে যায়। আর রক্তচাপ বেড়ে গেলে তা ব্রেন স্ট্রোকের কারণ হতে পারে।

এই বিষয়ে লন্ডনের ন্যাশনাল হেল্থ সার্ভস (National Health Services) জানিয়েছে যে, খুব অল্প সময়ের মধ্যে অতিরিক্ত পরিমাণ অ্যালকোহল গ্রহণ করাকে বলা হয় বিঞ্জ ডিঙ্কিং (Binge Drinking)। যা ব্রেন স্ট্রোকের অন্যতম কারণ। মহিলাদের ক্ষেত্রে বলা যায় যে তাঁরা যদি খুব অল্প সময়ের মধ্যে ৬ ইউনিট অ্যালকোহল গ্রহণ করেন তাহলে তা বিঞ্জ ড্রিঙ্কিংয়ের মধ্যে গণ্য হবে। অন্য দিকে, পুরুষদের ক্ষেত্রে ৮ ইউনিট অ্যালকোহল গ্রহণ করাকে বিঞ্জ ড্রিঙ্কিং বলে।

স্ট্রোকের অন্য কারণগুলি কী কী?

এই কারণগুলির পাশাপাশি স্ট্রোকের জন্য আরও বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। সেগুলির মধ্যে রয়েছে, উচ্চ কোলেস্টেরল (Cholesterol), মধুমেহ (Diabetes) সহ একাধিক বিষয়। এর সঙ্গে দুশ্চিন্তার কারণেও ব্রেন স্ট্রোক হতে পারে। পরিবারের যদি কারও ব্রেন স্ট্রোক হয়ে থাকে তাহলে উত্তরসূরীদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

চিকিৎসা

কেউ স্ট্রোকে আক্রান্ত হলে তাঁর দ্রুত চিকিৎসা প্রয়োজন। আক্রান্ত রোগী যত দ্রুত চিকিৎসা পাবেন তত ক্ষতির পরিমাণ কমবে। এমনকী মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচানো সম্ভব। ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার প্রথম কয়েক ঘণ্টা অত্যন্ত জরুরি। কারণ যত দ্রুত ব্রেনে রক্ত সঞ্চালন শুরু করা যাবে তত বেশি ক্ষতির হাত থেকে বাঁচানো সম্ভব হবে।

কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত ব্যক্তিকে সুস্থ করে তোলার জন্য অস্ত্রোপচার করার প্রয়োজন হয়। কারণ, মস্তিস্কের ভিতরে রক্তক্ষরণ হলে তা সেখানে জমে যায়। যার ফলে অস্ত্রোপচার করে বের করে আনতে হয়।

ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত রোগীর কী কী শারীরিক পরীক্ষা করা প্রয়োজন?

ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত রোগীর ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি পরীক্ষা করতে হয়। ওই পরীক্ষার মাধ্যমে নির্ধারিত হয় রোগীর শরীরের অবস্থা এবং ব্রেনের অবস্থা।

সবার প্রথমে যে পরীক্ষাটি করা হয় তা হল কম্পিউটারইজড টোমোগ্রাফি বা CT স্ক্যান।

দ্বিতীয়ত, রোগীর ম্যাগনেটিক রিজোনেন্স ইমেজিং বা MRI (Magnetic Resonance Imaging) করা হয়।

তৃতীয়ত, ক্যারোটিড আলট্রাসাউন্ড (Carotid Ultrasound) করার প্রয়োজন পড়ে।

চতুর্থত, সেরিব্রাল অ্যাঞ্জিওগ্রাম (Cerebral Angiogram) করা হয়।

এছাড়াও বেশ কয়েকটি রক্ত পরীক্ষা, ইকোকার্ডিওগ্রাম সহ একাধিক পরীক্ষা করার প্রয়োজন পড়ে। সঠিক চিকিৎসার জন্য এই পরীক্ষাগুলি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

Published by:Piya Banerjee
First published:

Tags: Brain Stroke, Health, Lifestyle, Stroke

পরবর্তী খবর